Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper

শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৮ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০৫

ইতিহাস

পলপটের কর্মজীবন

পলপটের কর্মজীবন

খেমার বাহিনী যে তৎপরতা শুরু করে তারা সেটাকে বলতে থাকে ‘মার্কসিস্ট-লেনিনিস্ট ট্রান্সফরমেশন প্রোগ্রাম’। যদিও এই মার্কসবাদ নিয়ে দুটি কথা বলতেই হয়, একটু পেছন ফিরে যেতে হয় ষাটের দশকে। খেমার-রুজ পার্টির গুরু পল পট ফ্রান্স গিয়েছিলেন পড়ালেখা শিখতে, সেখানেই তিনি কমিউনিস্ট আদর্শের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েন। ফ্রান্স থেকে উচ্চশিক্ষা লাভ করে ফিরে পল পট কম্বোডিয়ায় শিক্ষকতা শুরু করেন এবং কম্বোডিয়ার বিদ্রোহী কমিউনিস্ট নেতাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ স্থাপন করেন। সে সময় কম্বোডিয়ায় আলাদা তিনটি প্রধান কমিউনিস্ট দলের অস্তিত্ব ছিল, যেগুলোকে একত্রিত করে একটি সমন্বিত কমিউনিস্ট দল গড়ে তুলতে সক্ষম হন পল পট। তার গড়া এই ঐক্যবদ্ধ দলটিই ‘কমিউনিস্ট পার্টি অব ক্যাম্পুচিয়া’ নামে বিশ্বে পরিচিতি লাভ করে। সংগঠিত হয়ে আত্মপ্রকাশ করার পরে পল পটের খেমার-রুজ বাহিনী তৎকালীন কম্বোডীয় রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রচার শুরু করে। তৎকালীন কম্বোডিয়ার রাজা নরোদম সিহানুক এক পর্যায়ে বামপন্থি দলগুলোকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন। সে সময় আত্মগোপনে থেকে এক পর্যায়ে ভিয়েতনাম চলে যান পল পট, সেখানে থাকতেই তিনি উত্তর ভিয়েতনাম সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। কম্বোডিয়ার তৎকালীন রাজতন্ত্র দমন ও শোষণমূলক হওয়ায় ভিয়েতনামের কমিউনিস্ট দলগুলো পল পটকে সমর্থন দিতে কুণ্ঠিত হয়নি। বিপত্তি ঘটে ১৯৬০ সালের শেষের দিকে। নিজের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার জন্য তিনি তার দলকে নিজের মতো করে ঢেলে সাজান।


আপনার মন্তব্য