Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper

শিরোনাম
প্রকাশ : ১৬ জুন, ২০১৯ ০৯:৩০

বাংলাদেশই ফেবারিট!

মেজবাহ-উল-হক টনটন থেকে

বাংলাদেশই ফেবারিট!

সমারসেট কাউন্টি ক্রিকেট গ্রাউন্ডের প্রেসবক্সে ঢুকতেই চোখে পড়ে লোগোটি। বিশ্বকাপের ট্রফি এবং টনটনে যে ছয় দল এবার বিশ্বকাপে অংশ নিচ্ছে তাদের একজন করে ক্রিকেটারের ছবি। সেখানে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের মধ্যে বেছে নেওয়া হয়েছে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে। সব শেষ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বড় তারকা তো মাহমুদুল্লাহই। টানা দুই সেঞ্চুরি ও একটি হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন। তার দুর্দান্ত ব্যাটিংয়েই প্রথমবারের মতো  কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে টাইগাররা। কিন্তু সেই মাহমুদুল্লাহ এবার রানই পাচ্ছেন না। অবশ্য প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ঝড়ো ব্যাটিং করেছিলেন,  খেলেছিলেন অপরাজিত ৪৬ রানের ইনিংস। কিন্তু পরের দুই ম্যাচে তার ব্যাটে রানখড়া। ২০ ও ২৮ রানের দুটি ইনিংস খেললেন অনেক বেশি বল নষ্ট করেছেন। তার স্টাইকরেট ছিল ৪৮.৭৮ ও ৬৮.২৯। মাহমুদুল্লাহর বড় ইনিংস না খেলার পেছনে বড় একটা কারণও আছে! তা হচ্ছে, ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে তিনি ছিলেন ওয়ান ডাউন ব্যাটসম্যান, আর এখন তাকে ব্যাট করতে হচ্ছে ছয় নম্বরে! টপ অর্ডারে ধস না নামলে বাইশগজে বেশি সময় কাটানোর সুযোগ নেই তার। মাহমুদুল্লাহর পজিশনে সুযোগ পাওয়া সাকিব আল হাসান তো ঠিকই রান বন্যা বইয়ে দিচ্ছেন। তিন ম্যাচে মিলে করেছেন ২৬০ রান। প্রথম দুই ম্যাচে হাফ  সেঞ্চুরি, শেষ ম্যাচে দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি। ব্যাটি              ংয়ে ফর্মের তুঙ্গে রয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। যদিও তার বল হাতে এখনো নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি। তিন ম্যাচে নিয়েছেন মাত্র তিন উইকেট। টনটনের এই কাউন্টি গ্রাউন্ডেও যে বল হাতে খুব একটা সুবিধা করতে পারবেন তা বলা কঠিন! কারণ সমারসেটের এই মাঠটি একে তো ব্যাটিং স¦র্গ, এখান  থেকে যতটুকু সুবিধা পাওয়ার তা পেসাররাই পেয়ে থাকেন। বিশ্বকাপের আগের দুই ম্যাচেই তা চোখে পড়েছে। স্পিনারদের রীতিমতো সংগ্রাম করতে হয়েছে। তারপরও প্রতিপক্ষের বড় দুই তারকা গেইল-রাসেলকে আটকে সাকিবের সঙ্গে মেহেদী হাসান মিরাজকে প্রস্তুত করে রাখছেন কোচ। কারণ ক্যারিবীয় এই দুই তারকাকে আটকাতে হলে  পেসারদের ওপর খুব বেশি ভরসা করে লাভ নেই।  পেস বোলিংয়ের বিরুদ্ধে দুই তারকাই ভীষণ সাচ্ছন্দ্য। টনটনের এই মাঠটি তুলনামূলক ছোট। সব শেষ  খেলা পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে ১৩টি  ছক্কা হয়েছে। আর প্রতিপক্ষ ক্যারিবীয়রা তো ছক্কা হাঁকানোর ওস্তাদ! কিন্তু তামিমের ভাবনা অন্যরকম, ‘ছোট মাঠ, বড় মাঠ বলে কোনো কথা নেই। ক্যারিবীয়  যে ছক্কা হাঁকান সেটা সব মাঠেই ছক্কা হয়। আমি মনে করি ফর্মে থাকলে বড় মাঠও ছোট মনে হয়। ফর্মে  থাকাটাই আসল।’ ড্যাসিং ওপেনার নিজেই ফর্মে নেই। তিন ম্যাচে ভালো শুরুর পরও ইনিংস বড় করতে পারেননি। তবে এই ম্যাচে রান করার জন্য মুখিয়ে রয়েছেন। কাল দুশ্চিন্তা বাড়িয়ে দিয়েছে মুশফিকের হালকা চোট! অনুশীলন করার সময় ডান হাতে বল লেগেছিল। যদিও তামিম মনে করেন, ‘সিরিয়াস কিছু না!’ প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ যেকোনো দলের জন্যই ভয়ঙ্কর! যদিও আগের ম্যাচে তারা ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে দাঁড়াতেই পারেনি। তাই ক্যারিবীয়দের বিরুদ্ধে টনটনে মাঠে নামার আগে নিজেদেরই ফেবারিট ভাবছেন তামিম, ‘বাংলাদেশই ফেবারিট এই ম্যাচে। ওদের মাঠে গিয়ে আমরা সিরিজ জিতেছে। সব শেষ সিরিজেও আয়ারল্যান্ডে আমরা ওদেরকে হারিয়েছি। তাই ফেবারিট তকমা বাংলাদেশের গায়েই থাকবে। যদিও খেলা এমন নির্দিষ্ট দিনে যারা ভালো খেলবে তারাই জিতবে!’


আপনার মন্তব্য