বুধবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

আবার পেছাল ব্লগার অনন্ত হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

আবারও পেছাল ব্লগার অনন্ত বিজয় দাশ হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ। মামলার অন্যতম আসামি শফিউর রহমান ফারাবিকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে নিয়ে আসা সম্ভব না হওয়ায় গতকাল সাক্ষ্য গ্রহণ হয়নি। আদালতে তিন সাক্ষী উপস্থিত থাকলেও ফারাবিকে হাজির করতে না পারায় সাক্ষ্য গ্রহণ থেকে বিরত থাকেন সিলেট সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. নুরুল আমিন বিপ্লব। ১৯ জানুয়ারি সাক্ষ্য গ্রহণের পরবর্তী তারিখ ধার্য করেন তিনি। সাক্ষ্য গ্রহণ পেছানোর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট এমাদ উল্লাহ শহীদুল ইসলাম শাহীন।

তিনি জানান, ফারাবি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী। গতকাল তাকে সিলেট আদালতে হাজির করা হয়নি। তাই মামলার সাক্ষী ও তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির পরিদর্শক আরমান আলী, পুলিশ পরিদর্শক মাসুদ সিদ্দিকী ও উপ-পরিদর্শক সুহেল রানা আদালতে উপস্থিত থাকলেও তাদের সাক্ষ্য গ্রহণ করেননি বিচারক। তিনি জানান, মামলার ২৯ জন সাক্ষীর মধ্যে ইতিমধ্যে ২০ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। সাক্ষ্য গ্রহণ সম্পন্ন হলে মামলার বিচার প্রক্রিয়ায় আরও গতি আসত।

আদালত সূত্র জানায়, ২০১৫ সালের ১২ মে সকালে কর্মক্ষেত্রে যাওয়ার সময় নগরীর সুবিদবাজার নুরানী আবাসিক এলাকার দস্তিদার দীঘিরপাড়ে দুর্বৃত্তরা ব্লগার অন্তত কুপিয়ে হত্যা করে। পরে নিষিদ্ধ-ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিম এ হত্যাকান্ডের দায় স্বীকার করে বিবৃতি দেয়। সে রাতেই সিলেটের বিমানবন্দর থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন অনন্ত বিজয় দাশের ভাই রতেœশ্বর দাশ। মামলার তদন্তের দায়িত্ব প্রথমে থানা পুলিশের কাছে থাকলেও পরে তা সিআইডির কাছে হস্তান্তর করা হয়। ২০১৬ সালের ১৮ অক্টোবর সিআইডির পরিদর্শক আরমান আলী অভিযোগপত্র দাখিল করলে আদালত পুনঃ তদন্তের নির্দেশ দেন। পরে ২০১৭ সালের ৯ মে সম্পূরক অভিযোগপত্র দিলে আদালত তা গ্রহণ করেন।

অভিযোগপত্রে আসামি করা হয় শফিউর রহমান ফারাবি, মান্নান ইয়াহইয়া ওরফে মান্নান রাহী, আবুল খায়ের রশীদ আহমেদ, আবুল হোসেন ওরফে আবুল হুসাইন, হারুনুর রশীদ ও ফয়সল আহমেদকে। এদের মধ্যে ফারাবি ও আবুল খায়ের জেলে। ২০১৭ সালের ২ নভেম্বর কারান্তরীণ অবস্থায় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে মারা যান মান্নান। মামলার বাকি তিন আসামি এখনো পলাতক।

সর্বশেষ খবর