শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:২৯
আপডেট : ২২ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:৪২
প্রিন্ট করুন printer

খুবিতে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি নিরসনে উদ্যোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

খুবিতে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি নিরসনে উদ্যোগ

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) দুই শিক্ষার্থীর বহিষ্কারাদেশ ও অনশন কর্মসূচি ঘিরে সৃষ্ট অস্থিতিশীল অবস্থা বন্ধে উদ্যোগ নিয়েছেন সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। আজ সকালে তিনি প্রশাসনিক ভবনের সামনে অনশনরত শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলেন। এ সময় সেখানে খুবি উপাচার্য ড. মোহাম্মদ ফায়েকউজ্জামানসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

পরে শিক্ষার্থীদের পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দল মেয়রের সাথে সাক্ষাৎ করেন এবং তার আশ্বাসের প্রেক্ষিতে অনশনরত শিক্ষার্থী মোহাম্মদ মোবারক হোসেন নোমান ও ইমামুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বরাবর চিঠি দিয়েছেন। ওই চিঠিতে ‘ছাত্রদের যৌক্তিক পাঁচ দফা আন্দোলনে যারা জড়িত ছিলেন তাদের শাস্তির আওতায় আনা যাবে না বলে’ দাবি জানানো হয়েছে। অনশনরত শিক্ষার্থী ইমামুল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, তাদের বিরুদ্ধে অন্যায্য বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার না করা পর্যন্ত তারা অনশনস্থল ত্যাগ করবেন না। এদিকে ছাত্রদের ওই চিঠিতে মেয়রের সুপারিশ নেওয়ার পর তা খুবি কর্তৃপক্ষকে দেওয়া হবে। 

এদিকে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইজন শিক্ষকের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণের কারণে দুই ছাত্রের শাস্তির প্রেক্ষিতে কাম্পাসে যে অস্থিতিশীল পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে, এ বিষয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়  শিক্ষক সমিতি উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এক বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ জানান, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-রাজনীতি মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, কিন্তু বহিষ্কারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন রাজনৈতিক প্লাটফর্ম থেকে বিভ্রান্তিকর, অসত্য তথ্য ও বক্তব্য তুলে ধরা হচ্ছে; যা এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে। এমতাবস্থায় আইনানুগ প্রক্রিয়ায় সুষ্ঠু সমাধানের জন্য কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করছি।

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মো. ওয়ালিউল হাসানাত এবং সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. তানজিল সওগাত।  

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর