শিরোনাম
প্রকাশ : ৯ মে, ২০২১ ১০:০১
আপডেট : ৯ মে, ২০২১ ১০:০২
প্রিন্ট করুন printer

তৃণমূল নেতার ‘কানের মাংস কামড়ে তুলে নিল’ বিজেপির কর্মী

অনলাইন ডেস্ক

তৃণমূল নেতার ‘কানের মাংস কামড়ে তুলে নিল’ বিজেপির কর্মী
পশ্চিমবঙ্গজুড়ে ভোট-পরবর্তী হিংসা অব্যাহতই আছে
Google News

ভোট মিটলেও কিছুতেই মিটছে না রাজনৈতিক সহিংসতা। পশ্চিমবঙ্গজুড়ে ভোট-পরবর্তী হিংসা অব্যাহতই আছে। এবারে তৃণমূল নেতার কান কামড়ে মাংস খুবলে নেওয়ার অভিযোগ উঠল বিজেপি কর্মীর বিরুদ্ধে। ঘটনাটি দক্ষিণ ২৪ পরগনার গঙ্গাসাগরের মন্দিরতলা বাজারের। বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতী‌র বিরুদ্ধে তৃণমূল নেতার ওপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা চালানোরও অভিযোগ উঠেছে। নাগাল না পেয়ে কামড়ে তার কানের মাংস তুলে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ওই বিজেপি কর্মীর বিরুদ্ধে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মন্দিরতলা বাজারের বিজেপির পার্টি অফিসের পাশের একটি চায়ের দোকানে চা খেতে গিয়েছিলেন মনোরঞ্জন দাস নামে স্থানীয় এক তৃণমূল নেতা। সেই সময় ওই চায়ের দোকানে খালেক শা নামের এক বিজেপি কর্মীও বসেছিল। ওই বিজেপি কর্মীর সঙ্গে বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন মনোরঞ্জন। এরপরেই ওই বিজেপি কর্মীর সেখান থেকে উঠে যান। কিছুক্ষণের মধ্যেই পাশের পার্টি অফিসের ভেতর থেকে একটি ধারালো অস্ত্র নিয়ে আসে। অভিযোগ উঠে, ওই ধারালো অস্ত্র দিয়ে মনোরঞ্জনের ওপর অতর্কিতে হামলা চালান খালেক। ঘটনার সময় মনোরঞ্জনর পাশে গোপাল দাস নামের আরও একজন তৃণমূল কর্মী বসে ছিলেন। খালেককে নিরস্ত্র করতে তিনি ওই আততায়ীর কাছ থেকেই অস্ত্রটি ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। এরপর মনোরঞ্জনকে ছেড়ে ওই ব্যক্তির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে খালেক। তাকেও ধারালো অস্ত্র দিয়ে আক্রমণ করে অভিযুক্ত ওই বিজেপি কর্মী বলে অভিযোগ। ঘটনায় গুরুতর জখম হন তিনিও।

ঘটনার খবর জানাজানি হতেই সেখানে উপস্থিত হন তৃণমূল কর্মীরা। তারাই এই ব্যক্তির কাছ থেকে ধারালো অস্ত্রটি ছিনিয়ে নেয়। এখানেই শান্ত হননি ক্ষিপ্ত খালেক। অভিযোগ ওঠে, হাত ছাড়িয়ে মনোরঞ্জনের ওপর আবার আক্রমণ করেন তিনি। এবারে সটান তার কান কামড়ে মাংস তুলে নেন ওই ব্যক্তি। রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন মনোরঞ্জন। তাকে উদ্ধার করতে এসে ওই ব্যক্তির হাতে জখম হন আরও কয়েকজন তৃণমূল কর্মী।

এই ঘটনার পর ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে সাগর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে তৃণমূল নেতৃত্ব। এ ঘটনা ঘিরে গোটা এলাকায় চাপা উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে সেজন্য ওই এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে স্থানীয় বিজেপির নেতৃত্ব। স্থানীয় এক বিজেপি নেতা এই প্রসঙ্গে বলেন, ‘‌ এই ঘটনার সঙ্গে বিজেপি কোনওভাবেই জড়িত নয়।’‌

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ 

 

 


 

এই বিভাগের আরও খবর