Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২৩ আগস্ট, ২০১৯ ১২:২৬

আর খাতা দেখতে পারবেন না রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের ২০০ পরীক্ষক

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী

আর খাতা দেখতে পারবেন না রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের ২০০ পরীক্ষক

রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের ২০০ পরীক্ষকের বিরুদ্ধে পরীক্ষার খাতা মূল্যায়নের যোগে ভুল করার অভিযোগ উঠেছে। এসব পরীক্ষককে আগামী এইচএসসি পরীক্ষার খাতা দেখতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক আনারুল হক প্রামাণিক।

জানা গেছে, রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের অধীনে চলতি ২০১৯ সালের এইচএসসি পরীক্ষা খাতা মূল্যায়নের পর নম্বর গণনায় ভুল করেন ২০০ শিক্ষক। এসব পরীক্ষকের খাতার নম্বর পরিবর্তন হয়েছে। তাই বোর্ডে ৬৬ জন শিক্ষার্থীর ফলাফলেও পরিবর্তন এসেছে।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বলেন, এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর শিক্ষার্থীদের চ্যালেঞ্জ করা খাতার ফলাফল পরির্তন হয়েছে এমন পরীক্ষকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পরীক্ষার খাতা মূল্যায়নে গণনায় ভুল করা এমন পরীক্ষকের সংখ্যা ২০০ জন। 

তাদের আগামীতে সব ধরনের পরীক্ষকের দায়িত্ব থেকে বাদ দেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

শিক্ষাবোর্ড সূত্রে জানা গেছে, এইচএসসির ফলাফল প্রকাশের পর শিক্ষাবোর্ডটির ১৩ হাজার ৮২ জন শিক্ষার্থী খাতা পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন করে। কাঙ্ক্ষিত ফল না পেয়ে ৩৪ হাজার ৭১৫টি পরীক্ষার খাতা চ্যালেঞ্জ করে শিক্ষার্থীরা।

গত শুক্রবার শিক্ষাবোর্ডের ওয়েবসাইটে এইচএসসি পরীক্ষার উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণের ফল প্রকাশ করা হয়। এ ফলাফলে দেখা যায়, শিক্ষাবোর্ডের ৬৬ পরীক্ষার্থী ফেল থেকে পাস করেছে। আর ফল পুনঃনিরীক্ষণে নতুন করে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৪ জন শিক্ষার্থী।

শিক্ষাবোর্ডে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আনারুল হক প্রামাণিক আরও বলেন, এইচএসসি পরীক্ষার খাতা দেখে ৭ থেকে ৮ হাজার পরীক্ষক। তাদের মধ্যে ২০০ জন পরীক্ষকের খাতায় নম্বর লেখা বা গণনায় ভুল পাওয়া গেছে। এ বছর ফেল থেকে জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থী নেই। তবে ৩৬৬ জনের গ্রেড পরিবর্তন হয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৭ জুলাই এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়। পরদিন থেকে এক সপ্তাহ পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন নেওয়া হয়। পুনঃনিরীক্ষণের মাধ্যমে শুধুমাত্র শিক্ষকদের মূল্যায়ন করা নম্বর যোগে ঠিক আছে কি-না, তা যাচাই-বাছাই করে এক মাস পর সেই ফল প্রকাশ করা হয়।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য