শিরোনাম
প্রকাশ : ৩১ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:৪৪
আপডেট : ৩১ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:৪৯
প্রিন্ট করুন printer

নড়াইল আইনজীবী সমিতিতে সভাপতিসহ ৬ পদে আওয়ামী লীগ সমর্থকরা জয়ী

নড়াইল প্রতিনিধি

নড়াইল আইনজীবী সমিতিতে সভাপতিসহ ৬ পদে আওয়ামী লীগ সমর্থকরা জয়ী

নড়াইল জেলা আইনজীবী সমিতির বার্ষিক নির্বাচনে সভাপতি-সেক্রেটারিসহ ৬টি পদে আওয়ামী লীগপন্থী প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। সহসভাপতিসহ ৪টি পদে বিএনপিপন্থী প্রার্থী জয়লাভ করেছেন। রবিবার সমিতির ১ নং ভবন মিলনায়তনে সকাল ১০টা থেকে বিরতিহীনভাবে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলে। মোট ১২০ জন ভোটারের মধ্যে ১১৯ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এবারের নির্বাচনে ১১টি পদের বিপরীতে ৬টি পদে আওয়ামী লীগপন্থী প্রার্থী এবং ৪টি পদে বিএনপিপন্থী প্রার্থী জয়লাভ করেছেন।

জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান সিনিয়র অ্যাডভোকেট নূর  মোহাম্মদ ও বর্তমান সভাপতি অ্যাডভোকেট এএফএম হেমায়েত উল্লাহ হিরু ভোট গণনা শেষে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ফলাফল ঘোষণা করেন।

জেলা আইনজীবী সমিতি কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সভাপতি পদে আওয়ামী লীগপন্থী প্রার্থী অ্যাডভোকেট উত্তম কুমার ঘোষ ৬৫ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি অ্যাডভোকেট ওমর ফারুক পেয়েছেন ৫২ ভোট। সেক্রেটারি পদে আওয়ামী লীগপন্থী প্রার্থী অ্যাডভোকেট মো. মাহমুদুল হাসান কায়েস ৫৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্ব অ্যাডভোকেট নূর মোহাম্মদ পেয়েছেন ৫৬ ভোট।

এছাড়া সহসভাপতি পদে বিএনপিপন্থী প্রার্থী অ্যাডভোকেট মো. আজিজুল ইসলাম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। সহসাধারণ সম্পাদক পদে আওয়ামী লীগপন্থী প্রার্থী সুনীল কুমার বিশ্বাস ৬০ ভোট, আইন ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক পদে আওয়ামী লীগপন্থী প্রার্থী মো. জামাল উদ্দিন আহম্মেদ ৭১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। গন্থাগার সম্পাদক পদে বিএনপিপন্থী প্রার্থী লাভলী আক্তার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এবং কার্যনির্বাহী সদস্য পদে আওয়ামী লীগপন্থী প্রার্থী অরবিন্দু কুমার মল্লিক, মো. মিশকাতুর রহমান সজীব, বিএনপিপন্থী প্রার্থী মো. রাজু আহম্মেদ রাজীব ও মো. টুটুল শিকদার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছেন। 

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৪:৩৩
আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৪:৩৮
প্রিন্ট করুন printer

সাঘাটায় কিশোরীর গলা কাটা লাশ উদ্ধার

গাইবান্ধা প্রতিনিধি

সাঘাটায় কিশোরীর গলা কাটা লাশ উদ্ধার
প্রতীকী ছবি

গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলায় আতিকা আকতার (১৬) নামে এক কিশোরীর গলা কাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের মা হামিদা বেগমকে আটক করা হয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে সাঘাটা উপজেলার ভরতখালী ইউনিয়নের দক্ষিণ উল্লাহ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আতিকা আকতার ভরতখালী ইউনিয়নের দক্ষিণ উল্লাহ গ্রামের আমিনুল ইসলামের মেয়ে। সে নবম শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্র জানায়, আতিকা আকতারের সাথে একই এলাকার রাসেল নামে এক ছেলের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এনিয়ে শুক্রবার বিকেল চারটার দিকে আতিকা আকতারের সাথে তার মা হামিদা বেগম ও বাবা আমিনুল ইসলাম এবং পরিবারের সদস্যদের বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে তাকে মারধর ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলাকেটে হত্যার অভিযোগ পাওয়া যায়।

পরে খবর পেয়ে পুলিশ গলা কাটা অবস্থায় কিশোরীর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে একটি চাকু উদ্ধার করা হয়েছে। লাশের ময়নাতদন্তের জন্য গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

সাঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বেলাল হোসেন জানান, প্রেমঘটিত কারণে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের মা হামিদা বেগমকে আটক করা হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০২:০৩
আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০২:০৮
প্রিন্ট করুন printer

কালিয়াকৈরে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর ‘আত্মহত্যা’

কালিয়াকৈর প্রতিনিধি

কালিয়াকৈরে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর ‘আত্মহত্যা’
প্রতীকী ছবি

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলায় গলায় ফাঁস দিয়ে আফসানা আক্তার (২৮) নামে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

শুক্রবার রাতে উপজেলার মৌচাক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মৃত আফসানা মৌচাক এলাকার আলী আহাম্মদের স্ত্রী।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মৌচাক এলাকায় স্বামীর সাথে অভিমান করে ঘরের ফ্যানের সাথে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন আফসানা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কালিয়াকৈর থানার এসআই রনি কুমার সাহা জানান, লাশটি ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে হত্যা নাকি আত্মহত্যা।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:৫২
প্রিন্ট করুন printer

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে তিন কিশোর হত্যায় ১২ জন অভিযুক্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে তিন কিশোর হত্যায় ১২ জন অভিযুক্ত
ফাইল ছবি

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে তিন ‘বন্দি’ কিশোর হত্যা মামলায় কেন্দ্রের চার কর্মকর্তাসহ আটজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেছে পুলিশ। একইসাথে এ ঘটনায় জড়িত অপ্রাপ্তবয়স্ক অপর চার শিশুর বিরুদ্ধে ‘দোষীপত্র’ দাখিল করা হয়েছে।

শুক্রবার যশোর আদালতে এ চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা যশোর শহরের চাঁচড়া ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর মো. রকিবুজ্জামান।

চার্জশিটে অভিযুক্ত চার কর্মকর্তা হলেন সাময়িক বরখাস্ত হওয়া সাবেক তত্ত্বাবধায়ক (সহকারী পরিচালক) আব্দুল্লাহ আল মাসুদ,  সহকারী তত্ত্বাবধায়ক (প্রবেশন অফিসার) মাসুম বিল্লাহ, ফিজিক্যাল ইন্সট্রাক্টর একেএম শাহানুর আলম ও সাইকো সোশ্যাল কাউন্সিলর মুশফিকুর রহমান।

এছাড়া যে বন্দি চার কিশোরের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে তারা হলো গাইবান্ধার খালিদুর রহমান তুহিন, নাটোরের হুমাুন হোসেন, মোহাম্মদ আলী ও পাবনার ইমরান হোসেন। অপ্রাপ্তবয়স্ক অভিযুক্তরা হলো- চুয়াডাঙ্গার আনিস, কুড়িগ্রামের রিফাত হোসেন, রাজশাহীর পলাশ ওরফে শিমুল ও পাবনার মনোয়ার হোসেন।

তুচ্ছ ঘটনায় গত বছর ১৩ আগস্ট যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের ১৮ বন্দি কিশোরকে কর্মকর্তাদের নির্দেশে নিষ্ঠুর নির্যাতন চালানো হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় তিন কিশোর। আহত হয় ১৫ জন। এ ঘটনায় নিহত পারভেজ হাসান রাব্বির বাবা রোকা মিয়া বাদী হয়ে ১৩ জনকে আসামি করে যশোর কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন।

তদন্ত কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মো. রকিবুজ্জামান বলেন, এ ঘটনায় ১২ জনের সম্পৃক্ততার প্রমাণ পাওয়ায় তাদের মধ্যে ৮ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে। চার বন্দি অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে দোষীপত্র দেওয়া হয়েছে। আসামিদের মধ্যে কারিগরি প্রশিক্ষক ওমর ফারুকের জড়িত থাকার প্রমাণ না পাওয়ায় তার অব্যাহতির আবেদন জানানো হয়েছে।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০৩
প্রিন্ট করুন printer

বেড়াতে গিয়ে প্রাণ গেল মোটরসাইকেল আরোহী দুই বন্ধুর

কক্সবাজার প্রতিনিধি

বেড়াতে গিয়ে প্রাণ গেল মোটরসাইকেল আরোহী দুই বন্ধুর
প্রতীকী ছবি

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলায় ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী দুই বন্ধু নিহত হয়েছেন। এছাড়া আরও এক বন্ধু আহত হয়েছেন।

শুক্রবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে উপজেলার কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বানিয়ারছড়ার মহেশখালী রাস্তার মাথা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-চকরিয়া উপজেলার বরইতলী ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের নেজামউদ্দিনের ছেলে মো. ছোটন (২২) ও রামু উপজেলার গর্জানিয়া এলাকার আমির হোসেনের ছেলে শামসুল আলম (২০)।

আর আহত ব্যক্তির নাম মো. ফারুক। তিনি রামুর গর্জানিয়ার মো. হোসেনের ছেলে। হতাহতরা সবাই বানিয়ারছড়ার একটি গ্রীল ওয়ার্কশপের দোকানে শ্রমিক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, শুক্রবার বিকেলের দিকে তিন বন্ধু মিলে মোটরসাইকেল নিয়ে হারবাংয়ের দিকে বেড়াতে যাচ্ছিল। তাদের মোটরসাইকেল বানিয়ারছড়ার আমতলী এলাকায় পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি পিকআপ (মিনি ট্রাক) জোরে ধাক্কা দেয়। এসময় ঘটনাস্থলে ছোটন মারা যায়।

পরে মোটরসাইকেল আরোহী শামসুল আলম ও ফারুককে স্থানীয়রা উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে শামসুল মারা যান। এসময় গুরুতর আহত ফারুককে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে চকরিয়া উপজেলা মহাসড়কের চিরিংগা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির এসআই সিরাজুল ইসলাম জানান, রাত সাড়ে সাতটার দিকে পিকআপের ধাক্কায় তিনজন মোটরসাইকেল আরোহী যুবক গুরুতর আহত হয়। তার মধ্যে দুজন মারা গেছেন।

আরেকজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘাতক পিকআপটি পালিয়ে যাওয়ায় জব্দ করা সম্ভব হয়নি। নিহতদের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানান তিনি।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:৪৪
প্রিন্ট করুন printer

বাঘের মতো মরতে চাই : কাদের মির্জা

অনলাইন ডেস্ক

বাঘের মতো মরতে চাই : কাদের মির্জা
বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। ফাইল ছবি

সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যাকাণ্ডের ন্যায় বিচারের স্বার্থে জুডিশিয়াল তদন্তের দাবি জানিয়ে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন, শিয়ালের মতো মৃত্যু চাই না। সিংহের গর্জন করে বাঘের মতো মরতে চাই।

শুক্রবার বিকেলে নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভা মিলনায়তনে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়ে জনসচেতনতামূলক সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

কাদের মির্জা বলেন, সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যার ন্যায়বিচার না হলে, বিচারের নামে জজ মিয়া নাটক করা হলে, আমার কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করা না হলে এবং আমার আটক চার নেতাকর্মীকে মুক্তি দেওয়া না হলে কোম্পানীগঞ্জে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি হবে।

আর এর দায়ভার নোয়াখালী জেলার ডিসি, এসপি, কোম্পানীগঞ্জের ইউএনও এবং কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসিকে নিতে হবে বলেও হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

বসুরহাট পৌরসভার মেয়র বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা পেয়ে দলীয় কর্মকাণ্ড স্থগিত থাকায় করোনা ভ্যাকসিন জনসচেতনতামূলক সমাবেশ করছি। 

তিনি বলেন, বাড়ি বাড়ি গিয়ে করোনা ভ্যাকসিন গ্রহণের জন্য জনগণকে উদ্বুদ্ধ করবেন। আর আমি যে যে ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দিয়েছি সেসব প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইবেন।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর