শিরোনাম
৩১ মার্চ, ২০২৪ ০৯:৪৭

ইটিটি : হার্টের যোগ্যতার মাপকাঠি

ডা. এম শমশের আলী

ইটিটি : হার্টের যোগ্যতার মাপকাঠি

প্রতীকী ছবি

ইটিটি (এক্সারসাইজ টলারেন্স টেস্ট) হার্টের যোগ্যতার পরিমাপক এবং একই সঙ্গে ব্যক্তির শারীরিক সক্ষমতারও পরিমাপক।

শারীরিক যোগ্যতা মানুষের মাংসপেশি, হার্টের রক্ত সরবরাহ করার দক্ষতা স্নায়বিক সুস্থতা, অস্থিঃজয়েন্টের কার্যকারিতা, মানসিক অবস্থা ইত্যাদির সঙ্গে জড়িত তবে মাংসপেশি এবং হার্টের কার্যকারিতা সর্বাগ্রে বিবেচিত হয়। কারও বয়স ৪০ অতিক্রম করলে হার্টের কর্মদক্ষতা, শারীরিক যোগ্যতার প্রধান মাপকাঠি হিসেবে বিবেচিত হয়। 

ইটিটি কারও শারীরিক যোগ্যতা প্রমাণের জন্য বর্তমান সময়ে বহুল ব্যবহৃত একটি জনপ্রিয় পদ্ধতি। যদি কোনো ব্যক্তির বয়স, উচ্চতা, শারীরিক ওজন ইত্যাদির ওপর নির্ভর করে একটি ফর্মুলার মাধ্যমে সর্বোচ্চ কর্মদক্ষতার মান নির্ণয় করা হয়। ইটিটির ভাষায় একে গোল লক্ষ্যমাত্রা বলা হয়। ব্যক্তি যদি নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রায় বিনা অসুবিধায় পৌঁছাতে পারে। তবে ইটিটি নেগেটিভ এবং না পারলে পজিটিভ। 

ইটিটি বা টিএমটি ডাক্তারি পরীক্ষা বা ইনভেস্টিগেশন। যার মাধ্যমে রোগীদের হার্টের কর্মতৎপরতা বা যোগ্যতা পরিমাপ করার উপায়, যাকে অগ্নিপরীক্ষা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। বড় অঙ্কে বলতে গেলে ইটিটির রিপোর্ট তিন ধরনের হতে পারে। যেমন পজিটিভ, নেগিটিভ ও ইকুইভোকাল বা অনির্ধারিত। এসব পর্ব নিয়ে পরবর্তীতে আরও আলোচনা করব। 

একটি চলন্ত প্ল্যাটফরমের ওপর দাঁড়িয়ে, প্ল্যাটফরমের গতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে ব্যক্তিকে হাঁটতে হয় এর সঙ্গে ব্যক্তির শরীরের বিভিন্ন অংশে ইলেকট্রোড সংযুক্ত করে কম্পিউটারের মাধ্যমে বিরতিহীনভাবে ইসিজি রেকর্ড করা হয়ে থাকে এবং তার সঙ্গে কম্পিউটারে হাঁটার গতি, অক্সিজেন ব্যবহারের মাত্রা এবং শারীরিক বিপাকীয় কর্মকাণ্ডের মাত্রাও রেকর্ড করা হয়। সুতরাং শারীরিক ও হৃৎপিণ্ডের যোগ্যতা পরিমাপের একটি উত্তম পন্থা হিসেবে ইটিটিকে বিবেচনা করা যেতে পারে।

আমরা জানি, শারীরিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে হার্টে কর্মকাণ্ডের একটি আনুপাতিক সম্পর্ক বিদ্যমান, মানে কারও কর্মতৎপরতা বৃদ্ধি পেলে হার্টকে অধিক পরিমাণে রক্ত সঞ্চালন করে ব্যক্তির শারীরিক অক্সিজেনের চাহিদা মেটাতে হয়, তা না হলে ব্যক্তি তার দৈহিক কর্মকাণ্ড বৃদ্ধিতে অপারগ হয়ে পড়বে। সুস্থ হার্ট বয়স অনুযায়ী ব্যক্তির সর্বোচ্চ কর্মকাণ্ডের প্রয়োজনীয় রক্ত সরবরাহ করতে সামর্থ্য রাখে। 

