২৫ মে, ২০২২ ০০:৪০

অভিযোগের পাহাড় মাগুরা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা দারুলের বিরুদ্ধে

অনলাইন ডেস্ক

অভিযোগের পাহাড় মাগুরা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা দারুলের বিরুদ্ধে

দারুল আলম।

বর্তমানে মাগুরা সদরের ভারপ্রাপ্ত পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার দায়িত্বে আছেন সহকারী (টিএফপিএ) হিসাবে যোগ দেয়া দারুল আলম। অনিয়ম, দুর্নীতি আর পদবাণিজ্যে রীতিমতো আঙুল ফুলে কলাগাছ হয়ে উঠেছেন এ কর্মকর্তা। নামে-বেনামে নানা সম্পত্তিসহ কোটি কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়া দারুলের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), বাংলাদেশ কর্ম কমিশনসহ বিভিন্ন দপ্তরে জমেছে অভিযোগের পাহাড়। কিন্তু এরপরও বহাল আছেন তিনি। থামেনি তার নিয়োগ বাণিজ্য। 

চাকরিতে যোগদানের পর থেকেই তিনি নানা দুর্নীতিতে জড়িয়ে টাকার পাহাড় গড়তে থাকেন। সেই টাকার প্রতাপে পদোন্নতি পেয়ে মাগুরার ভারপ্রাপ্ত পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার দায়িত্বে নিযুক্ত হন। নিু মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান দারুল অল্প সময়ের মধ্যে ঢাকার মিরপুরে কিনেছেন ফ্ল্যাট। স্ত্রী ও মায়ের নামে ব্যাংক ও পোস্ট অফিসে টাকা রেখেছেন ফিক্সড ডিপোজিটে। 

জানা গেছে, দারুল আলমের এ বিস্ময়কর উত্থানের মূলে রয়েছে নিয়োগ বাণিজ্য। তিনি অধিদপ্তরের নিয়োগ বাণিজ্য চক্রের সঙ্গে যুক্ত হয়ে মাগুরা, ঝিনাইদহ, কুষ্টিয়া, নড়াইল, সাতক্ষীরা, যশোর, খুলনাসহ বিভিন্ন জেলার লোকজনকে ঘুস নিয়ে চাকরি পাইয়ে দেন। তার দুর্নীতির ফিরিস্তি ঘাঁটতে গিয়ে বেরিয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। তিনি উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা সহকারী (টিএফপিএ) থাকাকালে তার লাগামহীন দুর্নীতি ঠেকাতে মাগুরা সদরের মাঠ কর্মচারীরা তাকে বদলির জন্য আবেদন করেন। একই অভিযোগের কারণে দুদক কাগজপত্র জব্দসহ তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে। এরপর চাকরিতে ফিরে তিনি ফের দুর্নীতি চালিয়ে যান। সে সময় ভুয়া বিল-ভাউচার ও ভ্রমণভাতা তোলাসহ নানা অভিযোগে অভিযুক্ত হন। এর মধ্যে তিনি মাগুরা সদর গোপালগ্রাম পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের পরিদর্শিকা মুক্তি রানী কর্মকারের বেতন হতে টাকা আÍসাৎ করেন। এ বিষয়টিও তৎকালীন উপ-পরিচালক পর্যন্ত গড়ায়। 

এছাড়া দারুল আলম মাগুরা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে হিসাব শাখার দায়িত্ব পালনকালে সেখানকার আসবাবপত্র কেনার দরপত্র আহ্বান করলেও কাউকে দাখিল করতে দেয়া হয়নি। নিজেই নামে-বেনামে দরপত্র দাখিল করে নিুমানের মালামাল সরবরাহ করে টাকা হাতিয়ে নেন। ২০০৭ সালে তার লাগামহীন দুর্নীতির বিষয়ে মাগুরার তৎকালীন জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ করেন জুনিয়র পরিসংখ্যান সহকারী (বর্তমানে গুদামরক্ষক) ফারুক হোসেন। দারুল উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা সহকারী (টিএফপিএ) হতে সহকারী পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা পদে পদোন্নতি পেয়ে সাতক্ষীরা আশাশুনিতে যোগদান করেন। সেখানে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার না থাকায় তিনি ভারপ্রাপ্ত উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসারের দায়িত্ব পেয়ে দুর্নীতির বন্যা বইয়ে দেন। তার দুর্নীতির কারণে এলাকায় পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে। মাগুরা সদর হাজিপুর ও কসুন্দি পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে গভীর নলকূপ স্থাপনের জন্য বরাদ্দ পেলেও সেখানে তিনি অগভীর নলকূপ স্থাপন করে টাকা আত্মসাৎ করেন। ঘুস-দুর্নীতি আর নিয়োগ বাণিজ্যে তিনি এতটাই বেপরোয়া হয়ে ওঠেন যে মাগুরা হতে একই পরিবারের ৫ জন এবং অপর পরিবারের ২ জনসহ মোট ১৫ জনকে চাকরি দেন।

