শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:০১

ফ্লাইওভার ও ওভারপাসের তদারকি

নির্দিষ্ট সংস্থাকে দায়িত্ব দিন

রাজধানীতে যানজট নিরসনসহ সড়ক পরিবহন ব্যবস্থাপনায় আধুনিয়কায়নের জন্য পাঁচটি ফ্লাইওভার ও দুটি ওভারপাস নির্মাণ করা হয়েছে। এগুলো হলো মহাখালী, খিলগাঁও, মেয়র হানিফ, কুড়িল ও মালিবাগ-মৌচাক ফ্লাইওভার। দুটি ওভারপাস হলো বনানী ও বিজয় সরণিতে। কিন্তু রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে অরক্ষিত ফ্লাইওভারগুলো। সড়কবাতি, সিগন্যাল নষ্ট, নোংরা জমে থাকে ফ্লাইওভারের মুখে। নজরদারি না থাকায় ফ্লাইওভারে ঘটছে ছিনতাই, হত্যার মতো ঘটনা। ফ্লাইওভারগুলো কোনো নির্দিষ্ট সংস্থার দায়িত্বে না থাকায় চলছে টানাপোড়েন। সিটি করপোরেশনের তত্ত্বাবধানে না থাকায় নিয়মিত ঝাড়ু দেওয়া হয় না সব ফ্লাইওভারে। মালিবাগ ফ্লাইওভারের কিছু অংশ উত্তর সিটি করপোরেশনে বাকি অংশ দক্ষিণ সিটির আওতায়। ফলে কোনো সংস্থা এ ফ্লাইওভারের রক্ষণাবেক্ষণে নজর দেয় না। এ সমন্বয়হীনতায় ফ্লাইওভার ঘিরে তৈরি হচ্ছে অপরাধীদের অভায়ারণ্য। রাজধানীসহ বিভিন্ন জায়গায় ফ্লাইওভার তৈরিতে অনেক আগ্রহ থাকলেও রক্ষণাবেক্ষণে নজর নেই কোনো সংস্থার। আমাদের দেশে মহা উৎসাহে একের পর এক নতুন ফ্লাইওভার বানানো হলেও কোন সংস্থা ফ্লাইওভার বানাবে তা নিয়ে দরকষাকষি চললেও রক্ষণাবেক্ষণে কারও আগ্রহ না থাকা দুর্ভাগ্যজনক। এ জন্য চালুর কিছু দিনের মধ্যেই জীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠছে এগুলো। ফ্লাইওভারের জায়গা দখল করে অবৈধ পার্কিং, ফলের দোকান, মাছের হাট, লেগুনাস্ট্যান্ড, মোটরসাইকেল পার্কিং, চায়ের দোকান গড়ে উঠেছে। কোনো বরাদ্দ না থাকায় ফ্লাইওভার তৈরির পর রাজউক রক্ষণাবেক্ষণ করতে পারছে না। জনস্বার্থেই ফ্লাইওভার ও ওভারপাসগুলোর রক্ষণাবেক্ষণ জরুরি। নির্দিষ্ট সংস্থাকে দায়িত্ব দিয়ে এগুলো নিরাপদ করার উদ্যোগ নিতে হবে।


আপনার মন্তব্য