তবে যদি কোনো কারণে হার্ট অসুস্থ হয়ে পড়ে, তবে পরিশ্রমকালীন শারীরিক চাহিদা মোতাবেক রক্ত পাম্প করে রক্তনালিতে রক্ত সরবরাহ করতে ব্যর্থ হয়। সুতরাং ব্যক্তি তার সর্বোচ্চ কর্মদক্ষতা সম্পাদনে অসমর্থ্য হয়ে পড়ে, সাধারণভাবে যাকে শারীরিক দুর্বলতা হিসাবে বিবেচনা করা হয়। বহুবিধ কারণে হার্ট তার কর্মসম্পাদনে ব্যর্থ হতে পারে যেমন- হৃৎপিণ্ডের রক্তনালিতে ব্লক বা রক্ত সরবরাহের ঘাটতি, হৃৎপিণ্ডের মাংসপেশি হার্ট অ্যাটাকের ফলে নষ্ট হয়ে যাওয়া, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিকস, কার্ডিওমাইওপ্যাথি, ভাল্বের সমস্যা ইত্যাদি বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। 

সাধারণভাবে খুব বেশি অসুস্থ ব্যক্তি, হাঁটতে অপরাগতা, অনিয়ন্ত্রিত উচ্চ রক্তচাপ, হার্ট অ্যাটাকে পরবর্তী এক বা দুই সপ্তাহ সময়ে, অন্য সব জটিল অসুস্থতায় ভুগছেন এমন ব্যক্তিদের ইটিটি করা যাবে না। জ্বর, সর্দি, কাশি, অ্যাজমা, ডায়েরিয়া, অত্যাধিক বাতব্যথায় আক্রান্ত ব্যক্তিগণও এ অবস্থায় ইটিটি করতে পারবেন না। তবে এসব অসুস্থতা থেকে আরোগ্য হওয়ার পর ইটিটি করা যাবে। ইটিটি করার আগে প্রতি ক্ষেত্রেই ইকোকার্ডিওগ্রাম করে হার্টের অবস্থা যাচাই করে নেওয়ার প্রয়োজন হয়। 

ইটিটি করার সময় প্রাথমিক অবস্থায় ধীরে ধীরে পর্যায়ক্রমিকভাবে হাঁটার গতি ও হাঁটার প্রতিরোধক বৃদ্ধি করা হয়ে থাকে। তার মানে আপনাকে পর্যায়ক্রমে আরও দ্রুতগতিতে হাঁটতে হবে। ব্যক্তিকে ইটিটি প্ল্যাটফরমে গতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে হাঁটতে হয়। সাধারণভাবে দুই তিনটি পূর্ব নির্ধারিত প্রটোকল দ্বারাই আমাদের দেশের প্রায় সব চিকিৎসকই ইটিটি করে থাকেন। বুকেব্যথা অথবা শ্বাসকষ্ট অথবা বুক ধড়ফড় করছে কিন্তু ইসিজি, এক্স-রে, ইকোকার্ডিওগ্রাম করে সব রিপোর্ট স্বাভাবিক পাওয়া গেলে এ অবস্থায় আপনার ইটিটি করার প্রয়োজন হতে পারে, তাতে আপনার রোগ নির্ণয়ে আরও নিশ্চিত হওয়া যাবে এবং অনেক ক্ষেত্রে অহেতুক দুশ্চিন্তা থেকে মুক্ত হওয়া যাবে। 

মানে ইটিটি নেগেটিভ হলে আপনার ইসকেমিক হার্ট ডিজিজ হওয়ার আশঙ্কা খুবই ক্ষীণ। চিকিৎসকগণ রোগ নির্ণয়ে, রোগের পর্যায় নির্ধারণ করতে, চিকিৎসার পদ্ধতি নিরূপণে, কায়িকশ্রমের নির্দেশনায়, চিকিৎসা-পরবর্তী রোগীর উন্নতি-অবনতি পর্যবেক্ষণে, ওষুধের মাত্রা নির্ধারণে ইটিটি করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। অনেকে কায়িকশ্রম বা সাবলীল চলাফেরায় ভয় পান, তাদের ক্ষেত্রে কায়িকশ্রমে অনুপ্রেরণা হিসেবেও ইটিটিকে বিবেচনায় আনা হয়। 

ইটিটি নেগেটিভ হলে এনজিওগ্রাম (সিএজি) করা প্রয়োজন হয় না বললেই চলে। ইটিটিতে কখনো কখনো ঝুঁকিতে পড়তে পারেন, এ জন্য হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অথবা মেডিসিন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ মোতাবেক ইটিটি করতে হবে। ইটিটি সম্পাদনের সময় চিকিৎসক বিশেষভাবে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অবশ্যই সার্বক্ষণিক তত্ত্বাবধানে নিয়োজিত থাকেন। সুতরাং সঠিকভাবে নির্বাচিত ব্যক্তির সার্বক্ষণিক চিকিৎসকের তত্ত্বাবধান ঝুঁকির মাত্রা নগণ্য পর্যায়ে রাখতে পারে।

লেখক: চিফ কনসালটেন্ট শমশের হার্ট কেয়ার, শ্যামলী, ঢাকা।

বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ

এই রকম আরও টপিক

সর্বশেষ খবর