শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৫ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ জানুয়ারি, ২০২০ ০১:৫২

অষ্টম কলাম

ধর্ষণে ক্রসফায়ার ও মৃত্যুদণ্ড চান এমপিরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

ধর্ষণে ক্রসফায়ার ও মৃত্যুদণ্ড চান এমপিরা

দেশে শিশু, নারী, প্রতিবন্ধীদের ধর্ষণ বন্ধ করতে ধর্ষকদের ক্রসফায়ারে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন সরকারি ও বিরোধী দলীয় এমপিরা। জাতীয় সংসদে এ বিষয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে তারা বলেন, এই পৃথিবীতে তাদের (ধর্ষকদের)  বেঁচে থাকার কোনো অধিকার নেই। ক্রসফায়ারে আইন কোনো প্রতিবন্ধক নয়। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে চলতি সংসদের গতকালের বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনার সূত্রপাত করেন বিরোধীদলীয় সংসদ সদস্য মুজিবুল হক চুন্নু। পরে এ বিষয়ে আরও বক্তব্য রাখেন সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমদ, কাজী ফিরোজ রশীদ ও তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী। এর আগেও একাধিক বার সংসদ থেকে এই দাবি জানানো হয়। তোফায়েল আহমেদ বলেন, ভারতে বাসে এক নারীকে ধর্ষণ করা হয়। পরে সেখানে ধর্ষকসহ ৫ জনকে  গ্রেফতার করে ক্রসফায়ারে মেরে ফেলা হয়। এতে ভারতে ধর্ষণের ঘটনা কমে যায়। কাজেই আমি অন্য দুই সদস্যের সঙ্গে একমত। আমি যদি চিনি যে ওনি ধর্ষক, সে এ কাজ করেছে তার আর এই পৃথিবীতে থাকার অধিকার নেই। জাতীয় পার্টির এমপি কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, টাঙ্গাইলে বাসে ধর্ষণের পর পর পুলিশ ৫ জনকে গ্রেফতার করল। সেদিন যদি পুলিশ ৫ জনকে মধুপুরে নিয়ে গুলি করে মারত, তাহলে কিন্তু আর ধর্ষণের ঘটনা ঘটত না। এ সময় আইনে নেই বলে পাস থেকে সরকারি দলের সদস্যদের মন্তব্যে ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি বলেন, এ পর্যন্ত ২৮৪ জনকে গুলি করে মারা হয়েছে। এরা মাদকের আসামি। পরশুদিনও একজনকে মারা হয়েছে। কোন আইনে মারা হয়েছে? সমাজকে ধর্ষণমুক্ত করতে হলে এনকাউন্টার মাস্ট। মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, এখন ধর্ষণ করলে সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদন্ড। আমার মনে হয় যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়ে এই ধর্ষণ কন্ট্রোল করা যাচ্ছে না। সময় এসেছে ধর্ষণে দায়ী ব্যক্তিদের?মৃত্যুদন্ডের ব্যবস্থা করা  হোক।


আপনার মন্তব্য