শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৮ জুন, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ জুন, ২০১৯ ২৩:২০

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত অর্ধশত

মহাসড়কে এক ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত অর্ধশত

ঢাকা-সিলেট ও কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কে গতকাল শুক্রবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিশ্বরোড মোড়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষে পুলিশসহ অন্তত অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়েছে। এ সময় ওই মহাসড়কে প্রায় ১ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ ছিল। মহাসড়কের উভয় পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত জেলার সরাইল উপজেলার কুট্টাপাড়া ও সদর উপজেলার খাটিহাতা গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আহতদের স্থানীয় ও জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকালে বিশ্বরোড মোড়ে সরাইল উপজেলার কুট্টাপাড়া গ্রামের সোলাইমান মিয়ার ছেলে কালু কসাইয়ের (৪৫) কাছে গরুর মাংস কিনতে আসে পার্শ্ববর্তী খাটিহাতা গ্রামের আবদুল খালেক মিয়ার ছেলে ধন মিয়া। মাংসে হাড়ের পরিমাণ বেশি দেওয়া নিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে দুজনের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। কালু কসাইয়ের হাতে থাকা ছুরি দিয়ে আবদুল খালেকের ছেলে ধন মিয়াকে হাতে আঘাত করে। এতে কুট্টাপাড়া গ্রামের রফিজ উদ্দিনের ছেলে দিপু তাকে জিজ্ঞাসা করলে থাকেও ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাত করে। খবর পেয়ে দুই পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে সরাইল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর ও খাটিহাতা হাইওয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেট ছুড়ে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষে পুলিশসহ উভয়পক্ষের অধর্শতাধিক লোক আহত হয়েছে। আহতরা গ্রেফতার আতঙ্কে শহরের বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা নেয়। নাসিরনগরে একজন নিহত : নাসিরনগর উপজেলার ফান্দাউক ইউনিয়নের আতিকুড়া গ্রামে গতকাল শুক্রবার বিকালে দুই দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে ফুল মিয়া-(৬০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হন। এ সময় উভয়পক্ষের ১৫ জন আহত হয়েছেন। ফসলি জমিতে গরু ঘাস খাওয়াকে কেন্দ্র করে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসী জানান, গত তিনদিন আগে আতিকুড়া গ্রামের ফুল মিয়ার জমির ধান খেয়ে ফেলে একই এলাকার আক্কাস মিয়ার গরু। এ ঘটনায় উভয়ের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরে ফান্দাউক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিষয়টি মীমাংসার জন্য শুক্রবার বিকালে দুই পক্ষকে নিয়ে শালিস সভায় বসেন। এর মধ্যে আবার উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। এক পর্যায়ে শালিস সভা সংঘর্ষে রূপ নেয়। বিকালে উভয়পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে ফুল মিয়া ঘটনাস্থলেই নিহত এবং উভয়পক্ষের ১৫ জন আহত হন বলে ঘটনাস্থলে থাকা নাসিরনগর থানার এসআই মো. কাউছার জানান। তবে বৃদ্ধের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর