শিরোনাম
প্রকাশ : ৮ এপ্রিল, ২০২০ ০৫:১৮
আপডেট : ৮ এপ্রিল, ২০২০ ০৯:৫৫

করোনা প্রতিরোধে হালুয়াঘাটের চিত্রশিল্পীর ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

হালুয়াঘাট (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

করোনা প্রতিরোধে হালুয়াঘাটের চিত্রশিল্পীর ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

মহামারি করোনাভাইরাস মোকাবেলায় আতঙ্ক নয়, জনস্বার্থে সকলকেই সতর্ক থাকার পরামর্শ সরকারের। এ লক্ষ্যে দেশের প্রতিটি অলিগলিতে সর্বত্রই করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মোকাবেলায় চলছে নানামূখী প্রচারাভিযান। সময় যতই যাচ্ছে করোনাভাইরাস ঠিক ততটাই মহামারী আকার ধারণ করে ধেয়ে আসছে। 

করোনার মোকাবিলায় চলছে লকডাউন। লকডাউন উপেক্ষা করেও কেউ কেউ জীবন-জীবিকা নির্বাহের পথে নামছে অনেকেই। পরিস্থিতি উত্তোরণে মানুষকে আরো বেশি সচেতন করতে ময়মনসিংহ জেলার হালুয়াঘাট উপজেলার চিত্রশিল্পী (আর্টিষ্ট) নুরুজ্জামান শেখ রতন নিয়েছেন ব্যতিক্রমী উদ্যোগে।

শেখ রতন হালুয়াঘাট-ময়মনসিংহ আঞ্চলিক সড়কে রংতুলি নিয়ে আর বাড়ির বাইরে কেউ নয়, ঘরেই থাকুন, মাস্ক ব্যবহার করুন, স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলুন। আবার কোথাও লেখা জনসমাগম পরিহার করুন- এ ধরণের উপদেশমূলক বার্তা লিখে মানুষকে উৎসাহ প্রদান করছেন পাশাপাশি ফুটিয়ে তুলছেন নিজেদের এলাকা। 

গত দু’দিন ধরে তার এমন শৈল্পিক কমকান্ডে নজর কেড়েছে জনসাধারণের। এক সময়ের সেরা আর্টিষ্ট বিশাল এই শিল্পকে ছেড়েই দিয়েছিলেন। জীবিকার তাগিদে নয় যখন বিশ্ব মানবতা আজ হুমকির মুখে দাঁড়িয়ে আবার নতুন করে তুলে হাতে নিলেন রং তুলি। 

প্রচারাভিযানের সেই শুরু থেকেই এখন পর্যন্ত শুধু রংতুলির আচঁড়েই থেমে থাকেননি তিনি। কর্মকান্ডের অংশ হিসেবে উপজেলার ধারা ইউনিয়নের হাট-বাজারে জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটিয়েছেন। তাছাড়া গুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহে হাত ধোয়ার সু-ব্যবস্থা থেকে শুরু করে সর্তকতা অবলম্বনে বিলি করেছেন লিফলেট। 

তার এই প্রচার-প্রচারণাকে একধাপ এগ্রিয়ে নিতে নিবিড় আগ্রহে সহযোগিতা করে যাচ্ছে ফাহিম, আকাশ ও আশিকসহ আরো কয়েক যুবক। সামাজিকভাবে এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন হালুয়াঘাট উপজেলা প্রশাসন। সেইসাথে তার সচেতনতামূলক লেখালেখি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ প্রত্যক্ষদর্শীদৈর দৃষ্টি আকর্ষণ করছে।

নুরুজ্জামান শেখ রতন বলেন, মূলত মানুষকে সচেতন করতেই এই পন্থা বেছে নিয়েছি। করোনাভাইরাস সম্পর্কে এখনও মানুষের সচেতনতার যথেষ্ট অভাব রয়েছে। সরকারিভাবে বার বার প্রচারণা পরও ঘরবন্দি থাকছে না অনেকেই। বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ প্রতিনিয়ত সড়কপথ দিয়েই যাতায়ত করে। করোনা সম্পর্কে সচেতনতামূলক লেখালিখতে সহজেই তা সবার চোখে পড়বে। প্রতিরোধ না হওয়া পর্যন্ত উপজেলার প্রতিটি সড়কজুড়ে লিখনী কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। দেশের অন্যত্র শহরগুলোতে এ ধরণের কার্যক্রম চালু রাখতে প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। 

সচেতনতা কার্যক্রম বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ বিপ্লব বলেন, ব্যক্তিগতভাবে রতনের এমন উদ্যোগ প্রশংসনীয় ও অনুকরণীয়। তার এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে প্রত্যেককে নিজ নিজ অবস্থান থেকে করোনা রোধে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।


বিডি-প্রতিদিন/সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য