শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৩ নভেম্বর, ২০১৫ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ নভেম্বর, ২০১৫ ২৩:৪১

পৌর নির্বাচন দলীয় প্রতীকে অধ্যাদেশ জারি

দলীয় প্রতীকে দুই কোটি ব্যালট ছাপানোর প্রস্তুতি ইসির

নিজস্ব প্রতিবেদক

পৌর নির্বাচন দলীয় প্রতীকে অধ্যাদেশ জারি

এখন থেকে দলীয় প্রতীকেই হবে পৌরসভা নির্বাচন। রাজনৈতিক দলগুলোর প্রার্থীরা ভোটে দাঁড়াবেন দলীয় প্রতীকে। এ সংক্রান্ত স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন সংশোধন অধ্যাদেশ জারি করেছে সরকার। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোর নির্বাচন দলীয় ভিত্তিতে করতে গত ১২ অক্টোবর মন্ত্রিসভায় স্থানীয় সরকার আইন সংশোধনের প্রস্তাব অনুমোদন পায়। এর মধ্যে পৌরসভা নির্বাচন ঘনিয়ে আসায় অধ্যাদেশের মাধ্যমে সংশোধিত আইন কার্যকর করা হবে বলেও সিদ্ধান্ত দেয় মন্ত্রিসভা। এরই পরিপ্র্রেক্ষিতে গতকাল সন্ধ্যায় স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন সংশোধন অধ্যাদেশ জারি হলো। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, অধ্যাদেশটি হাতে পাওয়ার পর বিধিমালা প্রণয়নসহ প্রয়োজনীয় অন্য সব কাজ দ্রুত শেষ করা হবে। যাতে মধ্য নভেম্বরের মধ্যে পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা যায়। এদিকে দলীয়ভাবে স্থানীয় সরকার নির্বাচন আয়োজনের উদ্যোগ বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে পৌরসভা নির্বাচনের তিনটি পদে ব্যালট পেপার ছাপানো নিয়ে সরকারি তিনটি প্রেসের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন উপযোগী পৌরসভার ৩ হাজার ৭০০ পদে ২ কোটিরও বেশি ব্যালট পেপার ছাপাতে হবে বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এদিকে এ ক্ষেত্রে আগাম প্রস্তুতি হিসেবে অন্যান্য নির্বাচন সামগ্রী ছাপানোর বিষয়েও নির্দেশনা দিয়েছে ইসি। গতকাল ইসির সম্মেলনকক্ষে অতিরিক্ত সচিবের সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ডিসেম্বরের শেষ দিকে এ নির্বাচন করতেই ইসি এসব নির্দেশনা দিয়েছে। ইসির কর্মকর্তারা জানান, নির্বাচনের কাজে ব্যবহৃত হয় তেমন ফরম, প্যাকেট, ম্যানুয়েল, নির্দেশিকা, ব্যালট পেপার ও অন্যান্য সামগ্রী মুদ্রণ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে এ সভা হয়েছে। সভায় বিজি প্রেস, বাংলাদেশ নিরাপত্তা মুদ্রণালয়, গভর্নমেন্ট প্রিন্টিং প্রেসের প্রতিনিধি এবং মুদ্রণ ও প্রকাশনা অধিদফতর, বাংলাদেশ স্টেশনারি অফিসের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। অধ্যাদেশ হওয়ার পর সামঞ্জস্য রেখে নির্বাচন পরিচালনা বিধিমালা ও আচরণ বিধিমালা প্রেসে ছাপানোর জন্য দ্রুত ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। ইসি কর্মকর্তারা জানান, দলভিত্তিক নির্বাচনের উদ্যোগ চলায় এখনো ব্যালট পেপার ছাপানো হয়নি। সাধারণত নির্দলীয় নির্বাচনের সময় তফসিলের আগেই স্থানীয় সরকারের ব্যালট পেপার মুদ্রণ সেরে ফেলা হয়। ডিসেম্বরে ভোট অনুষ্ঠানকে সামনে রেখে কী পরিমাণ ব্যালট পেপার লাগবে, কত সময়ে ছাপাতে হবে, ওই সময়ে সব ব্যালট পেপার ছাপানো সম্ভব কিনা, তা যাচাই শুরু হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ইসি কর্মকর্তা জানান, দলীয় ভিত্তিতে নির্বাচন হলেও মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের পর নির্ধারিত সময়ে কয়েক কোটি ব্যালট পেপার ছাপাতে একটু কঠিন হবে, তবে অসম্ভব নয়। এখন প্রেসগুলো আমাদের চাহিদা পর্যালোচনা করে কয়েক দিনের মধ্যে অবস্থান জানাবে।

কম বয়সীরা পাবে স্মার্টকার্ড দ্বিতীয় প্রকল্প হাতে নিচ্ছে ইসি : ভোটারযোগ্য নাগরিকদের হাতে স্মার্টকার্ড দিতে না পারলেও কম বয়সীদের স্মার্টকার্ড দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন। এ বছর হালনাগাদে ১৫ থেকে ১৭ বছর বয়সীদের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে, যারা ২০১৮ সালের মধ্যে তালিকাভুক্ত হবে। এ জন্য দ্বিতীয় একটি প্রকল্প হাতে নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। গত রবিবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ এ বিষয়ে বলেছেন, আঠারোর কম বয়সীদেরও স্মার্টকার্ড দেওয়ার জন্য নতুন প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে তাদের স্মার্টকার্ড বিতরণ করা হবে। ১৮ বছরের কম বয়সীদের স্মার্টকার্ড দিতে দ্বিতীয় প্রকল্পের জন্য ১ জুন বিশ্বব্যাংকের কাছে প্রায় ২৫ কোটি ডলার আর্থিক সহায়তার একটি প্রস্তাব পাঠায় ইসি। ১৬ কোটির বেশি জনসংখ্যার বাংলাদেশে বর্তমানে ভোটার তালিকায় রয়েছে ৯ কোটি ৬২ লাখ নাম।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর