শিরোনাম
প্রকাশ : ৬ এপ্রিল, ২০২০ ১২:১৬

গোপালগঞ্জে ব্যতিক্রমী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসলিমা আলী

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি

গোপালগঞ্জে ব্যতিক্রমী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসলিমা আলী

একজন ব্যতিক্রমী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসলিমা আলী। তিনি কর্মরত আছেন গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলায়। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে অনেকে যখন সমালোচিত হচ্ছেন, তখন অনেকে আবার সাধারণ মানুষের কাছে নন্দিত হচ্ছেন। সে রকম একজন উপজেলা কর্মকর্তা তাসলিমা আলী। 

তিনি সব সময় মুকসুদপুর উপজেলার ১৬ টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার সব ধরনের মানুষের খোঁজ খবর রাখছেন। এলাকার জন প্রতিনিধি থেকে শুরু করে ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের প্রতিনিয়ত সুবিধা অসুবিধার খোঁজ খবর রাখছেন এবং সমাধানের চেষ্টা করে যাচ্ছেন। 

মুকসুদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসলিমা আলী জানান, রবিবার উপজেলার জলিলপাড় গুছ্ছগ্রামে ২৫০ পরিবার ও দ্বিগনগর আশ্রায়ন কেন্দ্রে ৮০ পরিবারকে ১৫ কেজি চাউল, ১ কেজি ডাল, ২ কেজি আলু, ১ কেজি পিয়াজ, আধা কেজি লবণ, আধা লিটার তেল প্রতি পরিবারকে প্রদান করা হয়েছে। 

এছাড়া প্রতিদিন সরকারি, বেসরকারি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহাম্মদ ফারুক খানের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে অসহায় দুস্থ মানুষের বাড়ি বাড়ি খাদ্য সহায়তা পৌছে দেয়া হচ্ছে। 

শনিবার দলীয় নেতাকর্মীদের মাধ্যমে গোপালগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য লে. কর্নেল (অবঃ) মুহাম্মদ ফারুক খানের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে মুকসুদপুর উপজেলার এক হাজার নয়শত পরিবার ও কাশিয়ানি উপজেলার আটশত পরিবারকে খাদ্য সহায়তা হিসেবে ১০ কেজি চাউল, ২কেজি ডাল, আধা লিটার তেল ও একটি সাবান প্রদান করা হয়েছে।

এমপি ফারুক খান ব্যক্তিগত তহবিল থেকে কাশিয়ানী ও মুকসুদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সের চিকিৎসকদের পার্সোনাল প্রটেকটিভ ইক্যুইপমেন্ট (পিপিই) ও সার্জিকাল মাস্ক দিয়েছেন। জনগণের মাঝে মাস্ক ও জনসচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেছেন। তিনি নির্বাচনী এলাকার প্রতিটি ইউনিয়নে একজন করে চিকিৎসককে জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্য দায়িত্ব দিয়েছেন। যারা হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন তাদের সঙ্গে দিনে একাধিকবার যেন চিকিৎসকরা যোগাযোগ করেন সে নির্দেশনা দিয়েছেন। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে জীবাণুনাশক স্প্রে করার জন্য তিনি কাশিয়ানী ও মুকসুদপুর উপজেলা প্রশাসনের উপর দায়িত্ব দিয়েছেন। যা গত সোমবার থেকে শুরু হয়েছে।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য