শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৯ মে, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৮ মে, ২০২০ ২৩:৫৩

করোনার চিকিৎসা নিতে গিয়ে আগুনে মৃত্যু ৫ রোগীর

ইউনাইটেড হাসপাতালের আট অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র ছিল মেয়াদোত্তীর্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনার চিকিৎসা নিতে গিয়ে আগুনে মৃত্যু ৫ রোগীর
আগুনে পুড়ে ছাই ইউনাইটেড হাসপাতালের করোনা ইউনিট

মেয়াদোত্তীর্ণ অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র দিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করেছিল ইউনাইটেড হাসপাতালের সংশ্লিষ্টরা। কিন্তু তাতে শেষ রক্ষা হয়নি। আগুন ক্রমে বাড়তে থাকে। করোনা ইউনিটে রাখা স্যানিটাইজারে আগুন ছড়িয়ে পড়লে আগুনের তীব্রতা বাড়তে থাকে। অস্থায়ী করোনা ইউনিটে আটকে পড়া পাঁচজন রোগী দম বন্ধ হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের তদন্তে এমন তথ্য উঠে এসেছে। ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে, মেয়াদোত্তীর্ণ অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র দিয়ে আগুন নেভানো যায় না। এগুলো কাজ করে না। এর দায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের। দেড় মাস আগেই ফায়ার এক্সটিংগুইশারগুলো রিফিল করা উচিত ছিল। বুধবার রাত ৯টা ৫৫ মিনিটে ইউনাইটেড হাসপাতালের বর্ধিত অংশে আগুন লাগার খবর পায় ফায়ার সার্ভিস। তাদের তিনটি ইউনিট কাজ করে রাত সাড়ে ১০টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আগুনে পাঁচজন রোগী মারা যান, যারা হাসপাতালের করোনা ইউনিটে আইসোলেশনে ছিলেন। পাঁচজনের মধ্যে চারজন পুরুষ ও একজন নারী। এদের তিনজনই ৭০ বছরের বেশি। আর একজন ছিলেন যিনি বুধবার বিকালে ভর্তি হয়ে টেস্ট করান। অপেক্ষায় ছিলেন টেস্টের ফলের জন্য। কিন্তু রাতের আগুনে তিনি লাশ হন। অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ফায়ার সার্ভিস তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। পুলিশ ও সিআইডি ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

অগ্নিকান্ডের তদন্তে গঠিত কমিটির প্রধান দেবাশীষ বর্ধন ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে গতকাল সাংবাদিকদের বলেন, ইউনাইটেড হাসপাতালে ফায়ার হাইড্রেন্ট থাকলেও তা ফায়ার সার্ভিস আসার আগে ব্যবহার করা হয়নি। তিনি বলেন, আগুন আরও আগে লাগলেও আমরা কন্ট্রোল রুমে তথ্য পেয়েছি ৯টা ৫৫ মিনিটে। আমাদের লোকজন আপ্রাণ চেষ্টা করেছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, তারা ফায়ার এক্সটিংগুইশার বা অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র দিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করেছিল। কিন্তু সেগুলো মেয়াদোত্তীর্ণ ছিল। মেয়াদোত্তীর্ণ ফায়ার এক্সটিংগুইশার তো কাজ করবে না। কাজ করেও নাই। আমাদের ইউনিটগুলো আসার পর দেখেছে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছে। অগ্নিনির্বাপণ করার পর আমরা পাঁচটি লাশ উদ্ধার করেছি।’ মেয়াদোত্তীর্ণ ফায়ার এক্সটিংগুইশার রাখার জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে কিনা, জানতে চাইলে দেবাশীষ বর্ধন বলেন, ‘অবশ্যই। আমরা তদন্ত রিপোর্ট দাখিল করব। মেয়াদোত্তীর্ণ ফায়ার এক্সটিংগুইশার রাখার দায় হাসপাতালের। দেড় মাস আগেই রিফিল করা উচিত ছিল। হাসপাতালে ফায়ার হাইড্রেন্ট ছিল। কিন্তু আমরা আসার আগে কেউ কাজ করেনি। আমরা আসার পর একটা লাইন খোলা হয়।’ আগুন লাগার কারণ তদন্ত করতে গিয়ে বৈদ্যুতিক তার, বিভিন্ন ডিভাইস, এসির ভিতরে থাকা দাহ্য পদার্থ ইত্যাদি বিষয়গুলো বিবেচনায় রেখে কাজ করা হচ্ছে বলে জানান দেবাশীষ বর্ধন। তার ভাষ্য ‘ভিতরে এসি ছিল, অনেক ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইস ছিল, এসিগুলো নেগেটিভ প্রেসারে ছিল। আমরা সব খতিয়ে দেখছি।’ সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী নামমাত্র ইউনিট খুলে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল কিনা, জানতে চাইলে ফায়ার সার্ভিস ঢাকা বিভাগের এই উপপরিচালক বলেন, ‘অবকাঠামো দেখে তাই মনে হচ্ছে। এ ধরনের রোগীর ব্যাপারে অত্যন্ত গুরুত্ব দেওয়া দরকার ছিল। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী, হাসপাতালগুলো আইসোলেশন সেন্টার করলেই হবে না,  ফায়ার প্রটেকটিভ মেজারটাও রাখতে হবে। সার্বক্ষণিক একটি টিম অবশ্যই রাখা উচিত ছিল।’

অত্যন্ত বিপজ্জনক অবস্থায় আইসোলেশন সেন্টারে রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল বলে মন্তব্য করেন তিনি। এদিকে ইউনাইটেড হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য স্থাপিত তাঁবুতে দাহ্য পদার্থের পরিমাণ বেশি থাকায় আগুন বড় আকার ধারণ করে বলে জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গুলশান জোনের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী। ঘটনাস্থলে ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান তিনি। সুদীপ কুমার বলেন, মৃতদের মধ্যে তিনজন করোনা আক্রান্ত ছিলেন এবং দুজন করোনা নেগেটিভ ছিলেন। এদের মধ্যে চারজন পুরুষ এবং একজন নারী। তিনজনের বয়স ৭০ বছরের বেশি, নারীর বয়স ৪৫ এবং একজনের বয়স ৫০ বছর। তিনি বলেন, ইউনাইটেড হাসপাতালে স্থাপিত তাঁবুর ভিতরে যেসব সামগ্রী ছিল এগুলো বেশি দাহ্য, যার কারণে খুব দ্রুত আগুন লেগে যায়। এখানে যারা প্রত্যক্ষদর্শী এবং রোগীর আত্মীয় ছিলেন তাদের সঙ্গে কথা বলে আমরা জানতে পারি, এখানে যে এসি ছিল সেখানে স্পার্কিং হয়। সেটা থেকেই এখানে খুব দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এখানে থাকা উপাদান সবই দাহ্য পদার্থ ছিল। এখানে অনেক স্যানিটাইজার ছিল যা অনেক বেশি দাহ্য, এর পরিপ্রেক্ষিতে আগুন বড় রূপ নেয়। দাহ্য পদার্থের কারণে ফায়ার সার্ভিস আসার আগ পর্যন্ত আগুন নেভানো সম্ভব হয়নি। আগুন লাগার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ফায়ার সার্ভিসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট বা অন্য কোনো উৎস থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান তারা। ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক (ঢাকা বিভাগ) দেবাশীষ বর্ধন বলেন, ইউনাইটেড হাসপাতালের এক্সটেনশন সেটে (যেখানে করোনা রোগীদের চিকিৎসা হচ্ছিল) অনেক  বৈদ্যুতিক তার ছিল। যেগুলো থেকে প্রচ- ধোঁয়া সৃষ্টি হয়েছে। ধোঁয়ায় দম বন্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন পাঁচজন মারা গেছেন। এর বাইরে হতাহতের কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

মামলা : রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে অগ্নিকা-ে পাঁচ রোগী নিহতের ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। বুধবার (২৭ মে) রাতেই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অভিযোগের ভিত্তিতে গুলশান থানায় মামলাটি গ্রহণ করা হয়।

বুধবারে ভর্তি হয়েই আগুনে মৃত্যু

জ্বর নিয়েই গুলশানের একটি বায়িং হাউসে অফিস করছিলেন রিয়াজুল আলম লিটন। করোনা সন্দেহে সহকর্মীরা পরীক্ষার জন্য নিয়ে যান পাশের ইউনাইটেড হাসপাতালে। করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা নিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি রাখেন লিটনকে। অপেক্ষা করছিলেন পরীক্ষার ফলের জন্য। পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছিল ঠিকই, কিন্তু হাসপাতাল থেকে আর ফেরা হলো না।

আগুনে পুড়ে নির্মম মৃত্যু হলো তার।

বুধবার (২৭ মে) রাতে ইউনাইটেড হাসপাতালে অগ্নিকা-ে মারা যান লিটন। বৃহস্পতিবার (২৮ মে) ভোরে স্বজনরা তার লাশ গ্রামের বাড়ি দিনাজপুরের বীরগঞ্জ নিয়ে যান। নিহত রিয়াজুল আলম লিটনের বড় ভাই রইসুল আজম ডাবলু জানান, তার ভাই স্ত্রী ফৌজিয়া আক্তার জেমি ও সাত বছরের একমাত্র সন্তান আসমাইন ফিয়াজকে নিয়ে শ্যামলী এলাকায় থাকতেন। বিদেশি একটি বায়িং হাউসের কান্ট্রি ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করতেন লিটন। বুধবার অফিসে যাওয়ার পর শরীরে তাপমাত্রা একটু বেশি হওয়ায় করোনা পরীক্ষা করতে তিনি হাসপাতালে যান। বিকাল ৩টার দিকে তার শরীর থেকে নমুনা নিয়ে তাকে আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। রইসুল আজম ডাবলু বলেন, ‘আমরা অপেক্ষা করছিলাম করোনা পরীক্ষার ফলাফলের জন্য। ফলাফল ঠিকই নেগেটিভ এলো। কিন্তু ভাই আমার বাঁচল না। তাকে আগুনে পুড়ে মরতে হলো। তার এই অকাল মৃত্যুতে পুরো পরিবারে শোক নেমে এসেছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর