শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৬ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ জুলাই, ২০২১ ২৩:২৭

সংক্ষিপ্ত

সংক্ষিপ্ত
Google News

ছেলে করোনা আক্রান্ত শুনে মায়ের মৃত্যু, মারা গেলেন বাবাও

ছেলে করোনা আক্রান্ত হয়ে আইসিইউতে ভর্তি হয়েছে- এমন খবর পেয়ে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মা মারা যান। পরবর্তীতে করোনা আক্রান্ত ওই  ছেলের মৃত্যুর খবরে হৃদরোগে মারা গেলেন বাবাও। সিরাজগঞ্জের সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়নের সদানন্দপুর গ্রামে মাত্র তিন দিনের ব্যবধানে একই পরিবারের তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন- সদানন্দপুর গ্রামের আবদুল মান্নান সিদ্দিকী (১০৫), তার স্ত্রী রাবেয়া বেগম (৯৫) ও তাদের ছেলে ল্যান্স করপোরাল (অব.) শহিদুল ইসলাম স্বপন (৬৫)। গত শনিবার বিকালে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাবা ও ছেলের মরদেহ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন কর হয়। এর আগে ঈদের দিন বুধবার মা রাবেয়া বেগম মারা গেলে তাকেও দাফন করা হয়েছে।  জানা গেছে, সপ্তাহখানেক আগে করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি হন শহিদুল ইসলাম স্বপন। গত বুধবার তার অবস্থা খারাপ হওয়ায় ওই হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসকদের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। এদিকে ছেলের অবস্থা খারাপ শুনে তার মা রাবেয়া বেগম ঈদের দিন দুপুরে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।                

অপরদিকে, গত শনিবার ছেলে শহিদুল ইসলাম স্বপন মারা যান। তার মৃত্যুর খবর শুনে দুপুরের দিকে বাবা আবদুল মান্নান সিদ্দিকীও হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। 

সয়দাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য খোরশেদ আলম খলিল জানান, শনিবার বিকালে স্বাস্থ্যবিধি  মেনে বাবা-ছেলের জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এর আগে একই কবরস্থানে মাকে দাফন করা হয়েছে।

-সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি


বাড়ির মালিককে অপহরণের অভিযোগ

গাজীপুরের টঙ্গী দত্তপাড়া হাসান লেন এলাকা থেকে বাড়ির মালিক হানিফ আলীকে অপহরণ করে ক্যাফে সুলতান নামক একটি রেস্টুরেন্টে আটকে রেখে মারধর করার ঘটনা ঘটে। পরে মুক্তিপণ হিসেবে পাঁচতলা বাড়ি লিখে দেওয়ার জন্য হানিফের স্ত্রীকে চাপ প্রয়োগ করেন অপহরণ চক্রের সদ্যসরা। পরে হানিফের স্ত্রী থানায় অভিযোগ করলে ঘটনার দিন শনিবার রাতে অপহরণ চক্রের হোতা কামরুল হাসান, আতাউর রহমান, মেহেদী হাসান, মাহফুজ আহমেদ ও শরীফ রানা বাবুকে গ্রেফতার করে পূর্ব থানা পুলিশ। হানিফের স্ত্রী জানান, তাঁর স্বামী হানিফ আলী ও কামরুল হাসান মিলে দত্তপাড়া হাসান লেন এ একটি পাঁচতলাবিশিষ্ট বাড়ি নির্মাণ করেন। এক পর্যায়ে কামরুল হাসান হানিফ আলীর অংশ কিনে নিতে চান। কিন্তু হানিফ আলী বাড়ির অংশ বিক্রি না করায় ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন কামরুল। এরই জের হিসেবে ওই দিন রাতে কামরুল হাসান ও তাঁর লোকজন হানিফ আলীকে অপহরণ করে।                -টঙ্গী প্রতিনিধি

 


 ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৃথক সংঘর্ষে আহত ২০

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদরে ও আখাউড়ায় পৃথক সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০জন আহত হয়েছে। এ সময় বেশ কিছু বাড়িতে হামলা চালায় দাঙ্গাবাজরা। গতকাল সকালে সদর উপজেলার সুলতানপুরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ১০জন আহত হয়। জানা যায়, সুলতানপুর ইউনিয়নের মহিউদ্দিননগর গ্রামের হাজী বাড়ির মিজান মিয়ার সঙ্গে ফাইজুল মিয়ার পরিবারের সঙ্গে বাড়ির সামনের খাস জমি দখল নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে কয়েকবার সালিশের মাধ্যমে মীমাংসা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে এক পক্ষ মানলে অপর পক্ষ সালিশের সিদ্ধান্ত অমান্য করে বিরোধ করে আসছিল। এর জের ধরে গতকাল সকালে উভয়পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সশস্ত্র সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এ সময় উভয়পক্ষের কমপক্ষে ১০জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় শফিকুল ইসলামকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। বাকি আহতদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা ও ভর্তি করা হয়েছে। সদর থানার ওসি বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে  মোতায়েন রয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।     

তবে এখনো কোনো পক্ষই লিখিত অভিযোগ দায়ের করেননি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এদিকে, জেলার আখাউড়ায় পূর্ব বিরোধের জেরে এক ইউপি সদস্য আওয়ামী লীগ নেতার বাড়িতে হামলা ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলার মোগড়া ইউনিয়নের নয়াদিল গ্রামের সহিদুল ইসলামের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। তিনি মোগড়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য। হামলায় নারীসহ ১০ জন আহত হয়েছে। আহতরা হলো হিরন মিয়া, সবুজ মিয়া, সুলমান, শানু মিয়া, সরুফা বেগম সাফিয়া বেগম ও আল আমিনসহ অন্যরা। আহতদের মধ্যে দুই নারী ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। অন্যরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছেন। এ ঘটনায় পুলিশ স্বপন মিয়াকে আটক করেছে।  জানা গেছে, সহিদুল ইসলামের সঙ্গে একই গ্রামের স্বপন মিয়া, বাবুল মিয়া, অহাব মিয়া, মতিন মিয়াসহ বিরোধ চলে আসছিল। এর জের ধরে শনিবার সন্ধ্যায় অহাব মিয়া ও মতিন মিয়ার নেতৃত্বে লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সহিদুল ইসলামের বাড়িতে অতর্কিত হামলা করে নারী-পুরুষকে বেদম মারধর করে। খবর পেয়ে আখাউড়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে স্বপন মিয়াকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান বলেন,  পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একজনকে আটক করেছে। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

-ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি


শাশুড়িকে দাফন করতে গিয়ে নিজেই হলেন লাশ

শাশুড়িকে দাফন করতে গিয়ে নিজেই লাশ হলেন ফরিদপুর চরভদ্রাসনের গাজীরটেক ইউনিয়নের বালাডাঙ্গী গ্রামের মিন্টু ফকির (৩৪)। গত শনিবার রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পানিতে ভাসমান ১টি লাশের ছবি দেখে মিন্টুকে শনাক্ত করে তার পরিবার। মিন্টুর বাবা আয়নাল ফকির জানান, গত ১৯ জুলাই সোমবার শাশুড়ির মৃত্যুর খবর পেয়ে দাফনের উদ্দেশে হরিরামপুর ইউনিয়নের হাজারবিঘা গ্রামে শ্বশুরবাড়ি যায় মিন্টু। মঙ্গলবার দিন শেষে যোগাযোগ হয় মিন্টুর সঙ্গে। এর পর মিন্টুর শ্বশুরবাড়িতে যোগাযোগ করলে মিন্টু বাড়ি চলে গেছে বলে তারা জানান। পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি দেখে খোঁজ নিয়ে মানিকগঞ্জ জেলার হরিরামপুর থানা পুলিশ লাশটি উদ্ধার করেছে।

মিন্টুর দেড় বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। এ বিষয়ে হরিরামপুর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক মো. দেলোয়ার হোসেন জানান গত ২২ জুলাই বৃহস্পতিবার চরভদ্রাসন ও হরিরামপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা আজিম নগর ইউনিয়নের সিকারপুর গ্রামের একটি খাল থেকে ভাসমান অবস্থায় ওই লাশটি উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিকভাবে লাশের পরিচয় না পাওয়ায় ময়নাতদন্ত শেষে বেওয়ারিশ হিসেবে মানিকগঞ্জ পৌরসভার মাধ্যমে তার দাফন করা হয়।

-চরভদ্রাসন প্রতিনিধি

এই বিভাগের আরও খবর