শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৭:৩৫
প্রিন্ট করুন printer

আগরতলা মামলা: বঙ্গবন্ধুর কারামুক্তি দিবস স্মরণে ডাকটিকিট অবমুক্ত

অনলাইন ডেস্ক

আগরতলা মামলা: বঙ্গবন্ধুর কারামুক্তি দিবস স্মরণে ডাকটিকিট অবমুক্ত
ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার আজ ঢাকায় তার দফতরে দিবসটি উপলক্ষে ১০ টাকা মূল্যমানের একটি স্মারক ডাকটিকিট ও ১০ টাকা মূল্যমানের একটি উদ্বোধনী খাম অবমুক্ত করেন

আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় গ্রেফতার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মুক্তি দিবস ২২ ফেব্রুয়ারি। ১৯৬৯ সালের এই দিনে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় গ্রেফতার বঙ্গবন্ধু মুক্তি লাভের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতা অর্জনের এক ঐতিহাসিক সোপান রচিত হয়। দিবসটি স্মরণে ডাক অধিদফতর স্মারক ডাকটিকিট, উদ্বোধনী খাম ও ডাটাকার্ড প্রকাশ করেছে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার আজ ঢাকায় তার দফতরে দিবসটি উপলক্ষে ১০ টাকা মূল্যমানের একটি স্মারক ডাকটিকিট ও ১০ টাকা মূল্যমানের একটি উদ্বোধনী খাম অবমুক্ত করেন। এ ছাড়া ৫ টাকা মূল্যমানের একটি ডাটাকার্ড উদ্বোধন করা হয়। মন্ত্রী এ সংক্রান্ত একটি সিলমোহর ব্যবহার করেন। আস সোমবার তথ্য অধিদফতরের এক তথ্যবিবরণীতে বিষয়টি জানানো হয়।

স্মারক ডাকটিকিট, উদ্বোধনী খাম ও ডাটাকার্ড সোমবার থেকে ঢাকা জিপিও’র ফিলাটেলিক ব্যুরো এবং পরে দেশের অন্যান্য জিপিও এবং প্রধান ডাকঘর থেকে সংগ্রহ করা যাবে।

আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলাকে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলার স্বাধীকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের ২৩ বছরের ইতিহাসের একটি বিস্ময়কর ও গৌরবময় ঘটনা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‌‘এই মামলাকে কেন্দ্র করেই ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের সৃষ্টি হয়। ১৯৬৮ সালের ২১ এপ্রিল পাকিস্তান সরকার বিচার প্রক্রিয়া শুরুর উদ্যোগ নেয়। ১৯ জুন ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের বিশেষ ট্রাইব্যুনালে অভিযুক্তদের বিচার শুরু হয়। বঙ্গবন্ধুর মুক্তির দাবিতে সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ রাজপথে গণ-আন্দোলন গড়ে তোলেন। সেইসাথে জনসমুদ্রের উত্তাল তরঙ্গ  বিশাল  শক্তি নিয়ে মানুষের মাঝে নতুন চেতনার স্ফুরণ ঘটায়। ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে মানুষ রাস্তায় নেমে আসে।’

মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘এ মামলার অভিযুক্ত প্রত্যেকের পরিবারকে সেসময় অনেক প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে দিন অতিবাহিত করতে হয়েছে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রায় প্রতিদিনই তার পিতার সাথে দেখা করতে যেতেন। একসময় শেখ মুজিবকে সরকার প্যারোলে মুক্তি দিতে চাইলে বঙ্গবন্ধুর স্ত্রী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব শেখ হাসিনার মাধ্যমে শেখ মুজিবকে খবর পাঠিয়ে মুক্তি নিতে বারণ করেন। গণঅভ্যুত্থানে দিশেহারা আইয়ুব খান ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার করতে বাধ্য হন এবং এরই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু ২২ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯ সালে বন্দিত্ব থেকে মুক্তি লাভ করেন।’

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ

 
 
 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:৪২
প্রিন্ট করুন printer

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের প্রতিবেদন

নাসির-তামিমার বিয়ের প্রসঙ্গ উঠল হাইকোর্টে

অনলাইন ডেস্ক

নাসির-তামিমার বিয়ের প্রসঙ্গ উঠল হাইকোর্টে
নাসির হোসেন ও তামিমা সুলতানা। ফাইল ছবি

স্বামীর প্ররোচনায় প্রেমিকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফির মামলা করেন এক নারী। ওই মামলায় হাইকোর্টে জামিন নিতে গেলে অভিযুক্তের পক্ষে দাঁড়ান কথিত ভুক্তভোগী। এসময় ক্রিকেটার নাসিরের বিয়ের প্রসঙ্গ উঠে আসে হাইকোর্টে। আদালত বলেন, নৈতিক ও সামাজিক অবক্ষয়ের কারণে সমাজে বাড়ছে এমন ঘটনা। 

ক্রিকেটার নাসির হোসেনের বিয়ে নিয়ে যখন আলোচনা সমালোচনা পুরো দেশজুড়েই। ঠিক তখনই হাইকোর্টে একই ধরণের এক বিয়েতে জামিন চাইতে এসেছেন এক ভুক্তভোগী। 

রাজধানীর দক্ষিণখান থানার পারভেজ ইসলাম সকালে হাইকোর্টে আসেন জামিন চাইতে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি খাদিজা আক্তার নামে এক নারীকে ধর্ষণ করেছেন। অভিযোগ এখানেই শেষ নয়, আরেকটি মামলা আছে পর্ণোগ্রাফি আইনে। 

নাটকীয়তার শুরু হয় যখন জামিন শুনানিতে হাজির হন মামলার বাদী খাদিজা আক্তার। তিনি জানান, মামলা দিতে বাধ্য করেছেন তার স্বামী। এরই মধ্যে সেই স্বামীকে দিয়েছেন তালাকও। শিগগিরই বিয়ে করবেন পারভেজ ও খাদিজা।

ক্ষুব্ধ হয়ে হাইকোর্ট দু’জনকে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা দাঁড় করিয়ে রাখেন। বিকাল সাড়ে তিনটার পর শুরু হয় জামিন শুনানি। এসময় আদালত বলেন, এক ক্রিকেটারের বিয়ে নিয়েই তোলপাড় দেশ, এর মধ্যেই আরেক ঝামেলা এসে পড়ল হাইকোর্টের ঘাড়ে। আদালতের মন্তব্য, সামাজিক ও নৈতিক অবক্ষয়ের কারণে এ ধরনের ঘটনা বাড়ছে।

সব শুনে তাদের দু’জকেই সতর্ক করলেন আদালত, জামিন দেন পারভেজ ইসলামকে। 

জামিনের পর এক সাথেই আদালত থেকে বেরিয়ে যান পারভেজ-খাদিজা। জানান, প্রথম স্বামীকে তালাক দেওয়ার ৯০ দিন পার হলেই সারবেন বিয়ের কাজ।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:৩৫
আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৯:৩০
প্রিন্ট করুন printer

সিলেটে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত ৭

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

সিলেটে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত ৭

সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের দক্ষিণ সুরমার রশিদপুরে লন্ডন এক্সপ্রেস ও এনা পরিবহনের মুখোমুখি সংঘর্ষে অন্তত: ৭ জন নিহত হয়েছেন। এই ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও অর্ধশতাধিক লোক। 

শুক্রবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে ভয়াবহ দুর্ঘটনাটি ঘটে।

দুর্ঘটনা কবলিত দুটি বাস হচ্ছে- ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা লন্ডন এক্সপ্রেস (ঢাকা মেট্রো-ব ১৫-৩১৭৬) ও সিলেট থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া এনা পরিবহন (ঢাকা মেট্রো ব ১৪-৭৩১১)।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (সকাল সাড়ে ৯টা) দক্ষিণ সুরমা থানার একদল পুলিশ এবং ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম ঘটনাস্থলে উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে। তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের নাম-ঠিকানা জানা যায়নি।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২২:২৩
প্রিন্ট করুন printer

পিকে হালদারের ৫৯ একর জমি ক্রোকের আদেশ

অনলাইন ডেস্ক

পিকে হালদারের ৫৯ একর জমি ক্রোকের আদেশ
পিকে হালদার

এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রশান্ত কুমার হালদারের (পিকে হালদার) ৫৯ একর জমি ক্রোকের আদেশ দিয়েছেন আদালত। 

ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশ আজ এ আদেশ দেন।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী মাহমুদ হোসেন জাহাঙ্গীর বলেন, মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তদন্তকারী কর্মকর্তা আসামি পিকে হালদার ও তার স্বার্থ-সংশ্লিষ্টদের মোট ৫৯ একর জমি ক্রোকের আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত আসামির ওই জমি ক্রোকের আদেশ দেন।

এ বছরের ৮ জানুয়ারি পিকে হালদারের বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করে ইন্টারপোল। এরও আগে ৫ জানুয়ারি পিকে হাদারের মা লীলাবতী হালদারসহ ২৫ ব্যক্তির দেশ ত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন হাইকোর্ট। গত বছরের ২ ডিসেম্বর পিকে হালদারকে ইন্টারপোলের মাধ্যমে গ্রেফতারের জন্য পরোয়ানা জারির আদেশ দেন ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ। 

পিকে হালদার পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আইএলএফএসএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন। গ্রাহকদের অভিযোগের মুখে বছরের শুরুতেই পিকে হালদার বিদেশ পালান। এরপর ৮ জানুয়ারি ২৭৪ কোটি ৯১ লাখ ৫৫ হাজার ২৫৫ টাকার অবৈধ সম্পদের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। এ মামলায় আরও দুই দফায় পিকে হালদারের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ ক্রোক ও ফ্রিজের আদেশ দেন আদালত।

আর্থিক খাত থেকে আত্মীয়-স্বজন চক্রের মাধ্যমে অন্তত ১০ হাজার কোটি টাকা সরিয়ে নেয়ার কারিগর পিকে হালদারের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত ৪০০ কোটি টাকা বিদেশে পাচারের অফিশিয়াল তথ্য পাওয়া গেছে। দুদক ছাড়াও বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক গোয়েন্দা বিভাগ পিকে হালদার ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করছে। এছাড়া দুদকের ক্যাসিনো দুর্নীতির মামলায় চার্জশিট তালিকায় লিজিং কোম্পানি ও আর্থিক খাত থেকে কয়েক হাজার কোটি টাকা পাচারে জড়িত পিকে হালদারের নামও রয়েছে।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২২:১৫
প্রিন্ট করুন printer

চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের দেনা ৮ হাজার ৮৪৮ কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক

চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের দেনা ৮ হাজার ৮৪৮ কোটি টাকা

রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন (বিএসএফআইসি)-এর বর্তমানে দায় ও দেনার পরিমাণ ৮ হাজার ৮৪৮ কোটি ৩২ লাখ টাকা। এর মধ্যে ব্যাংক ঋণ সাত হাজার ১৯৭ কোটি ৬২ লাখ টাকা, ডিএসএল ও পাকিস্তানি ঋণ ৯৬৫ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। প্রতিষ্ঠানটির গত ৫ বছরে লোকসান তিন হাজার ৯৩৮ কোটি টাকা।

বৃহস্পতিবার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত শিল্প মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির অষ্টম বৈঠকে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়। 

কমিটি চিনিশিল্পে লোকসানের মূল কারণ উদঘাটন, অপ্রয়োজনীয় জনবল ছাঁটাই করে বন্ধ চিনিকলগুলো চালুকরণের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ করে। 

বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন কমিটির সভাপতি আমির হোসেন আমু। শিল্প মন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, এ, কে এম ফজলুল হক, আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন, মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান, কাজিম উদ্দিন আহম্মেদ এবং মো. শফিউল ইসলাম বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। 

বৈঠকের কার্যপত্র থেকে জানা যায়, বর্তমানে চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনে শূন্য পদ রয়েছে ছয় হাজার ৩১টি। জনবল কাঠামোয় মোট পদ সংখ্যা ১৭ হাজার ২৬৩টি। বৈঠকে উপস্থাপিত প্রতিবেদনে চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের বর্তমানে দায় দেনার পরিমাণসহ চিনিশিল্পে লোকসানের আটটি মূল কারণ চিহ্নিত করা হয়। সেখানে বিসিআইসির অধীনস্থ ইউরিয়া সার কারখানাসমূহের ডিলারদের কাছ থেকে সংগৃহিত নিরাপত্তা জামানত হিসেবে পাওয়া একশত এগারো কোটি ৮৫ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা কোন কোন ব্যাংকে রাখা হয়েছে, তার বিবরণ চাওয়া হয়। 

প্রতিবেদন অনুযায়ী, চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের দায়-দেনার মধ্যে রয়েছে, ব্যাংক ঋণ সাত হাজার ১৯৭ কোটি ৬২ লাখ টাকা, ডিএসএল ও পাকিস্তানি ঋণ ৯৬৫ কোটি ৯৯ লাখ টাকা, আখের দাম ৩৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা, বেতন বাকি ৯২ কোটি ৩ লাখ টাকা, প্রভিডেন্ট ফান্ড খাতে ১০৭ কোটি ৭০ লাখ টাকা, গ্র্যাইচুইটি ২৫৪ কোটি ১৩ লাখ টাকা, সরকরাহকারীদের পাওনা ১৩৮ কোটি ৭৪ লাখ টাকা, আয়কর বাবদ ১১ কোটি ৬৬ লাখ টাকা, ভ্যাট ৯ কোটি টাকা, ডিলার জামানত ৩৭ কোটি ৭৫ লাখ টাকা।

গংসদেও গণসংযোগ বিভাগ জানায়, কমিটি শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন সকল অধিদপ্তরের কেনাকাটায় মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন গ্রহণের পাশাপাশি সকল কারখানায় ইউরোপ, আমেরিকা ও জাপান থেকে যন্ত্রপাতি ক্রয়ের সুপারিশ করে। একইসঙ্গে ওইসব কোম্পানির অতিরিক্ত যন্ত্রাংশ (স্পেয়ার পার্স) ক্রয় করার জন্য সুপারিশ করে কমিটি।

বৈঠকে আয়োডিনযুক্ত লবণ বিল, ২০২১, চিনি শিল্পের সার্বিক বিষয় এবং বিসিআইসির অধীনস্থ ইউরিয়া সার কারখানাসমূহের ডিলারদের নিকট থেকে নিরাপত্তা জামানত হিসেবে প্রাপ্ত অর্থ ১১১,৮৫,৮০,০০০/= (একশত এগারো কোটি পঁচাশি লক্ষ আশি হাজার) টাকা কোন কোন ব্যাংকে রাখা হয়েছে সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।  

বৈঠকে “আয়োডিনযুক্ত লবণ বিল, ২০২১” সম্পর্কে পর্যালোচনা শেষে গৃহীত কতিপয় সংযোজন, সংশোধন ও পরিমার্জনের পর সংশোধিত আকারে সংসদে বিলটির রিপোর্ট প্রদানের সুপারিশ করা হয়।

বৈঠকে শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব, লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের যুগ্ম সচিব, বিভিন্ন সংস্থা প্রধানসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২২:০৪
প্রিন্ট করুন printer

দেশে ফিরে হুইল চেয়ারে চড়ে গাড়িতে উঠলেন মির্জা ফখরুল

অনলাইন ডেস্ক

দেশে ফিরে হুইল চেয়ারে চড়ে গাড়িতে উঠলেন মির্জা ফখরুল
সংগৃহীত ছবি

সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ সন্ধ্যায় বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে শাহজালাল বিমানবন্দরে নামার পর হুইল চেয়ারে চড়ে গাড়িতে ওঠেন তিনি। তার সঙ্গে থাকা স্ত্রী রাহাত আরা বেগমও ছিলেন আরেকটি হুইল চেয়ারে।

হুইল চেয়ারে বসেই বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মির্জা ফখরুল।

শরীরের অবস্থা কেমন প্রশ্ন করা হলে ফখরুল বলেন, ভালো না। আই অ্যাম সিক। আমি অসুস্থ, এখনো সুস্থ নই। সিঙ্গাপুরে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থেকে তারপরে ডাক্তারদের সঙ্গে দেখা করে সব পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ফিরেছি।

গত ৩০ জানুয়ারি স্ত্রীকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর যান বিএনপি মহাসচিব। সেখানে ফারার পার্ক হসপিটালে তার চিকিৎসা হয়। ২০১৫ সালে কারাবন্দি অবস্থায় ঘাড়ে ইন্টারনাল ক্যারোটিভ আর্টারিতে ব্লক ধরা পড়লে সিঙ্গাপুরে তার চিকিৎসা করেছিলেন ৭৩ বছর বয়সী এই বিএনপি নেতা। 

এর চিকিৎসা বাংলাদেশে না থাকায় প্রতি বছরই ফলোআপ করতে তাকে সিঙ্গাপুর যেতে হয়। সর্বশেষ ২০১৯ সালের ৪ অক্টোবর তিনি সিঙ্গাপুর যান।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর