শিরোনাম
প্রকাশ : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১১:১৫

সৌদি তেল শোধনাগারে ড্রোন হামলা: এবার টনক নড়েছে আরব লিগের

অনলাইন ডেস্ক

সৌদি তেল শোধনাগারে ড্রোন হামলা: এবার টনক নড়েছে আরব লিগের

সৌদি আরব ও তার মিত্ররা দীর্ঘ ৫ বছর ধরে ইয়েমেনের জনগণের ওপর ভয়াবহ হামলা চালালেও এতদিন মুখ খোলেনি আরব লিগ।

তবে এখন ইয়েমেন যখন সৌদি আরবের অভ্যন্তরে প্রতিশোধমূলক হামলা চালানো শুরু করেছে তখন টনক নড়ে উঠেছে আরব দেশগুলো সংগঠন আরব লিগের।

সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় তেল কোম্পানি আরামকো’র দুটি শোধনাগারে ইয়েমেনিদের ড্রোন হামলার প্রতিক্রিয়ায় আরব লীগ বলেছে, এ ধরনের হামলা আরব দেশগুলোর জাতীয় নিরাপত্তাকে হুমকিগ্রস্ত করছে। 

আরব লীগের সচিবালয় থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতির বরাত দিয়ে মিসরের সংবাদ সংস্থা মিসরি আল-ইয়ায়োম এ খবর জানিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সৌদি তেল স্থাপনায় ইয়েমেনের প্রতিশোধমূলক হামলা চলমান উত্তেজনাকে ‘বিপজ্জনক মাত্রায়’ বাড়িয়ে দিয়েছে।

আরব লীগের বিবৃতিতে ইয়েমেনের আনসারুল্লাহ আন্দোলনকে ‘সন্ত্রাসী’ আখ্যায়িত করে দাবি করা হয়েছে, আনসারুল্লাহ যোদ্ধাদের সঙ্গে ইয়েমেনের জনগণের কোনো সম্পর্ক নেই। বিবৃতিতে ইরানের বিরুদ্ধেও অভিযোগ উত্থাপন করে দাবি করা হয়েছে, আরব দেশগুলোর অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করছে তেহরান।

সৌদি আরব ২০১৫ সালের মার্চ মাস থেকে ইয়েমেনে ভয়াবহ আগ্রাসন শুরু করার পর থেকে গত প্রায় পাঁচ বছরে আরব লীগ ওই আগ্রাসনের নিন্দা জানানো দূরের কথা, উল্টো সৌদি আরবের সমর্থনে বহুবার বক্তব্য দিয়েছে সংস্থাটি। ইয়েমেনে সৌদি আরব ও তার মিত্রদের হামলায় এ পর্যন্ত অন্তত ১০ হাজার বেসামরিক মানুষ নিহত হয়েছে।

গত শনিবার সকালে ইয়েমেনের সেনাবাহিনী ও গণকমিটি ঘোষণা করে তারা তাদের দেশের ওপর গত প্রায় পাঁচ বছরের সৌদি আগ্রাসনের জবাবে দেশটির দু’টি তেল স্থাপনায় হামলা চালিয়েছে। তাদের ঘোষণায় বলা হয়, সৌদি আরবের জাতীয় তেল কোম্পানি আরামকো পরিচালিত ‘বাকিক’ ও ‘খারিস’ তেল শোধনাগারে ১০টি পাইলটবিহীন বিমান বা ড্রোনের সাহায্যে এ হামলা চালানো হয়েছে।

ওই হামলার পর ইয়েমেনের সশস্ত্র বাহিনীর মুখপাত্র ইয়াহিয়া সারি’ এক বিবৃতিতে বলেন, ইয়েমেনের ওপর পাঁচ বছরের আগ্রাসন ও অবরোধের যে জবাব দেয়া হয়েছে তা সম্পূর্ণ বৈধ ও স্বাভাবিক।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর