শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ জানুয়ারি, ২০২০ ১৭:১৫

কুমিল্লায় সহযোগীকে উদ্ধার করতে এসে ধরা পড়ল আরও ৮ ডাকাত

কুমিল্লা প্রতিনিধি

কুমিল্লায় সহযোগীকে উদ্ধার করতে এসে ধরা পড়ল আরও ৮ ডাকাত

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে এক ডাকাতকে উদ্ধার করতে এসে দলের আরও ৮ সদস্য ধরা পড়েছে। পরে নারীসহ ১১ জনকে আটক করেছে থানা পুলিশ। এসময় বিপুল সংখ্যক দেশীয় অস্ত্রও উদ্ধার করা হয়েছে।  

সোমবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লার পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম ও চৌদ্দগ্রাম থানার পরিদর্শক (অপারেশন) ত্রিনাথ সাহা। 

ডাকাত দলের আটক সদস্যরা হলেন- সদর দক্ষিণ মডেল থানার দিশাবন্দ গ্রামের জহির হোসেন, জহিরুল ইসলাম, উত্তর রামপুরের কামরুল হাসান সবুজ, ফেরদৌস হোসেন, কামাল হোসেন, মনোয়ারা বেগম, বুলেট, মোস্তফাপুর গ্রামের নেয়ামত উল্লাহ, শ্রীমন্তপুরের জুয়েল প্রকাশ আকাশ, চৌদ্দগ্রামের শুয়ারখিল গ্রামের ফাহিম আহম্মেদ, চাঁদপুরের হাজীগঞ্জের রামপুর গ্রামের সুমন হাসান।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, রবিবার রাত পৌনে ৮টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের বাবুচি বাজার এলাকায় গাড়ির জন্য অপেক্ষায় ছিলেন রংপুর বদরগঞ্জ থানার নাটারাম গ্রামের শাহ আলমের ছেলে শাহীন আলম। কিছুক্ষণ পরে কুমিল্লা-ল-১১-০২৩৬ নম্বরের মোটর সাইকেলযোগে তিনজন এসে নগদ টাকা ও মোবাইল সেট ছিনিয়ে নেয়। এ সময় তার চিৎকারে মহাসড়কে ডিউটিতে থাকা পুলিশ ধাওয়া করে জহির হোসেন ও জহিরুল ইসলামকে একটি চাকু, লুণ্ঠিত ব্যাগ ও নগদ টাকাসহ আটক করে। অন্যজন বুুলেট পাশ্ববর্তী গ্রামের দিকে পালিয়ে যায়। রাত সাড়ে ১০টায় পুলিশ পাশের এলাকায় অভিযান শুরু করে। 

পলাতক বুলেট অপর সহযোগীদের ফোন করলে তারা ঢাকা মেট্রো-চ-১১৩-২২১৭ নম্বরের মাইক্রোবাস যোগে বাবুচি বাজার এলাকার একতা ব্রিকস্ ফিল্ডে গিয়ে ভয় দেখিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। একই সময়ে পুলিশের টিম আত্মগোপনে থাকা বুলেটকে গ্রেফতার করতে অভিযানকালে মহাসড়কের পাশে অর্পিতা ব্রিকস্ ফিল্ডের সামনে ওই মাইক্রোবাসের মুখোমুখি হয়। ধাওয়া করে মাইক্রোবাসে থাকা আটজনসহ বুলেটকে আটক করে। পরে তাদের সাথে থাকা পাঁচটি রামদা, দুইটি দেশীয় তৈরি চাইনিজ কুড়াল উদ্ধার করা হয়। অস্ত্রসহ ১১ জনকে আটকের ঘটনায় চৌদ্দগ্রাম থানায় মামলা হয়েছে। 

বিডি প্রতিদিন/এনায়েত করিম


আপনার মন্তব্য