শিরোনাম
প্রকাশ : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:৩৬
প্রিন্ট করুন printer

বরিশালে বিএনপির সমাবেশে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ

নিরপেক্ষ নির্বাচন আদায়ে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান

রাহাত খান, বরিশাল

নিরপেক্ষ নির্বাচন আদায়ে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম বলেছেন, আগামীতে বিএনপি আবার ক্ষমতায় আসবে নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে। নির্বাচন নিরপেক্ষ আদায়ের আন্দোলনে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান তিনি। 

নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবিতে বৃহস্পতিবার বিকেলে বরিশাল নগরীর জিলা স্কুল মাঠে বিএনপি’র বিভাগীয় বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। 

বরিশাল মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ও বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ারের সভাপতিত্বে সমাবেশে হাফিজ উদ্দিন আহমেদ আরও বলেন, সবচেয়ে নিকৃষ্ট সরকারের সময় অতিবাহিত হচ্ছে। সরকার দেউলিয়াত্বের শেষ পর্যায়ে পৌঁছেছে। ’৭১ সালে দেশের আপামর জনগণ গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য মুক্তিযুদ্ধ করেছিল। কিন্তু দেশের কোথাও গণতন্ত্র নেই। সরকার ভোট ডাকাতি করে জনগণের ভোটের অধিকার হরণ করেছে। জনগণকে দেয়ার মতো এই সরকারের হাতে কিছুই অবশিষ্ট নেই বলে মন্তব্য করেন হাফিজ উদ্দিন আহমেদ। 

তিনি আরও বলেন, মেজর জিয়া ভারতের মধ্যে থেকে মুক্তিযুদ্ধ করেন নাই। তিনি সন্মুখ যুদ্ধ করে খেতাব পেয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সময় ৮০ হাজার মুক্তিযোদ্ধা ছিল, এখন আড়াই লাখ মুক্তিযোদ্ধা হয়েছে আওয়ামী লীগের বদৌলতে। এখন একটি কালো কোট গায়ে দিলেই মুক্তিযোদ্ধা হয়ে যায়।  

গত ৩টি নির্বাচনে তিনি নিজেই নিজের ভোট দিতে পারেননি বলে অভিযোগ করেন। সরকারের ১৬ জন সচিব ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা প্রমাণিত হওয়ার পরও সরকার তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। 

সমাবেশে স্লোগান দেয়া নিয়ে স্থানীয় ছাত্রদলের দুই গ্রুপের সংঘাতে বিরক্ত হয়ে হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, স্লোগান দিতে হবে রাজপথে। স্লোগান দিয়ে সমাবেশ নষ্ট করবেন না। মিছিল করতে হয় রাজপথে মিছিল করবেন। 

দেশব্যাপী নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবিতে বরিশালে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে অংশ নেয় দেশের ৬ সিটি করপোরেশনের বিএনপি’র প্রার্থীরা। 

ঢাকা দক্ষিণে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী ইসরাক হোসেন বলেন, এই সমাবেশে আসার সময় তাকে পথে পথে বাধা দেয়া হয়েছে। বরিশালের নেতাকর্মীদেরও বিভিন্ন স্থানে বাধা দেয়া হয়েছে। তারপরও শত বাধা উপেক্ষা করে বিভাগীয় সমাবেশ জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছে। এতে প্রমাণ হয় দেশের মানুষ বিএনপি’র সাথে আছে। নিরপেক্ষ নির্বাচন আদায়ের আন্দোলন বরিশাল থেকেই শুরু হয়েছে বলেন ইসরাক হোসেন। 

ঢাকা উত্তরে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেন, এই সরকারের অধিনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। আগামীতেও সুষ্ঠু হবে না। তাই এই সরকারকে বিদায় করতে হবে। 
   
চট্টগ্রামের ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, ইভিএম দিয়ে ভোট ডাকাতি করে তারা। ভোট ডাকাতির মাধ্যমে সকল সিটি করপোরেশন নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ করেছে তারা। 

রাজশাহীতে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল বলেন, আমরা রাতের ভোট চাই না। সকল নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ করায় নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ দাবি করেন তিনি।  

খুলনায় বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, দেশে ভোট ডাকাতির মডেল চালু হয়েছে। ভোট ডাকাতির রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের প্রথম শিকার তিনি নিজে। 

মহানগর বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জিয়াউদ্দিন সিকদার জিয়ার সঞ্চালনায় মহানগর বিএনপি আয়োজিত সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপি নেতা হাবিবুল ইসলাম হাবিব, বিএনপি’র বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন, সহসাংগঠনিক সম্পাদক আ ক ন কুদ্দুসুর রহমান, আবুল হোসেন খান, আক্তারুজ্জামান শামীম, এএইচএম তসলিম উদ্দিনসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। 

এর আগে দুপুর আড়াইটার দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিক্ষোভ সমাবেশ শুরু হয়। মহানগরীর বিভিন্ন ওয়ার্ড ছাড়াও বিভাগের ৬ জেলা থেকে নেতাকর্মীরা দলে দলে সমাবেশস্থলে আসতে শুরু করেন। যদিও পথে পথে তারা তাদের উপর ক্ষমতাসীনদের হামলা এবং পুলিশি হয়রানির অভিযোগ করেন। 

সমাবেশস্থলে যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে জিলা স্কুল ক্যাম্পাসের বাইরে পুলিশের সাঁজোয়া যান, জলকামান এবং রেকার মোতায়েন করা হয়। এছাড়া পুরো সমাবেশ ঘিরে মোতায়েন করা হয় বিপুল সংখ্যক পুলিশ। 

নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবিতে সারা দেশের সব বিভাগীয় শহরে সমাবেশ করবে বিএনপি। যার প্রথমটি অনুষ্ঠিত হলো বরিশালে।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২২:৫৬
প্রিন্ট করুন printer

নির্বিঘ্নে ভোট দেয়ার নিশ্চয়তা চাইল চারঘাট বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী:

নির্বিঘ্নে ভোট দেয়ার নিশ্চয়তা চাইল চারঘাট বিএনপি

নেতা-কর্মীদের নিরাপত্তাসহ ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারে সে নিশ্চয়তার দাবিতে রাজশাহীতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন চারঘাট পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী মোহাম্মদ জাকিরুল ইসলাম বিকুল। 

শক্রবার বিকেলে নগরীর বিএনপি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি নির্বাচন কমিশন এবং প্রশাসনের নিকট এ দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে দুইদিন রাজশাহীতে অবস্থান করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আপনি তো ঘর থেকে বের হন না। ঘরে থেকেই মাঝে মাঝে মুখ বাড়িয়ে বলেন, আওয়ামী লীগ গণতান্ত্রিক সরকার, জনগণের সরকার। বাইরে বের না হলে তো আপনি বুঝতে পারবেন না যে আওয়ামী লীগ কার সরকার আর কেমন সুষ্ঠু নির্বাচন হচ্ছে।

বিএনপির মনোনিত প্রার্থী বিকুল আরো বলেন, বিগত ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ তারিখে অনুমানিক সকাল ৭টার দিকে চারঘাট বাজারে আমার পোস্টার লাগানাের সময় আমার প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর লোকজন লাঠি সোটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে চারঘাট বাজারে অবস্থান নেয়। এরপরে সকাল সাড়ে ১০ টার সময় আমি মায়ের কবর জিয়ারত করে প্রচার-প্রচারণার উদ্দেশে নেতাকর্মীসহ চারঘাট বাজারের দিকে রওনা হলে পূর্ব থেকে অবস্থান করা আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর লোকজন আমার প্রচারণায় বাধা সৃষ্টি করে। এক পর্যায়ে আমি এবং আমার নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। তারা এসময় দেশীয় অস্ত্রের পাশাপাশি ককটেল নিক্ষেপ করে আমাদের নিরস্ত্র নেতা কর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ ঘটনায় আমাদের বিরুদ্ধেই বিস্ফোরক আইনেসহ দুটি মামলা দায়ের করা হয়। এরপর থেকেই আমার সকল নির্বাচনী কার্যক্রমে তার বাধা দিচ্ছে।

তবে অভিযোগের বিষয়ে চারঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান ফখরুল ইসলাম বলেন, বিএনপি নির্বাচনে নিশ্চিত পরাজয় বুঝতে পেরেই সংবাদ সম্মেলন করে মিথ্যা অভিযোগ করছে। এটা নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার তাদের কৌশল।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২১:১৭
প্রিন্ট করুন printer

ক্রিকেট খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে কিশোরকে ছুরিকাঘাতে খুন

কুমিল্লা প্রতিনিধি

ক্রিকেট খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে কিশোরকে ছুরিকাঘাতে খুন
মোহাম্মদ আমিন

কুমিল্লা নগরীতে ক্রিকেট খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে মোহাম্মদ আমিন (১৫) নামে এক কিশোরকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। তার বুকে ও পিঠে ছুরিকাঘাত করা হয়। 

শুক্রবার নগরীর শেখ ফজিলাতুন্নেছা মডার্ন হাই স্কুলের পেছনে বিসিক এলাকার মাঠে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত কিশোর কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলার পালাসুতা গ্রামের প্রবাসী নোয়াব মিয়ার ছেলে। তার পরিবার নগরীর ঠাকুরপাড়া এলাকার পুরাতন কাস্টমস গোডাউনের সামনে একটি বাড়িতে ভাড়া থাকেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, শুক্রবার নগরীর শেখ ফজিলাতুন্নেছা মডার্ন হাই স্কুলের পেছনে বিসিক এলাকার ভেতর মাঠে কিশোর মোহাম্মদ আমিনকে ছুরিকাঘাত করে মো. পারভেজ (২২) নামে অন্য এক কিশোর। পারভেজ কুমিল্লা নগরীর ঠাকুরপাড়া বেসরকারি পলিটেকনিকেল ইনস্টিটিউট সংলগ্ন বাসিন্দা মো. শাহ আলমের ছেলে। পারভেজ কুমিল্লায় একজন ডেলিভারিম্যান হিসেবে কাজ করে।

কোতয়ালী মডেল থানার এসআই সাধন কান্তি চৌধুরী জানান, তার বুকে ও পিঠে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। মরদেহ মর্গে রাখা হয়েছে। আমরা সুরতহাল করেছি। ময়নাতদন্ত করা হবে। 

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২১:০৪
প্রিন্ট করুন printer

ভুয়া অ্যাকাউন্টে স্ত্রী তামিমাকে নিয়ে প্রোপাগান্ডা ছড়ানো হচ্ছে: দাবি নাসিরের

অনলাইন ডেস্ক

ভুয়া অ্যাকাউন্টে স্ত্রী তামিমাকে নিয়ে   প্রোপাগান্ডা ছড়ানো হচ্ছে: দাবি নাসিরের
স্ত্রী তামিমা সুলতানার সঙ্গে নাসির হোসেন

জাতীয় দলের ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও বিমানবালা তামিমা সুলতানার বিয়ে নিয়ে চলছে তোলপাড়। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে নানা ধরনের আলোচনা-সমালোচনা। অভিযোগ উঠেছে, স্বামী রাকিব হাসানকে তালাক না দিয়েই নাসিরকে বিয়ে করেছেন তামিমা।

এদিকে, নাসির ও তামিমা দাবি করেছেন, তাদের নামে ভুয়া অ্যাকাউন্ট খুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় মিথ্যা তথ্য ও প্রোপাগান্ডা ছড়ানো হচ্ছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় এ বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এক স্ট্যাটাস দিয়েছেন নাসির হোসেন।

ভেরিফাইড পেইজে দেয়া নাসির হোসেনের সেই স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো-

‘আমার প্রিয় শুভাকাঙ্ক্ষী, শুভার্থী ও ভক্তবৃন্দ, আপনাদের সদয় অবগতির জন্য আমি পুনরায় বিশেষভাবে জানাচ্ছি যে, আমার এই ফেসবুক পেজ ব্যতীত অন্য কোনো ফেসবুক অ্যাকাউন্ট/ প্রোফাইল/ পেইজ নেই। আমার স্ত্রী তামিমা সুলতানারও কোনো ফেসবুক অ্যাকাউন্ট/ প্রোফাইল/ পেইজ নেই। অত্র ফেসবুক পেইজটিই আমার অফিশিয়াল এবং একমাত্র ফেসবুক পেইজ। এই ফেসবুক পেইজ ব্যতীত অন্য যে সমস্ত ফেসবুক অ্যাকাউন্ট/ প্রোফাইল/ পেইজ নকলভাবে/ জালিয়াতির মাধ্যমে আমার অথবা আমার স্ত্রীর নামে তৈরি করা হয়েছে বা বর্তমানে বিদ্যমান আছে সেইগুলি সমস্তই নকল/জাল, যার প্রকৃত উদ্দেশ্য হচ্ছে প্রতারণার মাধ্যমে আমাদের লাঞ্ছিত ও অপদস্ত করা। আমাদের নামে সৃজিত সেই সমস্ত  ফেসবুক অ্যাকাউন্ট/ প্রোফাইল/ পেইজ থেকে যেসমস্ত বিভ্রান্তিকর তথ্য/ স্ট্যাটাস আপনাদের কাছে প্রকাশ/শেয়ার করা হচ্ছে তার সমস্তই মিথ্যা, বানোয়াট এবং ভিত্তিহীন। এমতাবস্থায় আমি আমার সকল বন্ধু, ভক্ত এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের অনুরোধ জানাচ্ছি যে আপনারা অনুগ্রহপূর্বক সেই সমস্ত নকল/জাল ফেসবুক অ্যাকাউন্ট/ প্রোফাইল/ পেইজ থেকে প্রদানকৃত বিভ্রান্তিকর তথ্য/ স্ট্যাটাস বিশ্বাস করবেন না এবং উক্ত বিভ্রান্তিকর  তথ্য/ স্ট্যাটাস শেয়ার করবেন না। এই ফেসবুক পেইজ ব্যতীত আমাদের নামে সৃজিত সেই সমস্ত নকল/জাল ফেসবুক অ্যাকাউন্ট/ প্রোফাইল/ পেইজ থেকে প্রকাশকৃত/পরিবেশনকৃত কোনো বিভ্রান্তিকর, মিথ্যা, বানোয়াট এবং ভিত্তিহীন তথ্যের জন্য আমি অথবা আমার স্ত্রী দায়ী নই। আমি অথবা আমার স্ত্রী যদি কোনো তথ্য/সংবাদ আপনাদের নিকট প্রকাশ/পরিবেশন করতে চাই তবে আমরা এই ফেসবুক পেইজ এর মাধ্যমে অথবা গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার প্রদানের মাধ্যমে তা প্রকাশ করবে।’

নাসির হোসেন আরো লেখেন,‘এই সময়ে আমাদের পাশে থাকার জন্য এবং আমাদের সহায়তা করার জন্য আমি আমার সকল ভক্ত, বন্ধু, শুভাকাঙ্ক্ষীদের নিকট আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞ। আমি আশা করি আপনারা সবাই আমাদের পাশে থাকবেন এবং আমাদের প্রতি আপনাদের ভালোবাসা এবং সমর্থন অব্যাহত রাখবেন। সবাইকে  আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ।’

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:৫২
প্রিন্ট করুন printer

রাজধানীতে বিএনপির মশাল মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জের অভিযোগ

অনলাইন ডেস্ক

রাজধানীতে বিএনপির মশাল মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জের অভিযোগ
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী মশাল মিছিলে নেতৃত্ব দেন। ছবি-সংগৃহীত

রাজধানীর বনানীতে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মশাল মিছিলে পুলিশ লাঠিচার্জ করেছে বলে অভিযোগ দলটির। সেখান থেকে বিএনপি নেতা আব্দুল হকসহ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দলের নেতারা। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী মশাল মিছিলে নেতৃত্ব দেন।

সাংবাদিক মুশতাক আহমদের কারাবন্দী অবস্থায় মৃত্যু, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের রাষ্ট্রীয় খেতাব বাতিলের উদ্যোগের প্রতিবাদ, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে পরোয়ানা ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সাজা দেওয়ার প্রতিবাদে আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বনানীতে এই মিছিল বের করেন নেতাকর্মীরা। 

বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের একাধিক নেতাকর্মী জানান, মিছিলে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সহ-সাধারণ সম্পাদক তারিকুল ইসলাম তেনজিং, বিএনপি নেতা এ এফ এম খালেদ, ফজলুর রহমান মন্টু, শিমুল হোসেন ফারুক, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা সুমন হোসেন, জিল্লুর রহমান রুপকসহ বহু নেতাকর্মী। 

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের উদ্যোগে আয়োজিত মিছিলটি সন্ধ্যায় বনানী বাজারের সামনে থেকে একটি মশাল মিছিল বের করেন তারা। মিছিলটি কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউ প্রধান সড়কে উঠে কাকলীর দিকে এগোতে থাকলে মিছিলের পেছনে পুলিশ ধাওয়া দেয়। এরপর লাঠিপেটা করে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ। পরে সেখান থেকে বিএনপি নেতা আব্দুল হকসহ কয়েকজনকে আটক করা হয়। 

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ 

 
 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:৪২
আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:৫২
প্রিন্ট করুন printer

মুশতাকের মৃত্যু: মশাল মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল নিক্ষেপ

অনলাইন ডেস্ক

মুশতাকের মৃত্যু: মশাল মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল নিক্ষেপ

কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে বামপন্থী কয়েকটি ছাত্র সংগঠন রাজধানীতে মশাল মিছিল করেছে। এতে বাধা দিয়েছে পুলিশ। এসময় দু’পক্ষের মধ্যে ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটে। পুলিশ লাঠিচার্জ ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে মিছিল ছত্রভঙ্গ করে দিয়েছে।

সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, ছাত্র ইউনিয়ন, বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীসহ বিভিন্ন প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীরা শুক্রবার সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় টিএসসি থেকে মশাল মিছিল বের করেন। 

মিছিলটি শামসুন্নাহার হল ঘুরে শাহবাগের জাদুঘরের সামনে গেলে পুলিশ বাধা দেয়। এ সময় পুলিশের সঙ্গে তাদের ধস্তাধস্তি হয়। এরপরই পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এতে ছত্রভঙ্গ হয়ে পিছু হটেন ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা। 

পরে তারা ঢাবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের পেছনে অবস্থান নেন। সেখানে আবার পুলিশের সঙ্গে বাগবিতণ্ডা হয়। এ সময় পুলিশের ওপর ইটপাটকেল ছুড়েন নেতাকর্মীরা। প্রথমে পুলিশ তাদের নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করে। পরে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পুলিশ।

এর আগে ২০১৮ সালে কোটা আন্দোলনের সময় ঢাবি এলাকায় টিয়ারশেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছিল। দুই বছর পর ঢাবিতে আবার টিয়ারশেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটল।

ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতাকর্মী এবং পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় বেশ কয়েকজন ছাত্র আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের ঢাবির নেতা আরাফাত সাদসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা মহানগর সংসদের সভাপতি তাসিন মল্লিক গণমাধ্যমকে জানান, বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের ১০-১২ জনের বেশি নেতাকর্মীরা আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে রয়েছেন- ছাত্র ইউনিয়নের ঢাবি শাখার সভাপতি সাখাওয়াত ফাহাদ, ছাত্র ইউনিয়নের ইংলিশ মিডিয়ামের ঢাকা মহানগরের আহ্বায়ক শ্রাবণ চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আশ্রাফি নিতু, ছাত্র ইউনিয়নের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সদস্য অন্তু অরিন্দম, শিক্ষা ও গবেষণা সম্পাদক নাজিফা জান্নাত।

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারের ভেতরেই মুশতাক হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে কারা হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাত ৮টা ২০ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

মুশতাক নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানার ছোট বালাপুর এলাকার আবদুর রাজ্জাকের ছেলে। ঢাকা মেট্রোপলিটনের রমনা মডেল থানার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গত বছরের ৬ মে ঢাকা জেলে এবং পরে ২৪ আগস্ট থেকে তিনি কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি ছিলেন।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর