শিরোনাম
প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:২২
প্রিন্ট করুন printer

লালপুরে ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কমিটি

নাটোর প্রতিনিধি

লালপুরে ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কমিটি

নাটোরের লালপুর উপজেলার অর্জুনপুর-বরমহাটি (এবি) ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটি গঠনে সাংগঠনিক নির্দেশনা লংঘনের অভিযোগ উঠেছে। দলের রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেনের নির্দেশনা উপেক্ষা করে নাটোর-১ (লালপুর-বাগাতিপাড়া) আসনের সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুলকে না রেখে বর্ধিত সভার নামে সম্মেলন আয়োজন ও কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের একাংশের নেতাকর্মীরা।

জানা যায়, গত ২২শে জানুয়ারি এবি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ স¤পাদক আবুল কালাম আজাদ স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে ২৫ জানুয়ারী সোমবার বেলা ৩টায় আঙ্গারীপাড়াস্থ এবি ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা আহবান করা হয়। চিঠিতে আসন্ন ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে সামনে রেখে সাংগঠনিক আলোচনা আলোচ্যসূচি হিসেবে নির্ধারিত ছিলো। গতকাল যথাসময়ে ওই বর্ধিতসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফতাফ হোসেন ঝুলফু ও প্রধান বক্তা ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান ইসাহাক আলী। সভাপতিত্ব করেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার।

এক পর্যায়ে ওই সভা থেকেই ইউনিয়ন ও ৯টি ওয়ার্ডের নতুন কমিটি গঠনের প্রস্তাব দেন কয়েকজন নেতা। তৎক্ষণাত তাদের প্রস্তাব গ্রহণ করে পুনরায় আব্দুস সাত্তারকে সভাপতি ও আবুল কালাম আজাদকে সাধারণ সম্পাদক করে ৬৭ সদস্য বিশিষ্ট এবি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৯টি ওয়ার্ডের নতুন কমিটি ঘোষণা করেন লালপুর উপজেলা সভাপতি আফতাব হোসেন ঝুলফু। নতুন কমিটিতে শুধু আগের কমিটির সহসভাপতি ও সাংগঠনিক স¤পাদকের পদ পরিবর্তন করে আগের পদগুলোই পুনর্বহাল করা হয়।

বর্ধিত সভায় উপস্থিত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী জানান, বর্ধিত সভা মানে আসন্ন অধিবেশন বা সম্মেলন উপলক্ষ্যে সাংগঠনিক ত্রুটি-বিচ্যুতি তুলে ধরে তা নিরসনপূর্বক সিদ্ধান্ত গ্রহণ বলে জানতাম। অথচ উপজেলা সভাপতি-সম্পাদক হুট করে কমিটি ঘোষণা করে ফেললেন যেনো সবকিছু পূর্ব-পরিকল্পিত ছিলো।

লালপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ স¤পাদক আলাউদ্দীন আলাল বলেন, সাংগঠনিক আচরণ বহির্ভুতভাবে এই কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। যেসব কর্মীরা নিছক বর্ধিত সভা জেনে ওই সভায় যোগ দিয়েছিলেন তারা হতাশ হয়েছেন। তারা যদি জানতেন বর্ধিত সভার নামে কমিটি গঠন হবে তবে অনেকেই যেতেন না বলে জানিয়েছেন। 

লালপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এস্কেন্দার মির্জা বলেন, এমপি শহিদুল ইসলাম বকুলকে সাথে নিয়ে সব ধরণের সম্মেলন ও দলীয় কর্মকান্ড পরিচালনার নির্দেশনা নিয়েছিলেন সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন। কিন্তু উপজেলা বর্ধিতসভা বাদে কখনোই সেই নির্দেশনা পালন করেন না উপজেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। সাংসদ বকুল এখন সংসদ অধিবেশনে। তার না থাকার সুযোগ কাজে লাগিয়ে এবি ইউনিয়নের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটি না পাস করতে দলের হাইকমান্ডের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও লালপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ইসাহাক আলী বলেন, বর্ধিত সভা আহবান করা হলেও পরে কাউন্সিল অধিবেশন ডাকা হয়। আমরা গঠনতন্ত্র মেনে শুধু ইউনিয়ন কমিটি ঘোষণা করেছি। ইউনিয়ন কমিটি ওয়ার্ড কমিটি ঘোষণা করেছে। এখানে নির্দেশনা মানা বা না মানার কোনো ব্যাপার নেই। দলের গঠনতন্ত্র মেনেই সব করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে নাটোর-১ (লালপুর-বাগাতিপাড়া) আসনের সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল বলেন, আমি সংসদ অধিবেশনে যোগ দিতে ঢাকায় অবস্থান করছি। এর মধ্যে শুনেছি সোমবার এবি ইউনিয়ন ও ৯টি ওয়ার্ডের কমিটি গঠন করা হয়ে গেছে। আমাকে তারা কিছুই জানায়নি। একদিনে বর্ধিত সভার নামে সম্মেলন ও কমিটি গঠনের নজির কোথাও আছে বলে জানা নেই। উপজেলা সভাপতি ও সাধারণ স¤পাদক দলের ভেতর বিভাজন সৃষ্টি করছেন পরিকল্পিতভাবে। এ বিষয়ে কেন্দ্রের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হবে।

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর