শিরোনাম
প্রকাশ : ১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ১২:১৯
আপডেট : ১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ১৪:১৫

মেঘনায় ৭ ঘণ্টা আটকে থাকা লঞ্চের ৫ শতাধিক যাত্রীকে উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল ও বরগুনা প্রতিনিধি

মেঘনায় ৭ ঘণ্টা আটকে থাকা লঞ্চের ৫ শতাধিক যাত্রীকে উদ্ধার

বরিশালের মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার কালীগঞ্জ সংলগ্ন মেঘনা নদীর চরে আটকে পড়ার ৭ ঘণ্টা পর বরগুনা থেকে ঢাকাগামী নৌযান এমভি শাহরুখ-২ লঞ্চের ৫ শতাধিক যাত্রীকে উদ্ধার করেছে কর্তৃপক্ষ।

গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩টায় ঢাকাগামী লঞ্চটি চরে আটকে পড়ার পর বুধবার সকাল ১০টায় একই কোম্পানীর মালিকানাধীন এমভি পূবালী-১ নামে একটি লঞ্চ ওই যাত্রীদের উদ্ধার করে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। 

এমভি শাহরুখ-২ লঞ্চের মালিক মাসুম খান জানান, মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় বরগুনা থেকে যাত্রী নিয়ে লঞ্চটি (এমভি শাহরুখ-২) ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। ওইদিন রাত ৩টার দিকে মেঘনা নদীর কালীগঞ্জ এলাকা অতিক্রমকালে লঞ্চটি একটি ডুবো চরে আটকে যায়। অনেক চেষ্টা করেও লঞ্চটি নামানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। ভাটার সময় চরটি পরোপুরি জেঁগে উঠলে একই কোম্পানীর এমভি পূবালী-১ নামে অপর একটি লঞ্চ বুধাবর সকাল ১০টায় আটকে পড়া লঞ্চ যাত্রীদের উদ্ধার করে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। পূর্ণ জোয়ার হলে লঞ্চটি চর থেকে নামানোর কথা বলেন তিনি। 

মাসুম খান অভিযোগ করেন, শীত মৌসুমে বরিশালের হিজলা ও চাঁদপুরের মধ্যবর্তী মেঘনা নদীর 'মিয়ারচর' চ্যানেলে নাব্যতা সংকট থাকায় সেখান থেকে নৌযান চলাচল করতে পারে না। বিকল্প পথ মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার কালীগঞ্জ চ্যানেল ব্যবহার করতে হয়। কালীগঞ্জের ৩ দশমিক চার নটিক্যাল মাইল পথ পাড়ি দিতে গিয়ে অতিরিক্ত দেড়শ’ লিটার জ্বালানী এবং সময় খরচ হয়। সতর্কভাবে নৌযান চালানোর পরও কালীগঞ্জ চ্যানেলে আটকা পড়লো যাত্রীবাহী নৌযান। 

বরিশাল নদী বন্দর কর্মকর্তা আজমল হুদা মিঠু সরকার জানান, ঢাকা থেকে বরগুনাগামী নৌযানটি চরে আটকা পড়লেও যাত্রীদের জানমালের কোন ক্ষতি হয়নি। ৭ ঘন্টা আটকে থাকার পর বুধবার সকাল ১০টার দিকে একই কোম্পানীর আরেকটি লঞ্চে ওই যাত্রীদের উদ্ধার করে ঢাকার গন্তব্যে পাঠানো হয়েছে। লঞ্চটি বিকেলে মধ্যে ঢাকার সদরঘাটে পৌঁছার কথা। চরে আটকে পড়া এমভি শাহরুখ-২ লঞ্চটি চর থেকে নামানোর পাশাপাশি কালীগঞ্জ চ্যানেলের নাব্যতা বাড়াতে শিঘ্রই সেখানে ড্রেজিং কাজ শুরুর কথা বলেন তিনি। 


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য