১৭ জানুয়ারি, ২০২২ ১৭:১১

‌‘১৫০ তো হলো, এবার মধ্য এশিয়ার দেশগুলো ভ্রমণ করতে চাই’

জামশেদ আলম রনি

‌‘১৫০ তো হলো, এবার মধ্য এশিয়ার দেশগুলো ভ্রমণ করতে চাই’

নাজমুন নাহার

‘বিশ্বের ১৫০ দেশ ইতোমধ্যে ভ্রমণ করেছি। এবার চলতি মাসের শেষে মধ্য এশিয়ার উজবেকিস্তান থেকে আমার পরবর্তী ভ্রমণ শুরু হবে। সিল্ক রোড হয়ে তাজিকিস্তান, ইরাকের কুর্দিস্তান ভ্রমণ করব। তারপর সিরিয়ার ভিসা পেলে সেখানে ভ্রমণের চেষ্টা করব। সেটা না হলে সিসিলিস ও মরিসাস ভ্রমণে বের হব। এরপর আরও কিছু দেশ ঠিক করে রেখেছি, সেগুলো হচ্ছে- মাদাগাস্কার, কমোরোস, কেপভার্দে, মালাউই। সমুদ্রের মধ্যে এই কয়েকটা দেশ। এসব দেশ ভ্রমণই আমার পরবর্তী টার্গেট।’ 

আজ সোমবার দুপুরে বাংলাদেশ প্রতিদিন অফিসে একান্ত আলাপকালে নিজের এসব ইচ্ছার কথা ব্যক্ত করেন পতাকা হাতে ১৫০ দেশ ভ্রমণকারী প্রথম বাংলাদেশি নারী নাজমুন নাহার।

ভ্রমণ অভিজ্ঞতা এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে নাজমুন নাহার বলেন, ‘মূলত সড়ক পথেই ভ্রমণ অনেক বেশি সাশ্রয়ী এবং উপভোগ্য। সড়ক পথে ভ্রমণের ফলে গোটা স্পটের সৌন্দর্য ভালোভাবে উপভোগ করা যায়। ভ্রমণকালে বিশাল এই পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের বাচ্চাদের সঙ্গে মিশেছি, বিভিন্ন জনপদে গিয়েছি। নানা সংস্কৃতির মানুষের সঙ্গে মিশে নিজেকে সমৃদ্ধ করেছি। আমার কাছে সবচেয়ে বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতি মনে হয়েছে আফ্রিকান সংস্কৃতি। পৃথিবীর এত সৌন্দর্য দেখে আমার মন তৃপ্ত। মনে হয়েছে আমার মানবজনম স্বার্থক। আমার কাছে হয়তো অনেক টাকা-পয়সা নেই, কিন্ত ১৫০ দেশ ভ্রমণ করে সেসব দেশের আবহাওয়া, খাবার, সংস্কৃতি নিজের মধ্যে বহন করে চলেছি। ১৫০ দেশকে আমি আমার শরীরে-মনে বহন করছি। এসব দেশের স্মৃতি আমার কাছে বিশাল এক ঐশ্বর্য। আমি চোখ বন্ধ করলে পৃথিবীকে দেখি। এটা আমার কাছে মানবজীবনের বড় স্বার্থকতা।’

ভ্রমণের ক্ষেত্রে অর্থ কোনো বাধা নয় বলে মনে করেন এই ফ্লাগ গার্ল। পর্যটকদের উদ্দেশ্যে নাজমুন নাহার বলেন, ‘পৃথিবী ভ্রমণ করতে হলে প্রথমে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সংস্কৃতি, দর্শনীয় স্থান ও ম্যাপের ওপর পড়াশোনা করতে হবে। জোন করে পাঁচটা-দশটা দেশ একসঙ্গে ভ্রমণ করতে হবে। তাতে খরচ অনেক কম পড়বে। সড়কপথে ভ্রমণ করতে পারলে খরচ অনেক কমে যাবে। দশ কিলোর মধ্যেই ব্যাকপ্যাক নিতে হবে। নিজেকে শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ রাখার জন্য নিয়মিত ব্যায়াম ও মেডিটেশন করতে হবে। কম খরচে ইয়ুথ হোস্টেল কোচ সার্ফিংয়ের মাধ্যমে থাকা যায়। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের ট্যুর গাইডদের সঙ্গে কানেকশন করতে হবে। যখনই কোনো চ্যালেঞ্জ আসবে সে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার মানসিকতা থাকতে হবে। ভ্রমণে অনেক সময় স্থানীয় পরিবার কিংবা আদিবাসী পরিবারদের সঙ্গেও থাকা যায়। ওই দেশ সম্পর্কে জানতে হবে, নেটওয়ার্ক বাড়াতে হবে। পড়াশোনা বাড়াতে হবে। ম্যাপটা ভালোভাবে বুঝলে ঘুরাঘুরি সহজ হবে। একটা দেশ ফ্লাই করে ৪-৫টা ল্যান্ড লকট দেশ ভ্রমণ করে আবার ফ্লাই করতে পারে। এতে খরচও কম পড়বে। পৃথিবী ভ্রমণ করার জন্য যে কোটি কোটি টাকা দরকার তা কিন্ত নয়। আমার ২১ বছরের জার্নিতে তা ধীরে ধীরে করেছি। যখনই কিছু পয়সা জমেছে সেটা দিয়ে ভ্রমণ করেছি।’

তিনি বলেন, ‘গত ২১ বছরের এই অভিযাত্রায় ১৫০ দেশ ভ্রমণ করেছি। এতে আমার অনেক সংগ্রাম, অনেক ত্যাগ, অনেক বেদনা ছিল। বাংলাদেশ থেকে একটা নারীর বেড়ে ওঠা এবং সব মিলিয়ে ১৫০ দেশ ভ্রমণ করে আমি অনুভব করেছি ১৫০টা দেয়ালকে ভেঙেছি। আমি বিস্তর পৃথিবীকে দেখেছি দুচোখ দিয়ে। বাংলাদেশের পতাকাকে আমি সর্বোচ্চ উচ্চতায় উড্ডয়ন করেছি পৃথিবীজুড়ে। এটা আমার কাছে অত্যন্ত ভালো লাগার বিষয় যে, আমি করতে পেরেছি। অনেক কষ্ট ছিল, কিন্ত পেরেছি। অনেক জায়গায় খেতে পারিনি, অনেক জায়গায় ঘুমাতে পারিনি, গরুর কাচা মাংস খেয়ে থাকতে হয়েছে, শরীর অসুস্থ হয়ে গেছে। তারপরও বারবার যতো বাধাই এসেছে, সেসব বাধাকে মোকাবিলা করার মতো মানসিক শক্তি নিজের মধ্যে তৈরি করেছি। সেসবকে অতিক্রম করেছি আমার মনের সাহস দিয়ে।’

নাজমুন নাহার বলেন, ‘আমি ১৪,২০০ ফুট উঁচু রেইনবো পর্বত সামিটে যাওয়ার পথে শ্বাসরুদ্ধ আল্টিচুডের মাঝে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অসম্ভবকে সম্ভব করেছি লাল-সবুজ পতাকাকে সেই পর্বত সামিটে উড়িয়ে উড়িয়ে। আমি আমার ২৩ ঘণ্টার পর্বত ভ্যালিতে হাঁটার অভিযাত্রাকে সম্ভব করেছি। আমার মনের শক্তি দিয়ে আমি গিনি কোনাক্রির মধ্যরাতে জঙ্গলে আটকা পড়ে ঘুটঘুটে অন্ধকারে ভয়াবহ পথ পাড়ি দিয়েছি লাল-সবুজের পতাকা মাথায় বেঁধে। ২৬ ঘণ্টা আটকে থাকার সেই ভয়াবহ রুদ্ধশ্বাস যাত্রাপথে আমি নিজেকে শক্ত রেখেছি। আমি পশ্চিম আফ্রিকার দেশ গিনি-বিসাউ থেকে গিনি কোনাক্রি যাত্রাপথে আড়াই দিন না খেয়ে থাকার সময় ভয়াবহ সময় পার করেছি।’

‘আমি বেশির ভাগ দেশ ভ্রমণ করি সড়কপথে, কঠিন দুর্গম পথ পাড়ি দিয়েছি, বহুবার মৃত্যুমুখে পতিত হয়েছি। বহু প্রতিকূল পরিবেশের মুখোমুখি হয়েও থামিনি। সংগ্রামে ভরা ছিল আমার এই বিশ্বভ্রমণের অভিযাত্রা।’

তিনি বলেন, ‘আমি নীল নদের উৎস উগান্ডার জিনজা শহর থেকে মিশরের নীল নদের অন্ত পর্যন্ত গিয়েছি। আমি আর্জেন্টিনার মেন্দোজা শহরের উকো ভ্যালি থেকে উরুগুয়ের পূনতা ডেলএসতা পর্যন্ত বৃষ্টিঝরা পথের গভীর মমতা দেখতে দেখতে পার হয়েছি শত শত কিলোমিটার পথ। কম্বোডিয়ার সিয়াম রিপ থেকে লাওসের ফোর থাউজেন্ড আইল্যান্ডে যাওয়ার পথে প্রচণ্ড ঝড়ের মুখে পড়ে অভিযাত্রী কাফেলাদের সঙ্গে সীমান্ত শহরে ভিড়েছি ভয়ানক বিজলী চমকানো মধ্যরাতে। আমি জর্জিয়ার পথে গুলিবিদ্ধ হতে হতে বেঁচেছি পাহাড়ের বুকে বুক বিছিয়ে। আমি গুয়াতেমালা থেকে রক্তঝরা পায়ে এলসালভাদর, হন্ডুরাস, নিকারাগুয়া হয়ে কোস্টারিকা পর্যন্ত গিয়েছি লাল-সবুজের পতাকা হাতে। আমি সুয়েজ খাল থেকে অভিযাত্রা করতে করতে আটলান্টিক ও প্রশান্ত মহাসাগরের সংযুক্তিতে পানামা খাল পর্যন্ত গিয়েছি। পৃথিবীর পথে পথে আমার হাজার কষ্ট, মরুঝড়ে আটকা পড়া, ঘণ্টার পর ঘণ্টা না খেয়ে থাকা, আদিবাসীদের সঙ্গে ঘাসের মধ্যে ঘুমানো সব মিলিয়ে আমার বিশ্ব ভ্রমণ আমাকে শিখিয়েছে একজন মানবিক মানুষ হতে।’

নাজমুন নাহার বলেন, ‘১৫০ দেশ ভ্রমণের পর আমার মনে হয়েছে এই পৃথিবী আমাদের সবার ঘর। ধর্ম, বর্ণ, নির্বিশেষে আমরা সবাই একই পৃথিবীর মানুষ, একই আকাশের নীচে বসবাস করছি। আমাদের যুদ্ধ করা যাবে না, আমাদের এই গ্রহকে রক্ষা করতে হবে।’

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ

সর্বশেষ খবর