শিরোনাম
প্রকাশ : ২৬ নভেম্বর, ২০২০ ০১:০৬
আপডেট : ২৬ নভেম্বর, ২০২০ ০৯:৪৭
প্রিন্ট করুন printer

ক্যালেন্ডারের পাতায় দিয়াগো ম্যারাডোনা

অনলাইন ডেস্ক

ক্যালেন্ডারের পাতায় দিয়াগো ম্যারাডোনা

ফুটবল বিশ্বকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি ফুটবলার দিয়াগো ম্যারাডোনা।

বুধবার নিজ বাড়িতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ৬০ বছর বয়সে মারা যান তিনি। কোটি ভক্তদের কাঁদিয়ে চলে যাওয়া ম্যারাডোনা ক্যালেন্ডারের বিভিন্ন বছরকে মানব ইতিহাসে চিরস্মরণীয় করে রেখে গেছেন।

৬০ বছরের চড়াই উতরাই জীবনে ক্যালেন্ডারের বেশ কয়েকটি সাল ম্যারাডোনার নামে বিখ্যাত হয়ে থাকবে।

১৯৭৭

১৯৭৭ সালে হাঙ্গেরির বিপক্ষে সাদা-নীল স্ট্রাইপ জার্সিতে অভিষেক হয় ম্যারাডোনার। অবশ্য রাজধানীর বুয়েন্স আয়ার্সের শ্যান্টি টাউনে জন্ম নেওয়া ম্যারাডোনা হয়তো তখনও জানতেন না যে ফুটবল বিশ্বে অমর হয়ে থাকার শুরুটা সেখানেই।  

১৯৮২

সে বছর প্রথমবারের মতো ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ আসরে আর্জেন্টিনার প্রতিনিধিত্ব করেন দিয়াগো। একই বছর স্প্যানিশ ক্লাব বার্সালোনা ছেড়ে ইতালিয়ান ক্লাব নাপোলিতে যোগ দেন ম্যারাডোনা। প্রায় ৭৫ হাজার নাপোলি ভক্তের সামনে ক্লাবটির জার্সি দেওয়া হয় তাকে। ঘটনাটির বর্ণনা দিতে গিয়ে সেসময়ের ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেভিড গোল্ডব্ল্যাট লিখেছিলেন- 'তারা (নাপোলি সমর্থক) আশ্বস্ত হয়েছেন যে তাদের উদ্ধারকর্তা চলে এসেছেন"।  

১৯৮৬

ফুটবল বিশ্বে ম্যারাডোনাকে এক রকম কিংবদন্তির কাতারে নিয়ে গিয়েছে ১৯৮৬ সাল। সে বছর আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের অধিনায়ক হিসেবে দেশের জন্য দ্বিতীয় ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ জেতেন। ১৯৭৮ সালের পর তিনিই এখন পর্যন্ত দেশটির শেষ বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক।  

সে বছরের বিশ্বকাপ জয় যতটা গুরুত্বপূর্ণ তার থেকে কোনো অংশে কম ছিল না। কোয়ার্টার ফাইনালে সেসময়ের রীতিমতো 'শত্রু' দেশ ইংল্যান্ডকে হারিয়ে সেমিফাইনালে ওঠে আর্জেন্টিনা। তাও যেনতেন ভাবে নয় বরং রীতিমতো হাত দিয়ে গোল করে। ১৯৮২ সালের ফখল্যান্ড যুদ্ধের প্রতিদ্বন্দ্বীদের ভালই ঘোল খাইয়েছিল আর্জেন্টিনা।   

খেলার ৫১ মিনিটে লাফিয়ে উঠে হেড করার ভঙ্গিতে হাত দিয়ে গোল করে বসেন ম্যারাডোনা। ঘটনাটির বর্ণনা দিতে গিয়ে ম্যারাডোনা বলেছিলেন, "(গোলটি হয়েছিলেন) অল্প ম্যারাডোনার মাথা দিয়ে আর খানিকটা ঈশ্বরের হাত দিয়ে"। আর তখন থেকেই 'হ্যান্ড অব গড' উপাধি জুটে যায় ম্যারাডোনার সাথে।  

১৯৯০

এই বছরটিতেও নিজের সাফল্য ধরে রাখেন দিয়েগো। দলের জন্য ফিফা বিশ্বকাপের শিরোপা ধরে রাখতে না পারলেও দলকে নিয়েছিলেন ফাইনালে। একই বছর নাপোলিকে জিতিয়েছেন দ্বিতীয় সিরিএ লীগ।  

১৯৯১

ফুটবল ঈশ্বরের পতনটা শুরু হয় এবছর থেকেই। সেবারই প্রথম ডোপ টেস্টে মাদক গ্রহণ করে ধরা পড়েন ম্যারাডোনা। সব ধরনের ফুটবল থেকে নিষিদ্ধ হন ১৫ মাসের জন্য।  

১৯৯৪

টানা চতুর্থবারের মতো ফিফা বিশ্বকাপ আসরে আর্জেন্টিনার হয়ে অংশ নেন ম্যারাডোনা। তবে আবারও মাদক সেবন করে ধরা পড়ায় আসরের মাঝেই বের হয়ে আসতে হয় তাকে। সেবার হয়তো তিনি জানতেন যে এটিই তার শেষ বিশ্বকাপ।  

১৯৯৭

সেবছর টানা তৃতীয় বারের মতো ডোপ টেস্টে পজিটিভ আসায় সব ধরনের ফুটবলকে বিদায় জানাতে একরকম বাধ্য হন ম্যারাডোনা।  

২০০৮

২০০৮ সালে অবশ্য আবারও আর্জেন্টিনা ফুটবল দলের সাথে যুক্ত হওয়ার সুযোগ পান দিয়েগো ম্যারাডোনা। তবে এবার কোচ হিসেবে। কিন্তু সে বছরের বিশ্বকাপে আশানুরূপ ফল না আসায় ২০১০ সালে ম্যারাডোনার সঙ্গে চুক্তি শেষ হলে আর তা বাড়ায়নি আর্জেন্টিনা ফুটবল সংস্থা।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর