শিরোনাম
৪ ডিসেম্বর, ২০২১ ০৮:৪৬
এবার মিরপুরে টেস্ট পরীক্ষা

‘ব্যাটসম্যানদের আটকে রাখাই আমার চ্যালেঞ্জ’

ক্রীড়া প্রতিবেদক

‘ব্যাটসম্যানদের আটকে রাখাই আমার চ্যালেঞ্জ’

চট্টগ্রাম টেস্টে বাংলাদেশের পেসারের পারফরম্যান্স ছিল একেবারেই সাধারণ মানের। আবু জায়েদ রাহী ও এবাদত হোসেন দুই ইনিংস মিলিয়ে পাকিস্তানের দুই ব্যাটারকে সাজঘরে ফিরিয়েছেন। বিপরীতে পাকিস্তানের দুই পেসার শাহীন শাহ আফ্রিদি ও হাসান আলি। দুজনে উইকেট নিয়েছেন ৭টি করে ১৪টি। স্বাগতিক ইনিংসের ৭০ শতাংশ উইকেট। গতি, বাউন্স ও সুইংয়ে টাইগার ব্যাটারদের নাকাল করে দেওয়া বাঁ-হাতি পেসার শাহীন শাহ আফ্রিদি আজ মিরপুর টেস্ট শুরুর আগে জানান, বাংলাদেশের ব্যাটারদের উইকেট নেওয়া কঠিন, ‘টেস্ট ক্রিকেটে টানা দুই বলে উইকেট নেওয়া কখনোই সহজ নয়। সত্যিই কঠিন। টেস্ট ক্রিকেটের প্রতিটি সেশন, প্রতিটি মিনিট কঠিন ক্রিকেট হয় ও গুরুত্বপূর্ণ। আমি ফুল লেংথে বল করার চেষ্টা করি এবং উপভোগ করি। বাংলাদেশের ব্যাটারদের উইকেট নেওয়া সহজ নয়। ওদের বেশ ক’জন ভালো ক্রিকেটার আছে। আমি শতভাগ দেওয়ার চেষ্টা করি।’

চট্টগ্রাম টেস্টে টাইগার স্পিনারদের ভেলকিতে প্রথম ইনিংসে পিছিয়েছিল পাকিস্তান। তবে দুই পেসার আফ্রিদি ও হাসান আলি দ্বিতীয় ইনিংসে টাইগারদের গুঁড়িয়ে ৮ উইকেটের জয় উপহার দেন। প্রথম ইনিংসে আফ্রিদি ৭০ রানের খরচে ২টি এবং দ্বিতীয় ইনিংসে ১৫ ওভারের স্পেলে ৩২ রানের খরচে নেন ৫ উইকেট। হাসান প্রথম ইনিংসে নেন ৫ উইকেট। দ্বিতীয় ইনিংসে ২টি। দুই পেসার এখন সাদা পোশাকে লাল বলে পাকিস্তানের মূল স্ট্রাইক বোলার। হাসানের সঙ্গে বোলিং উপভোগ করেন আফ্রিদি, ‘হাসানের সঙ্গে বোলিং দারুণ উপভোগ করি। এ বছর হাসান ৩৯ উইকেট এবং আমার উইকেট ৪৪টি। আমরা পরিকল্পনা করে জুটি বেঁধে বোলিং করি। পরিকল্পনা করি, ব্যাটারদের কীভাবে আটকে রাখা যায় বা দ্বিধায় ফেলা যায়।’

বাংলাদেশের ব্যাটারদের উইকেট নেওয়া কঠিন। আবার এখানকার উইকেটে বোরিং করাটাও কঠিন, বলেন বাঁ-হাতি পেসার, ‘এশিয়ার সব উইকেটই কম-বেশি ধীরলয়ের। এখানে স্পিনারদের সহায়তা বেশি থাকে। তবে গায়ে জোর থাকলে এখানেও কার্যকর হওয়া যায়। জুটি বেঁধে বল করতে হয়। আমি ও হাসান নিজেরা ঠিক করি, কে আক্রমণ করবে, কে রান আটকে রাখবে। ব্যাপারটি ৩ বা ৫ ওভারের স্পেল। এভাবেই সাফল্য পাচ্ছি। দ্বিতীয় টেস্টেও আমরা আগের টেস্টের মতো পারফরম্যান্স করতে চাই।’

 

বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর