শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ ডিসেম্বর, ২০২০ ২৩:৪৪

শিক্ষার আলোয় বৈষম্য দূর হোক

অধ্যাপক মোহাম্মদ মাজহারুল হান্নান

শিক্ষার আলোয় বৈষম্য দূর হোক

‘সৃষ্টির সেরা’ মানুষের জন্য মহানবী (সা.)-এর মাধ্যমে আল্লাহর প্রথম বাণী ‘পড়’ অর্থাৎ জ্ঞান অর্জন কর। তাই তো মহানবী (সা.) বলেছেন, শিক্ষা প্রতিটি নর-নারীর জন্য ফরজ। শিক্ষার আলোই মানুষকে পথ চলতে শিখিয়েছে। কেননা শিক্ষাই মানুষের মানবিক গুণাবলি ও প্রতিভার বিকাশ ঘটায়। এ ক্ষেত্রে নারী-পুরুষের কোনো প্রভেদ নেই। বরং নারী বিনে পুরুষ অসমাপ্ত আবার পুরুষ ছাড়া নারী অসম্পূর্ণ। সৃষ্টির প্রবহমানতা অব্যাহত রাখার লক্ষ্যেই নারীর সৃষ্টি। আর এ সৃষ্টিকে সার্থক করতে, সফল করতে, সুন্দর করতে পুরুষের যেমন শিক্ষার প্রয়োজন তেমনই নারীর শিক্ষাও অপরিহার্য। তবু এ কথা সত্য, নারী শিক্ষার বিষয়টি বিভিন্ন সময়ে চরমভাবে উপেক্ষিত হয়েছে, অবহেলিত হয়েছে। নারী প্রগতির দিশারি। বেগম রোকেয়া দুঃখ করে বলেছিলেন ,‘স্বামী যখন পৃথিবী হইতে সূর্য ও নক্ষত্রের দূরত্ব নির্ণয় করিতে ব্যস্ত, স্ত্রী তখন একটা বালিশের ওয়াড়ের দৈর্ঘ্য-প্রস্থ মাপেন সেলাই করিবার জন্য...।’ ধর্মীয় গোঁড়ামি আর সংকীর্ণতার কারণে অতীতে মেয়েদের লেখাপড়া শিখিয়ে তাদের মানসিক বিকাশ ঘটানোর রীতি এ দেশে ছিল না বললেই চলে। তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের গভর্নর জেনারেল কাউন্সিলের আইনবিষয়ক সদস্য ও শিক্ষা কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট মি. এলিয়ট ডিংকওয়াটার বেথুন ১৮৪৯ সালের ৭ মে কলকাতায় ‘ক্যালকাটা ফিমেল স্কুল’ নামে একটি অবৈতনিক বালিকা বিদ্যালয় স্থাপন করেন। এ নারী শিক্ষা নিকেতনটি পরে বেথুন বালিকা বিদ্যালয় নামে খ্যাতি লাভ করে। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর নিজেও ১৮৫৭-৫৮ সালে বাংলার বিভিন্ন জেলায় মেয়েদের জন্য ৩৫টি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। এসব স্কুলে প্রায় ১ হাজার ৩০০ ছাত্রী পড়ত। ১৮৬৩-৬৪ সালে ঢাকার শিক্ষক প্রশিক্ষণ স্কুল ও সাধারণ স্কুলে ছাত্রীসংখ্যা ছিল মাত্র ১৬। তবে সে সময়ে শিক্ষিকার অভাব নারী শিক্ষা প্রসারে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। ১৮৬৭-৬৮ সালে পূর্ববঙ্গের ছয়টি স্কুলে মাত্র ছয়জন শিক্ষয়িত্রী ছিলেন। বাল্যবিয়ে ও অবরোধ প্রথার জন্যই মেয়েদের শিক্ষার চরম এ দুরবস্থা ছিল।

বাংলার মুসলমান সম্প্রদায় ধর্মীয় গোঁড়ামির কারণে সামাজিকভাবে অনেক পশ্চাৎপদ থাকায় নারী শিক্ষার ক্ষেত্রে তখনো কোনো বলিষ্ঠ পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব হয়নি। সেটা ছিল মুসলিম নারীদের জন্য কুসংস্কারাচ্ছন্ন অন্ধকার যুগ। এ অবস্থায় মুসলিম সমাজের অবরোধ প্রথার কঠোর শৃঙ্খলা ভেঙে উনিশ শতকের মাঝামাঝি থেকে পরবর্তী পাঁচ দশকের মধ্যে যে কজন মহীয়সী নারী শিক্ষার উদ্যোগ নিয়েছিলেন তাঁর মধ্যে বিবি তাহেরুননেছা, কুমিল্লার নওয়াব ফয়জুন্নেছা চৌধুরানী (১৮৩৪-১৯০৩), রংপুরের কুরিমুন্নেসা খানম (১৮৫৫-১৯২৬, বেগম রোকেয়ার বড় বোন)-এর নাম উল্লেখযোগ্য। তা ছাড়া ওই সময়ে মুসলিম বালিকাদের শিক্ষাদানের জন্য আরও উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন মুর্শিদাবাদের নওয়াব ফেরদৌস মহল ও খুজিস্তা আক্তার বানু (হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মা)। এ সময়েই মুসলিম নারী শিক্ষার অগ্রদূত বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের আবির্ভাব মুসলিম নারীসমাজের জন্য আশীর্বাদস্বরূপ। তাঁর প্রতিভা আর মহৎ উদ্যোগ সেকালের ভগ্নহৃদয় মুসলমান সমাজের জন্য এক দৈব আশ্বাস। তাঁর মতো বুদ্ধিদীপ্ত, মার্জিত রুচিসম্পন্ন, আত্মনির্ভরশীল, দৃঢ়প্রত্যয়ী শিক্ষানুরাগীর জন্ম নিঃসন্দেহে নবজাগরণের সৃষ্টি করে। সাহিত্যিক, সমাজসেবী ও শিক্ষাব্রতী বেগম রোকেয়া ১৮৮০ সালের ৯ ডিসেম্বর রংপুরের পায়রাবন্দ গ্রামের রক্ষণশীল মুসলিম জমিদার বংশে জন্মলাভ করেন। তিনি ১৮৯৭ সালে ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেনের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। স্বামীর উৎসাহে তিনি বাংলা-ইংরেজি শেখেন। ১৯০৯ সালে স্বামীর অকালমৃত্যুতে তিনি বিধবা হওয়ার পাঁচ মাস পর মুসলিম মেয়েদের শিক্ষার জন্য ব্রতী হয়ে মাত্র পাঁচজন ছাত্রী নিয়ে ১৯০৯ সালে ভাগলপুরে একটি স্কুল আরম্ভ করেছিলেন। ১৯১০ সালে তিনি কলকাতায় চলে আসেন এবং ১৯১১ সালের ১৬ মার্চ কলকাতায় তালতলা ওলিউল্লা লেনে মাত্র আটজন ছাত্রী নিয়ে মরহুম স্বামীর নামানুসারে সাখাওয়াত মেমোরিয়াল বালিকা বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। সেটিই বাংলাদেশের মুসলিম মেয়েদের জন্য প্রথম স্থায়ী স্কুল (যদিও ১৮৯০ সালে মুসলিম মেয়েদের জন্য দুটি স্কুল চালু হয়েছিল, কিন্তু তা ছিল ক্ষণস্থায়ী)। বেগম রোকেয়া নারী শিক্ষা বিস্তারের সংগ্রাম ও কর্তব্যকর্মে মাওলানা মোহাম্মদ আলী, শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক, জাস্টিস সৈয়দ শরফুদ্দীন, নওয়াব সিরাজুল ইসলাম খান, জাস্টিস সৈয়দ হাসান ইমাম, ব্যারিস্টার আবদুর রসুল, স্যার আবদুল করিম গজনভী, স্যার আবদুল হালিম গজনভী, ব্যারিস্টার সৈয়দ সুলতান আহম্মদ, স্যার আবদুর রহিম, নওয়াব সৈয়দ শামসুল হুদা, হাজি নূর মোহাম্মদ জাকারিয়া, শেখ মাহবুব আলী, সৈয়দ আহম্মদ আলী প্রমুখ মহৎপ্রাণ ব্যক্তির সমর্থন ও সহযোগিতায় প্রেরণা লাভ করেন। অনেক প্রচেষ্টার পর ১৯১৭ সালে এ স্কুলটি মধ্য ইংরেজি গালর্স স্কুলে এবং ১৯৩১-এ উচ্চ ইংরেজি গালর্স স্কুলে রূপান্তরিত হয়। স্কুলের প্রধান শিক্ষয়িত্রী ও সুপারিনটেনডেন্টের দায়িত্ব পালন করে বেগম রোকেয়া কোনো পারিশ্রমিক গ্রহণ করতেন না এবং স্কুলের উন্নতির জন্য নিজের অর্থ ব্যয় করতেন। মুসলিম নারী শিক্ষার অন্ধকার যুগে কলকাতার বিভিন্ন পাড়ায় পাড়ায় ঘুরে স্কুলের জন্য ছাত্রী সংগ্রহ করতেন। মুসলিম নারীমুক্তি আন্দোলনের পথিকৃৎ বেগম রোকেয়া সারা জীবন নিরলস সংগ্রাম করে ১৯৩২ সালের ৯ ডিসেম্বর কলকাতায় মৃত্যুবরণ করেন। চরম প্রতিকূলতার মাঝেও এ দেশের মুসলিম নারী শিক্ষার উন্নয়নের ইতিহাসে বেগম রোকেয়া সাখাওয়াতের অবদানের কথা স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। পরিশেষে ছেলেমেয়ে উভয়েই আল্লাহর সৃষ্টি। তাই একজনকে অন্য জনের ওপর প্রাধান্য দেওয়ার কোনো কারণ নেই। মেয়ে ও ছেলে উভয়েই সন্তান হিসেবে স্বীকৃত বিধায় উভয়ের প্রতি একই প্রকার আচরণ করতে হবে। কোনো বাবা-মা-ই যেন পক্ষপাতিত্ব করে ছেলেসন্তানকে প্রাধান্য দিয়ে মেয়েসন্তানকে উপযুক্ত শিক্ষা থেকে বঞ্চিত না করেন। বরং শিক্ষার আলোতেই নারী ও পুরুষের বৈষম্যের অবসান হবে- এ প্রত্যাশাই করি।

লেখক : শিক্ষাবিদ, সাবেক ট্রেজারার, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়।

email : [email protected]


আপনার মন্তব্য