Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৮ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ মার্চ, ২০১৯ ২৩:১৮

খাদ্যমন্ত্রীর জামাতার রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে তোলপাড়

নিজস্ব প্রতিবেদক

খাদ্যমন্ত্রীর জামাতার রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে তোলপাড়

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের মেয়ের জামাই ডা. রাজন কর্মকারের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ওরাল অ্যান্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক। শনিবার রাত ৩টার দিকে রাজধানীর ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের একটি বাসা থেকে উদ্ধার করে রাজনকে স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। গতকাল ভোরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ খবরে সকাল থেকেই স্কয়ার হাসপাতালে ভিড় করতে থাকেন তার সহকর্মী ও স্বজনরা। এক পর্যায়ে তাদের সঙ্গে মন্ত্রীর পরিবারের সদস্যদের বাকবিত-াও হয়। চিকিৎসকরা প্রাথমিকভাবে জানান, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ডা. রাজনের। অথচ তার স্বজন ও সহকর্মীদের অভিযোগ, তার মৃত্যু স্বাভাবিক নয়। তবে পুলিশ বলছে, মৃতের স্বজনদের অভিযোগে তদন্ত করছেন তারা। জানা যায়, ডা. রাজন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ডেন্টাল ইউনিটের অষ্টম ব্যাচের (৩৯তম এমবিবিএস) শিক্ষার্থী ছিলেন। একই সঙ্গে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের বড় মেয়ে ডা. কৃষ্ণা কাবেরীর স্বামী। ডা. কৃষ্ণাও বিএসএমএমইউর সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক। রাজন নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের এখলাসপুর গ্রামের সুনীল কর্মকারের ছেলে। গতকাল দুপুরে স্কয়ার হাসপাতালে রাজনের মামা সুজন কর্মকার সাংবাদিকদের জানান, গ্রিন লাইফ হাসপাতালে প্রাইভেট প্র্যাকটিস শেষে রাত ১২টায় বাসায় ফেরেন রাজন। রাত আড়াইটার দিকে রাজনের স্ত্রী কৃষ্ণা তার শ্বাশুড়িকে ফোন দিয়ে জানায়- রাজন মারা গেছে। এ সময় কৃষ্ণাও অস্বাভাবিক কিছু কথাবার্তা বলে। বলছিল- আপনার ছেলে মারা গেছে। উল্টাপাল্টা কিছু করলে সেও আত্মহত্যা করবে। রাজনকে হত্যা করা হয়েছে এমন অভিযোগে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করেন তিনি। রাজনের সহকর্মীরা জানান, তার মৃত্যু কোনোভাবেই স্বাভাবিক নয়। তার শরীরের মধ্যে আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে। বছরখানেক আগে কৃষ্ণার হামলায় মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে রাজন মাসখানেক ঢাকার পপুলার হাসপাতাল, সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং সর্বশেষ বিএসএমএমইউর আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। রাজনের মৃত্যুতে লাশ ময়নাতদন্ত এবং মামলা করা হবে বলেও জানান তারা। বাংলাদেশ ডেন্টাল সোসাইটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেন্টাল সার্জন ডা. আসাদুজ্জামান সারওয়ার বলেন, রাজন-কৃষ্ণার দাম্পত্য কলহের বিষয়টি অনেকেই জানত। রাজনের মৃত্যুতে আমরা ভালো একজন ডেন্টাল চিকিৎসককে হারালাম। এ ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধীকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি।  স্কয়ার হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. আসাদুজ্জামান জানান, রাত পৌনে ৪টার দিকে রাজনকে আমাদের এখানে নিয়ে আসেন পরিবারের সদস্যরা। এরপর আমরা তাকে মৃত ঘোষণা করি। এখানে নিয়ে আসার পর আমরা তার লাইফের কোনো সাইন পাইনি। ইসিজি করা হয়, সেটি স্ট্রেট লাইন ছিল। তার বডিতে কোনো ইনজুরি ছিল না। তার হার্ট ব্লক হয়ে মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে শেরেবাংলা নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জানে আলম মুন্সী বলেন, রাজনের মামা সুজন কর্মকার থানায় একটি অভিযোগ করেছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে লাশ ময়নাতদন্তের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।


আপনার মন্তব্য