একই পরিবারের ৫ নিয়োগপ্রাপ্ত কর্মী হলেন সুরাইয়া আহমেদ, ঝুনা পারভীন, মাহফুজা খানম দিনা, কামরুল ইসলাম ও নূরজাহান বেগম। এদের মধ্যে প্রথম তিনজন বোন। সবচেয়ে অদ্ভুত ব্যাপার হলো, এদের বয়স ৪০ বছরের উপরে, যা একেবারেই নজিরবিহীন ঘটনা। এ নিয়োগের ক্ষেত্রে বয়স গোপনসহ আরও অনেক বেআইনি কাজ করেছেন তিনি। ভুয়া অষ্টম শ্রেণি পাশের সার্টিফিকেট, দাই-নার্সের ভুয়া সনদ তৈরিসহ ১৮-২০ বছর আগে তোলা ছবি ব্যবহার করেছেন। নিজের নিয়োগ বাণিজ্যের স্বার্থে এমন কোনো বেআইনি পন্থা নেই যা তিনি অবলম্বন করেননি। তার এ বিষয়টি তদন্তনাধীন। তদন্তের পর চলে গেছে প্রায় দুই বছর। কিন্তু ফলাফল শূন্য। ওই তিন বোন এখনও চাকরি করে যাচ্ছেন। কারও কারও নিয়োগে ভুয়া ঠিকানা পর্যন্ত ব্যবহার করেছেন দারুল আলম। পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের কিছু অসাধু কর্মকর্তার প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ সহযোগিতা ও অনৈতিক সুবিধা নিয়ে তিনি দিনের পর দিন এ ধরনের অপরাধ করে যাচ্ছেন।

দারুল আলমের বিরুদ্ধে ওই তিন বোনকে প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে চাকরি পাইয়ে দেওয়া এবং কিছু দুর্নীতির বিষয়ে অভিযোগ ওঠায় তদন্ত শেষে ২০২০ সালে তাকে মাগুরা হতে পিরোজপুর নেছারাবাদ উপজেলায় বদলি করা হয়। এরপর আদেশটি পরিবর্তন করে পিরোজপুর নেছারাবাদের স্থলে যশোরের শার্শায় বদলি করা হয়। কিন্তু তিনি কর্মস্থলে যোগদান না করে ওই অদেশের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনাল-১, ঢাকাতে মামলা করেন এবং এখনও স্বীয় কর্মস্থলে বহাল আছেন। সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো, গত দুই বছরেও দারুল আলমের মামলার কোনো জবাব দেয়নি পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর। কালক্ষেপণের মাধ্যমে তারা আসলে তাকে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে।

স্বজনপ্রীতির নগ্নতম উদাহরণ স্থাপন করে নিজের পরিবারের সদস্যদের নিয়োগেও দারুল আলম এগিয়ে আছেন। নিয়োগপ্রাপ্তদের মধ্যে রয়েছেন তার শ্যালিকা জাহানারা পারভীন ও চাচাতো বোন শামছুন নাহার পলি। দারুল আলম তার নিয়োগ বাণিজ্যের অর্থ লেনদেন করেন তার বড় ভাই নুহু দারুল হুদার ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের মাগুরা শাখার একটি অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে। তার বেনামে অনেক সম্পত্তি থাকলেও প্রকাশিত সম্পত্তির মধ্যে মাগুরা পিটিআইর সামনে গ্যাডো ক্লিনিকের ৭ শতক জমির আনুমানিক মূল্য ৫০ লাখ টাকা। পারনান্দুয়ালীর ১১ শতক জমির আনুমানিক মূল্য ৪০ লাখ টাকা। দলিলে তিনি এসব জমির দাম দেখিয়েছেন অনেক কম। 

দারুল আলমের চারিত্রিক স্খলন নিয়েও আছে বিস্তর অভিযোগ। পরিবার পরিকল্পনা বিভাগীয় কয়েকজন কর্মীর সঙ্গে তার অনৈতিক সম্পর্কের বিষয়টি ওপেন সিক্রেট। একাধিকবার এ ধরনের সম্পর্কে জড়িয়ে ধরা পড়লেও ভুক্তভোগীর মানসম্মান ও সামাজিক কারণে কেউ মুখ খোলেন না। এর বাইরেও অনেককে অনৈতিক প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি।

এদিকে, মাগুরা সদর উপজেলার রাঘবদা ইউনিয়নের পরিবার কল্যাণ সহকারী মেরিনা সুলতানার বেতন-ভাতাদি প্রায় ৪ বছর ধরে বিধিবহির্ভূতভাবে আটকে রেখেছেন দারুল আলম। সম্প্রতি পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে মেরিনা সুলতানার যাবতীয় পাওনা দ্রুততম সময়ের মধ্যে পরিশোধের আদেশ জারি হলেও এখনো সেই টাকা পরিশোধ হয়নি। উলটো মেরিনার কাছে পাওনা টাকার অর্ধেক ঘুস দাবি করেছেন তিনি। দারুল আলমের ব্যাপারে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সাহান আরা বানুর সঙ্গে কথা বলার অনুরোধ জানালেও তিনি দেখা করেননি।
  
সৌজন্যে-
যুগান্তর।  


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর