শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৬ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ মার্চ, ২০২০ ২৩:০২

খোন্দকার দেলোয়ারকে গভীর শ্রদ্ধা

অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ

খোন্দকার দেলোয়ারকে গভীর শ্রদ্ধা

বাংলাদেশের রাজনীতির যে কোনো দরজায় দৃষ্টি দিন, দেখবেন, খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন দাঁড়িয়ে রয়েছেন বুক ভরা সাহস, দৃপ্ত মনোবল এবং বিচক্ষণতার মূর্ত প্রতীকরূপে। ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনকালে একজন যোগ্য রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে সেই যে রাজনীতির অঙ্গনে প্রবেশ করলেন ২০১১ সালের ১৬ মার্চ পর্যন্ত সেই অঙ্গনকে সুসজ্জিত করে, চারদিকে আলো ছড়িয়ে রাজনীতি যে জনগণের কল্যাণ সাধনের মহান পদক্ষেপ প্রতিপদে তিনি তা প্রমাণ করে বিদায় নিলেন আপনজনের কাছ থেকে। তারপরেও তিনি বেঁচে রইলেন রাজনীতি যে সৃজনশীল প্রত্যয় তা তার প্রিয়জনদের জন্য কাক্সিক্ষত উপহার রূপে প্রদান করে এবং কর্মীদের জন্য শিক্ষণীয় বিষয়রূপে সাজিয়ে গুছিয়ে। কার সাধ্য এমন নেতাকে ভোলে? ১৯৫৭ সালে তিনি শুধু একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে নন, বরং ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ-NAP) সংগঠিত হলে তার একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবে দায়িত্বশীল হয়ে ওঠেন। এটি উল্লেখযোগ্য যে, ১৯৬৯ সালে গণঅভ্যুত্থানের সেই ঐতিহাসিক কালে তার ভূমিকা ছিল স্মরণীয়। ১৯৭০ সালে ন্যাপের প্রার্থী হিসেবে সংসদ নির্বাচনে তিনি অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের জন্ম হলে তিনি বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে একাত্ম হয়ে পড়েন। তার নির্বাচনী এলাকা ঘিওর-দৌলতপুর থেকে নির্বাচিত হয়েছেন দ্বিতীয়, পঞ্চম, ষষ্ঠ, সপ্তম এবং অষ্টম জাতীয় সংসদে। এটিও উল্লেখযোগ্য যে, তিনি পঞ্চম, ষষ্ঠ, সপ্তম অষ্টম জাতীয় সংসদে চিফ হুইপ (Chief whip) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তাছাড়াও তিনি সংসদের কার্য উপদেষ্টা কমিটি এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়- সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি যেমন জাতীয় রাজনীতির বিভিন্ন পর্যায়ে দায়িত্ব পালন করেন অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে, তেমনি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রেও তিনি ছিলেন তীব্রভাবে কর্মতৎপর। ১৯৯৩-৯৪ সালে সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগদান করেন। ১৯৯৩ সালে অস্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরায় অনুষ্ঠিত আন্তসংসদীয় ইউনিয়ন সম্মেলনে যোগদান করেন। ১৯৯৩ সালে তিনি শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোয় এবং ১৯৯৫ সালে ভারতের রাজধানী দিল্লিতে অনুষ্ঠিত সার্কের (SAARC) স্পিকারদের ফোরামে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৯৮ সালে তিনি বাংলাদেশ সংসদীয় ডেলিগেশনের সদস্য হিসেবে সৌদি আরব গমন করেন এবং পবিত্র নগরী মক্কায় ওমরাহ পালন করেন ও মদিনায় হজরত মুহাম্মদ (সা.) এর রওজা জিয়ারত করেন। ২০০৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক ইনস্টিটিউট পরিদর্শন করেন এবং ওই বছরই তিনি বাংলাদেশের সংসদীয় প্রতিনিধি হিসেবে অস্ট্রেলিয়া সফর করেন। ২০০৪ সালে তিনি মেক্সিকো সিটিতে অনুষ্ঠিত আন্তসংসদীয় সম্মেলনে যোগদান করেন। খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের রাজনৈতিক ভূমিকা প্রকৃত প্রস্তাবে সবচেয়ে উজ্জ্বল এবং স্থায়ীভাবে সুস্পষ্ট হয়ে ওঠে ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি দেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণার পরে যখন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের ওপর অবর্ণনীয় নির্যাতন নেমে আসে, বিশেষ করে ‘মাইনাস টু’ (Minus Two) ফর্মুলার মাধ্যমে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে দেশছাড়া করার গভীর ষড়যন্ত্রে মেতে ওঠে। অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী সামরিক কর্মকর্তারা এবং জাতীয়তাবাদী দলকে খন্ডছিন্ন করার হীন পরিকল্পনায় মেতে ওঠে সামরিক বাহিনী সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার। ব্রিটেনের শ্রেষ্ঠতম ব্যক্তিত্ব হিসেবে যিনি চিহ্নিত সেই মহান কবি এবং নাট্যকার শেকসপিয়রের একটি উদ্ধৃতি এই প্রসঙ্গে উল্লেখযোগ্য। তিনি তার Measure for Meeasure : Act III  : ২৮৩ নাটকে লিখেছিলেন : “He who the sword of heaven will bear should be as holy as severe” দেলোয়ার ভাই সব ষড়যন্ত্রের মুখে হিমালয়ের মতো সুদৃঢ়ভাবে দাঁড়িয়ে অপ্রত্যাশিত ঝড়ের বেগকে নিয়ন্ত্রণে এনেছিলেন। সেই দুঃসময়ে তাঁর দৃঢ়তা যেমন ছিল কাক্সিক্ষত, তেমনি ছিল সৃজনশীল। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের সব সদস্য অবাক বিস্ময়ে তাঁর এই দৃঢ়তা দেখে ছুটে গিয়েছিলেন তাঁর পদক্ষেপকে সমর্থনের লক্ষ্যে। ওই সময়ে তাঁর সাহস, তাঁর ধৈর্য, তাঁর বিচক্ষণতা, তাঁর নেতৃত্ব যে ভূমিকা পালন করেছিল জাতীয়তাবাদী দলের আজকের সংকটকে কাটিয়ে উঠতে ঠিক তেমনি সাহস, তেমনি বিচক্ষণতা, তেমনি নেতৃত্বের প্রয়োজন। তিনি তখন দৈহিক দিক দিয়ে সুস্থ ছিলেন না, তথাপি দেখেছি, হাসপাতালের বেড থেকে যে নির্দেশ দিচ্ছেন, বিনা দ্বিধায় সবাই তা মেনে চলছেন। পরবর্তীতে বেগম খালেদা জিয়া যখন জেল থেকে বেরিয়ে এসে দলের হাল ধরলেন তার পূর্ব পর্যন্ত খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনই ছিলেন দলের নেতা, দলের মুখপাত্র, দলের নির্দেশক, দলের প্রাণপুরুষ। আমার সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। একজন অপরজনকে শুধু ভাই বলে সম্বোধন করতাম তাই নয়। ভাই যেমন ভাইয়ের পাশে বিপদে-আপদে বিনা দ্বিধায় দাঁড়ায়। আমরাও তাই করতাম। ওই সময় যে কত কথা বিনিময় করেছি। কতভাবে যে তাকে সাহস জুগিয়েছি তা বলার নয়। বারে বারে উচ্চারণ করেছি আপনি ঠিক পথে আছেন। কোনো সংশয় নেই। আমরা আছি আপনার সঙ্গে। বয়সের দিক দিয়ে আমরা খুব কাছাকাছি ছিলাম। তাই হৃদ্যতা এত গভীর হয়েছিল। যেদিন তিনি চলে গেলেন, খবরটা পেয়ে হৃদয়টা ভেঙে গিয়েছিল প্রায়। মহান আল্লাহতায়ালার কাছে মোনাজাত করেছি, এখনো করি- আল্লাহ তাকে বেহেশত নসিব করুন।

লেখক :  প্রফেসর ইমেরিটাস, সাবেক ভিসি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।


আপনার মন্তব্য