শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ জানুয়ারি, ২০২০ ২৩:৫০

মোবাইলে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

ছাত্রলীগকে সুন্দর আচরণে মানুষের মন জয় করতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক

ছাত্রলীগের সব নেতা-কর্মীকে মানুষের মন জয় করার তাগিদ দিয়েছেন সাংগঠনিক নেত্রী আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন- জাতির পিতা বলেছেন, ‘ছাত্রলীগের ইতিহাস, বাংলাদেশের ইতিহাস’। বাংলাদেশের প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ছাত্রলীগের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা আছে। প্রত্যেক নেতা-কর্মীকে ভালোভাবে পড়ালেখা করতে হবে। সুন্দর আচরণের মধ্য দিয়ে মানুষের মন জয় করতে হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নীতি ও আদর্শ বুকে ধারণ করে চলতে হবে।

গতকাল বিকালে ছাত্রলীগের এক অনুষ্ঠানে মোবাইল ফোনে তিনি এ নির্দেশনা দেন। ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ‘লিডারশিপ ওরিয়েন্টেশন’ প্রোগ্রামের আয়োজন করে ছাত্রলীগ। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রহমানের মোবাইল ফোনে কল দিয়ে ৫ মিনিট দিকনির্দেশনামূলক বক্তৃতা করেন শেখ হাসিনা। ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বাংলাদেশ প্রতিদিনকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।  আল নাহিয়ান খান জয় জানান, ছাত্রলীগের লিডারশিপ ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম ছিল গতকাল। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় আমরা এই প্রোগ্রামটি হাতে নিয়েছি। বিকাল ৫টায় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান প্রধানমন্ত্রীর মোবাইল ফোনে ফোন করেন। প্রধানমন্ত্রী ফোন রিসিভ করে আমাদের এ প্রোগ্রামের উদ্বোধন করেন। আমরা তাঁকে সালাম দিই। তিনি সালামের জবাব দেন। এরপর লাউড স্পিকারে তিনি আমাদের বিভিন্ন সাংগঠনিক নির্দেশনা দেন। এ সময় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা নেত্রীর বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়ে সেøাগান দেন। ‘লিডারশিপ ওরিয়েন্টেশন’-এর এ কার্যক্রমের ব্যাকরণ বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ এবং ‘কারাগারের রোজনামচা’। পারস্পরিক সংলাপের মাধ্যমে এ কার্যক্রমকে এগিয়ে নিতেই ক্লাস কার্যক্রম শুরু হয়।

ছাত্রলীগের সভাপতি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের উদ্দেশে বলেছেন, ছাত্রলীগকে সঠিক পথে চলতে হবে। নিয়মিত লেখাপড়া করতে হবে। সুন্দর আচরণ করতে হবে। ভালোবাসা দিয়ে মানুষের মন জয় করতে হবে। ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা কোনোভাবেই যেন কোনো অপকর্মের সঙ্গে সম্পৃক্ত না হয়। ছাত্রলীগকে সুশিক্ষা ও মেধার আলোয় আলোকিত হতে হবে। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, জাতির পিতা ছাত্রলীগকে যে উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য নিয়ে প্রতিষ্ঠা করেছেন, তা যেন কোনোভাবেই ব্যাহত না হয়, সেদিকে সবাইকে সব খেয়াল রাখতে হবে। এ সময় তিনি ছাত্রলীগ নেতাদের বঙ্গবন্ধুর লেখা ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ ও ‘কারাগারের রোজনামচা’ বইটি পড়ার পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে যত বই বের হবে সবগুলো ভালোভাবে পড়ার পরামর্শ দেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রহমান বলেন, আমি মনে করি দেশের মানুষ এই উন্নয়নের যে চিত্র এবং উন্নয়নের যে সুফল তারা ভোগ করছে, সেই কারণে আওয়ামী লীগে বঙ্গবন্ধুকন্যার মনোনীত প্রার্থীকেই তারা ভোট দেবেন, নৌকা মার্কাকেই বিজয়ী করবেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়। উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন ছাত্রলীগের প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক হায়দার মোহাম্মদ জিতু, শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মাসুদ লিমন। সহযোগিতায় ছিলেন উপ-প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক মেশকাত হোসেন, সোহাগ হোসেন, উপ-শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক নেয়ামত উল্লাহ তপন, আনোয়ার হোসেন জীবন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর