শিরোনাম
প্রকাশ : ১৩ জুন, ২০১৯ ১৮:৫৬

সিলেটে গণপিটুনিতে ধর্ষণ মামলার আসামি খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট:

সিলেটে গণপিটুনিতে ধর্ষণ মামলার আসামি খুন
প্রতীকী ছবি

সিলেটে ধর্ষণ মামলার আসামি স্বেচ্ছাসেবক লীগ কর্মী গণপিটুনিতে খুন হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। তবে তার পরিবারের অভিযোগ গণপিটুনি নয় প্রতিপক্ষের লোকজন পরিকল্পিতভাবে তাকে খুন করেছে। গত বুধবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে নগরীর বনকলাপাড়ায় দুদু মিয়া নামের ওই স্বেচ্ছাসেবক লীগ কর্মী খুনের ঘটনা ঘটে। 

দুদু মিয়া হবিগঞ্জের আজমিরিগঞ্জ উপজেলার জলশোকা গ্রামের মৃত তমিল খানের ছেলে। বর্তমানে সে বনকলাপাড়ার একটি ভাড়া বাসায় বসবাস করছিল।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত বুধবার রাত ১১টার দিকে বনকলাপাড়া মসজিদে এলাকায় ডাকাত ঢুকেছে বলে মাইকে ঘোষণা দেয়া হয়। এরপর কয়েকজন যুবক মিলে গণপিটুনি দেন দুদু মিয়াকে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। 

দুদু মিয়ার বিরুদ্ধে নগরীর সুবিদবাজার নূরানী আবাসিক এলাকায় খালার বাসায় বেড়াতে আসা এক তরুণীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে। ওই ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় সে কয়েকদিন আগে জেল থেকে বের হয়ে আসে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এদিকে, দুদু মিয়াকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন তার ভাই হাসিম খান। তিনি বলেন, বুধবার রাতে বনকলাপাড়ায় তাদের মালিকানাধীন সাদিয়া টেলিকম নামের দোকানে ১০-১২ জন যুবক দুদু মিয়ার উপর হামলা চালায়। এসময় তাদের অপর ভাই জুয়েল খানও দোকানে ছিল। হামলার সময় দৌঁড়ে সে আত্মরক্ষা করে। হামলাকারীরা দুদু মিয়াকে খুন করে সাদিয়া টেলিকমের সামনে থেকে টেনে গোলাপমিয়া পয়েন্টে নিয়ে যায়। এরপর তার হাতে একটি দা ধরিয়ে দিয়ে এলাকায় ডাকাত প্রবেশের ঘোষণা দেয় মসজিদের মাইকে। দুদু মিয়াকে খুন করার পর মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে ডাকাতির ঘটনার নাটক সাজানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেন হাসিম খান। 

হাসিম খানের অভিযোগ, তার ভাই জুয়েল খান পালিয়ে আত্মরক্ষার সময় হামলাকারী চার জনকে চিনতে পেরেছেন। তারা হলেন- ছাত্রদল নেতা জামাল আহমদ ওরফে কালা জামাল, বেলাল, শাহ আলম ও জামায়াত নেতা রিপন।
 
এদিকে, হত্যাকান্ডের খবর পেয়ে সিলেট বিমানবন্দর থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। 

এ ব্যাপারে বিমানবন্দর থানার ওসি এস এম শাহাদত হোসেন জানান, হত্যাকান্ডের ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে নিহতের পরিবার। হত্যাকান্ডের নেপথ্যের কারণ ও এর সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করতে পুলিশ কাজ শুরু করেছে। 

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার

 

 

 


আপনার মন্তব্য