শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৩ মে, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ মে, ২০২০ ২৩:৩৯

হামলা লুট আগুনের গ্রাম রুপাপাত

কামরুজ্জামান সোহেল, ফরিদপুর

হামলা লুট আগুনের গ্রাম রুপাপাত

এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে এক যুবক নিহতের পর বোয়ালমারীর রুপাপাত গ্রাম ‘নরকে’ পরিণত হয়েছে। গত দুই দিন ধরে এ গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২০-২২টি ঘরবাড়ি। গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে কয়েকটি আধাপাকা ঘর। অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে ১০টি বাড়ি। বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়ার পর প্রকাশ্যে চলছে লুটপাট। প্রতিপক্ষের লোকজন হামলার ভয়ে পালিয়ে থাকায় সুযোগে দিনের বেলায়ও চালানো হচ্ছে তা-ব। অভিযোগ আছে, হামলা-লুটপাট থেকে রেহাই পাচ্ছে না অনেক নিরীহ পরিবার। ভয়ে গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে শতাধিক পরিবারের কয়েকশ’ সদস্য। সরেজমিনে গত বুধবার রুপাপাত গ্রামে গিয়ে দেখা যায় নৃসংশতার নানা চিহ্ন। গ্রামের অনেকে ভয়ে মুখ খুলতে চান না। কয়েকজন মুরব্বি জানান, মুক্তিযুদ্ধের সময় পাক বাহিনী যেভাবে বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিয়ে লুটপাট চালিয়েছিল তার চেয়ে ভয়াবহ অবস্থা বিরাজ করছে এখানে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন জানান, রুপাপাত গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ চলছিল মোশাররফ মাস্টারের সঙ্গে ইউপি সদস্য ইলিয়াসের। তারা দুজনই আওয়ামী লীগের সমর্থক। তাদের বিরোধের জেরে গত ১৯ মে দুই পক্ষে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষের সময় মোশাররফের পক্ষের বাকিয়ার নামে এক যুবক নিহত হন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মোশাররফের লোকজন প্রতিপক্ষের বাড়িঘরে হামলা-ভাঙচুর চালায়। ওই দিন রাতে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয় ১০টি বাড়ি। বাকিয়ার খুনের পর হামলার ভয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায় ইলিয়াসের সমর্থকেরা। এই সুযোগে চালানো হয় লুটপাট। দিনের বেলা লুটপাট করে মালামাল নসিমন-ভ্যানযোগে নিয়ে যেতে দেখা গেছে। যাদের বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে তাদের মধ্যে রয়েছেন ইলিয়াস মেম্বার, বাবলু শেখ, নাসির শেখ, ওবায়দুর রহমান, রবিউল শেখ, নান্নু খান, সূর্য্য মিয়া, আহাদ খান। জানা যায়, প্রতিপক্ষের লোকজন গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ায় সুযোগসন্ধানী একটি পক্ষ দিনের বেলায়ও লুটপাট করে মালামাল নিয়ে যাচ্ছে। কেটে নেওয়া হচ্ছে মাঠ থেকে ফসলও। অনেক নিরীহ লোকের বাড়িতেও হামলা-লুটপাট হচ্ছে যারা কোনো পক্ষের লোক নয়। গ্রামটিতে পুলিশ প্রহরা থাকলেও তাদের উপস্থিতিতে এখনো লুটপাট চলছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। বোয়ালমারী থানার ওসি আমিনুর রহমান জানান, খুনের ঘটনায় জড়িত কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। ওই গ্রামে মোতায়েন রাখা হয়েছে পুলিশ। হত্যাকা- এবং ঘরবাড়ি ভাঙচুরে জড়িতদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।


আপনার মন্তব্য