২৫ জানুয়ারি, ২০২২ ২১:৫২

চট্টগ্রামে ভ্যাকসিন পেয়েছে প্রায় ৯ লাখ শিক্ষার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে ভ্যাকসিন পেয়েছে প্রায় ৯ লাখ শিক্ষার্থী

ফাইল ছবি

চট্টগ্রামে করোনা সংক্রমণ থেকে সুরক্ষায় ১২-১৮ বছর বয়সী মোট ৮ লাখ ৭২ হাজার ২৫৬ জন শিক্ষার্থীকে ফাইজারের প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়েছে। দুই মাস ১০ দিনে এসব শিক্ষার্থী ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছে। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় এ উদ্যোগ গ্রহণ করে।

জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় বলছে, এর মাধ্যমে চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলার বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শতভাগ শিক্ষার্থী কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের আওতায় এসেছে। 

জানা যায়, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস কর্তৃক প্রেরিত শিক্ষার্থীদের নামের তালিকা মতে, গত বছরের ১৬ নভেম্বর থেকে গত ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত চট্টগ্রাম মহানগর এবং গত ৮ জানুয়ারি থেকে ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত ১৫ উপজেলার ১২-১৮ বছর বয়সী মোট ৮ লাখ ৭২ হাজার ২৫৬ জন শিক্ষার্থীকে ফাইজারের প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়েছে। সিটি কর্পোরেশন স্কুল ক্যাম্পেইনের আওতায় শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত নির্ধারিত স্কুল ও কমিউনিটি সেন্টারগুলোতে মোট ২ লাখ ৮৯ হাজার ৮৩০ জন শিক্ষার্থী ফাইজারের প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছে। তার মধ্যে ৩২ হাজার ৮৪ জন শিক্ষার্থীকে দ্বিতীয় ডোজ ভ্যাকসিনও গ্রহণ করেছে। তাছাড়া উপজেলা পর্যায়ে স্কুল ক্যাম্পেইনের আওতায় শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বিভিন্ন কমিউনিটি সেন্টার, স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও অফিসে একই বয়সী মোট ৫ লাখ ৮২ হাজার ৪২৬ জন শিক্ষার্থী প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছে। বাদ পড়া শিক্ষার্থীরা শিক্ষা অফিস থেকে তালিকা পাওয়া সাপেক্ষে ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হবে।  

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী বলেন, আমাদের সকলকেই সুরক্ষিত থাকতে হবে। তাই সরকারের নির্দেশনা মতে চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রত্যেক মানুষকে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের আওতায় আনার কার্যক্রম চলছে। চট্টগ্রামে ১২-১৮ বছর বয়সী মোট ৮ লাখ ৭২ হাজার ২৫৬ জন শিক্ষার্থীকে ফাইজারের প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়। মহানগরে ৩২ হাজার ৮৪ জন শিক্ষার্থীকে দ্বিতীয় ডোজও প্রদান করা হয়েছে। কোনো শিক্ষার্থী ভ্যাকসিন না পেয়ে থাকবে না।

চট্টগ্রাম কোভিড-১৯ এর ফোকাল পারসন ডা. মোহাম্মদ নুরুল হায়দার বলেন, কেবল প্রাপ্ত বয়স্করা নয়, আমাদের সন্তানদেরও সুরক্ষা প্রয়োজন। কোভিডকালীন সময়ে বর্তমান সরকার বিষয়টিকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে দেখেছে। তাই বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদেরকেও কোভিড ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হচ্ছে।

জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ফরিদুল আলম হোসাইনী বলেন, বিভিন্ন স্কুল থেকে প্রাপ্ত তালিকা অনুযায়ী ১২-১৮ বছর বয়সী সকল শিক্ষার্থীকে ফাইজার ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে। অনেকে দ্বিতীয় ডোজও গ্রহণ করেছে। যদি কোনো শিক্ষার্থী ভ্যাকসিন গ্রহণ থেকে বাদ পড়ে তারাও ভ্যাকসিনের আওতায় আসবে।

জানা যায়, চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলায় বর্তমানে জনসংখ্যা প্রায় ৮৯ লাখ ৯৮ হাজার ৮৬৪ জন। এর মধ্যে ১২-১৮ বছর বয়সীদের সংখ্যা ১০ লাখ ৯২ হাজার ৬৩৪ জন। তবে এই বয়সীদের একটি অংশ স্কুল-কলেজের বাইরে রয়েছে। এই অংশটি বাদ দিলে জেলায় ১২-১৮ বছরের শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ৮ লাখ বলে ধারণা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের। তবে এর আগে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) পাঠানো তথ্যে মহানগরসহ জেলায় ১২-১৮ বছরের শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ৭ লাখ বলে জানায় জেলা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর