শিরোনাম
প্রকাশ : ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৭:১৯
আপডেট : ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:৪৪
প্রিন্ট করুন printer

ঠাকুরগাঁওয়ে আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় মামলা

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি :

ঠাকুরগাঁওয়ে আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় মামলা

ঠাকুরগাঁওয়ে পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জেলা আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় মামলা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার রাতে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক ইকরামুল হক ইকরাম বাদী হয়ে অজ্ঞাত নামাদের আসামি করে সদর থানায় মামলা করা করেন।

পুলিশ জানায়, আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় অভিযোগ পেলে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি একটি সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন যেন হয় সে লক্ষ্যেই প্রশাসন তৎপর রয়েছে। কেউ যদি বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে তাৎক্ষনিকভাবে জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল ও কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করে সন্ত্রাসীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:১২
প্রিন্ট করুন printer

নোয়াখালীতে এবার বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ, ধর্ষণ ও অপহরণের অভিযোগ

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালীতে এবার বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ, ধর্ষণ ও অপহরণের অভিযোগ
প্রতীকী ছবি

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে অস্ত্রের মুখে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের পর ভাইরালের ভয় দেখিয়ে এক মাদ্রাসাছাত্রীকে দফায় দফায় ধর্ষণ এবং অপহরণের অভিযোগ উঠেছে।

বেগমগঞ্জ উপজেলার আলাইয়ারপুরের হীরাপুর গ্রামের ওই ছাত্রী প্রায় দুই মাস ধরে নিখোঁজ রয়েছে।এ ঘটনায় নোয়াখালী বেগমগঞ্জ মডেল থানায় বৃহস্পতিবার রাতে একই এলাকার রাসেল (২৫), জোবায়ের (২৪), সাইফুল ইসলাম ইমন (২২) এবং ফয়সাল নামের ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন ভুক্তভোগীর মা।

বৃহস্পতিবার রাতে বেগমগঞ্জ পুলিশ অভিযান চালিয়ে সাইফুল ইসলাম ইমন ও ফয়সালকে গ্রেফতার করেছে। 

বেগমগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুজ্জামান শিকদার মামলার সত্যতা স্বীকার করে জানান, রাতেই ইমন ও ফয়সালকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। ওই মাদ্রাসাছাত্রীকে উদ্ধারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

ওই ছাত্রীর মা সাংবাদিকদের বলেন, ২০১৮ সাল থেকে একই এলাকার ইমন ও রাসেল আমার মেয়েকে উত্ত্যক্ত করে। এ বিষয়ে ভিকটিম তাদের বারণ করলে তারা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে বলে- ‘আমাদের কথায় রাজি না হলে তোর মাকে মেরে ফেলবো’।

তিনি বলেন, ‘এরপর একদিন রাসেল ও ইমন আমাদের বাড়িতে এসে আমাকে কৌশলে কোমলপানীয়র সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে আমাকে অচেতন করে অস্ত্রের মুখে মেয়েকে বিবস্ত্র করে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ করে। পরে এক দোকানিকে ডেকে এনে জোর করে মেয়ের সঙ্গে দাঁড় করিয়ে উভয়কে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করে তারা।’ভুক্তভোগী ছাত্রীর মা বলেন, ‘পরে ওই ভিডিও ভাইরাল করার ভয় দেখিয়ে টাকা, স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে যায় এবং একাধিকবার তার মেয়েকে ধর্ষণ করে। বাধ্য হয়ে মেয়েকে বিয়ে দিয়েও রেহাই পাইনি। বিয়ের পরে মেয়ে বেড়াতে আসলে তাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। এ সময় তারা ঘর থেকে ৫০ হাজার টাকা, ১ ভরি স্বর্ণালংকারও নিয়ে যায়। এরপর থেকেই ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে নিয়মিত চাঁদা নিতে থাকে।’

তিনি বলেন, দীর্ঘ তিন বছরেরও বেশি সময় সন্ত্রাসীদের ভয়ে মুখ খোলেননি। এবার থানায় অভিযোগ দিয়েও কোনও সুফল পাননি। বর্তমানে তারা অসহায় হয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সাহায্যে পুনরায় আইনের আশ্রয় নিয়েছেন।

ছাত্রীর মা বলেন, ‘বিয়ের পরে মেয়ে বেড়াতে আসলে তাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। উঠিয়ে নেওয়ার তিন মাস পরে রাসেলকে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে মিরপুরের একটি বাসা থেকে তাকে উদ্ধার করে আনি। এ ঘটনার ১৫ দিন পর রাসেল পুনরায় মেয়েকে বাড়ি থেকে নিয়ে যায়। ১০ দিন পর আবারও ১০ হাজার টাকা দিয়ে মেয়ে নিয়ে আসি।’

তিনি বলেন, ‘সর্বশেষ গত ২৪ ডিসেম্বর রাসেল আবার আমার মেয়েকে নিয়ে যায়। এখনও সে কোথায় আছে, কীভাবে আছে জানি না। গত সপ্তাহে রাসেল প্রস্তাব দিয়েছে এবার ১ লাখ টাকা দিতে। টাকা না দিলে আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে।’

ভুক্তভোগীর মা বলেন, ‘মেয়ের সন্ধান চাইলে ইমন আমাকে তার সঙ্গে এক রাত কাটানোর প্রস্তাব দেয়। সে বলে তার সঙ্গে রাত কাটালে আমাকে মেয়ের সন্ধান দেবে।’

এ বিষয়ে জানাতে চাইলে ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য আবদুল কাদের বিষয়টি সম্পর্কে অবগত আছেন বলে জানান। গত বছরের অক্টোবর মাসে মেয়ের মা তাকে বিষয়টি জানান। সর্বশেষ গত দুই মাস ধরে মেয়েটি নিখোঁজ রয়েছে বলে তিনি শুনেছেন। 

আলাইয়ারপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান বলেন, ‘এরা সবাই এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী। এদের নামে একাধিক মামলা রয়েছে। বর্তমানে ওই মেয়ের বিষয়ে আমি কিছুই শুনিনি। তবে পূর্বের বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতাম।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:০০
আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:০১
প্রিন্ট করুন printer

বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করায় মেয়ের আত্মহত্যা

অনলাইন ডেস্ক

বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করায় মেয়ের আত্মহত্যা

বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করায় অভিমান করে শরীরে কেরোসিন ঢেলে মরিয়ম বেগম (২৩) নামে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন। নিহত মরিয়ম ওই এলাকার জহুরুল ইসলামের মেয়ে এবং হাতীবান্ধা উপজেলার ভোটমারী গ্রামের শামীম মিয়ার স্ত্রী।

বৃহস্পতিবার লালমনিরহাটের পাটগ্রাম পৌরসভার বাস টার্মিনাল এলাকায় বাবার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। শুক্রবার সকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়ার পথে মরিয়মের মৃত্যু হয়।  

স্থানীয়রা জানান, স্ত্রী থাকার পরেও দ্বিতীয় বিয়ে করেন জহুরুল ইসলাম। এ কারণে অভিমান করে প্রথম স্ত্রী বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যান। পরে বাবার দ্বিতীয় বিয়ের খবরে ক্ষুব্ধ হয়ে বৃহস্পতিবার বাবার বাড়ি চলে আসেন মেয়ে মরিয়ম। দ্বিতীয় বিয়ে নিয়ে বাবা-মেয়ের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে বাবার সঙ্গে অভিমান করে ঘরে ঢুকে নিজের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন মরিয়ম। বুঝতে পেরে মেয়েকে বাঁচাতে গিয়ে দগ্ধ হন বাবা জহুরুল ইসলামও। দগ্ধ বাবা-মেয়েকে উদ্ধার করে প্রতিবেশীরা প্রথমে পাটগ্রাম ও পরে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ (রকেম) হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরিস্থিতির অবনতি হলে রাতেই আশঙ্কাজনক অবস্থায় মরিয়মকে ঢামেক হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।  

পাটগ্রাম থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত জানান, বাবা-মেয়ে দু’জনেই দগ্ধ হয়েছেন। মেয়েটির শরীরের অধিকাংশই পুড়েছে। এ ঘটনায় কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১১:৫২
প্রিন্ট করুন printer

নেত্রকোনায় ট্রেনে কাটা পড়ে যুবক নিহত

অনলাইন ডেস্ক

নেত্রকোনায় ট্রেনে কাটা পড়ে যুবক নিহত

নেত্রকোনার পূর্বধলায় ট্রেনে কাটা পড়ে খায়রুল ইসলাম (৩০) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। তিনি উপজেলা সদরের নয়াপাড়া গ্রামের মো. কবীর খানের ছেলে। শুক্রবার সকালে তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত পৌনে ১২টার দিকে জারিয়া-ময়মনসিংহ রেলপথের পূর্বধলা বাজারের কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

পূর্বধলা রেল স্টেশনের বুকিং সহকারী মো. আব্দুল মোমেন জানান, বৃহস্পতিবার রাতে ময়মনসিংহ থেকে জারিয়াগামী ২৭৮ নং লোকাল ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে ওই যুবক নিহত হয়েছেন।

গৌরীপুর রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. আশরাফ উদ্দিন ভুঁইয়া জানান, শুক্রবার সকালে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের স্বজনরা লাশ শনাক্ত করেছে। স্বজনদের দাবি তিনি কিছুটা মানসিক বিকারগ্রস্ত ছিলেন। 

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১১:০১
প্রিন্ট করুন printer

ইভিএমে ভোটগ্রহণ হচ্ছে, ভোটারদের আগ্রহ বাড়ছে: কবিতা খানম

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া

ইভিএমে ভোটগ্রহণ হচ্ছে, ভোটারদের আগ্রহ বাড়ছে: কবিতা খানম

বগুড়ায় নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম বলেছেন, পৌর নির্বাচনের পরিবেশ সুষ্ঠু রয়েছে। এখন পর্যন্ত কোন প্রার্থী নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে কোন অভিযোগ করেননি। বগুড়ায় কয়েকদিন আগে অনুষ্ঠিত হওয়া পৌর নির্বাচন গুলোও সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ইভিএমে ভোটগ্রহণ হচ্ছে। ভোটারদের আগ্রহ বাড়ছে। বগুড়া পৌরসভা দেশের বৃহত্তম পৌরসভা। ভোটার সংখ্যাও অনেক বেশি। তাই এই পৌর নির্বাচনে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে। ইভিএমে ভোট হবে উৎসবমুখর পরিবেশে।

বগুড়া সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে আইনশৃংখলা বাহিনীর সাথে পৌর নির্বাচন উপলক্ষে মতবিনিময় সভা শেষে এ কথা বলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত পৌনে ৯টা পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম জেলা প্রশাসন, পুলিশ বিভাগ, নৌবাহিনী প্রতিনিধি, এপিবিএন'র প্রতিনিধি, আনসার বাহিনীর প্রতিনিধি, র‌্যাব প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় করেন।
মতবিনিময় শেষে সাংবাদিক সাথে কথা বলেন। 

নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম সাংবাদিকদের প্রশ্নোত্তরে বলেন, সারাদেশের মত বগুড়াতেও অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষে আইন শৃংখলা বাহিনী ও প্রার্থীদের সাথে মতবিনিময় করা। বগুড়া পৌর নির্বাচনে নির্বাচন কমিশনের পর্যবেক্ষক দল থাকবে।  ইভিএমে ভোট দিতে ভোটারদের আগ্রহ রয়েছে। এই কারণে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে।  

আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের বিষয়ে তিনি বলেন, আগামী ইউপি নির্বাচনেও ইভিএমের ব্যবহার করা হবে। তবে সকল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ইভিএমে ভোট করা সম্ভব হবে না। কারণ ইভিএম মেশিনে সমস্যা নেই তবে টেকনিক্যাল বা লোকবলের সমস্যা রয়েছে। তাই ইউপি নির্বাচন ইভিএম ও ব্যালটে অনুষ্ঠিত হবে বলেও জানান তিনি।

আইন শৃংখলা বাহিনীর সাথে মতবিনিময় সভায় জেলা প্রশাসক জিয়াউল হকের সভাপতিত্বে এসময় জেলা পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহবুব আলম শাহ্ সহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:৫১
প্রিন্ট করুন printer

ডাকাতিয়া নদীতে মাছ শিকারের মহোৎসব

লাকসাম প্রতিনিধি

ডাকাতিয়া নদীতে মাছ শিকারের মহোৎসব

কুমিল্লার লাকসাম অঞ্চলে ডাকাতিয়া নদীতে মাছ শিকারের মহোৎসব চলছে। পানি কমার সাথে সাথে মৎস্য শিকারীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছে। নদীটির লাকসাম, মনোহরগঞ্জ ও নাঙ্গলকোট অংশে দলে দলে মানুষ মাছ ধরছে। 

নদীর দুই পাড়ের বাসিন্দারা জানায়, 'একসময় ডাকাতিয়া নদীতে পুরো বছর বিভিন্ন প্রজাতির দেশীয় সুস্বাদু মাছ পাওয়া যেত। কালের বিবর্তনে নদীটি সংকুচিত হওয়ায় এখন আর আগের মতো মাছ পাওয়া যায়না।' চলতি শীত মৌসুমেই নদীটির বিভিন্ন স্থান শুকিয়ে গেছে। কোথাও কোথাও হাঁটু বা কোমর সমান পানি। তেমনি লাকসামের তারাপাইয়া, সাতবাড়িয়া ও ইছাপুরা এলাকাতেও একই অবস্থা বিরাজমান।

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) উপজেলার তারাপাইয়া, সাতবাড়িয়া ও ইছাপুরা এলাকায় ডাকাতিয়া নদীতে শতাধিক মানুষ মাছ ধরার মহোৎসবে অংশগ্রহণ করে। মাছ ধরার এমন দৃশ্য সকলের নজর কেঁড়েছে। কারও হাতে পলো, কারও হাতে চাবিজাল, খেয়াজাল, টানাজাল বা ছেঁকাজাল।

'মাছ পাওয়া থেকেও উৎসবে অংশ নেয়াটাই ছিল বেশি আনন্দের,' জানালেন কয়েকজন মৎস্য শিকারী। যাদের মাছ ধরার সরঞ্জাম ছিলনা তারাও নদীতে নেমে উৎসবে অংশ নেয়। তাদেরকে খালি হাত দিয়েই কাদার মধ্যে মাছ খুঁজতে দেখা যায়। মাছ ধরা শেষে মৎস্য শিকারীদের উল্লসিত দেখা গেছে। 
প্রায় প্রত্যেকেই কমবেশি মাছ শিকার করেছেন বলে জানান। 

নদীর তীরবর্তী এলাকার বাসিন্দা জাহাঙ্গীর আলম জানান, 'ডাকাতিয়া নদীতে পলো দিয়ে মাছ ধরার আনন্দটা ছিল ব্যতিক্রম। মাছ পাওয়া থেকেও উৎসবে অংশ নেওয়াটা ছিল সবার কাছে আনন্দের।'
এছাড়াও, লাকসাম পৌরসভার মেয়র অধ্যাপক মো. আবুল খায়ের বলেন, 'বৃহত্তর লাকসামের ঐতিহ্য ডাকাতিয়া নদী। ডাকাতিয়ার পানি সেচ কাজে ব্যবহৃত হয়। এ নদীতে যে মাছ পাওয়া যায় তা খুবই সুস্বাদু।'

প্রসঙ্গত, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম এমপি মহোদয় লাকসাম, মনোহরগঞ্জের ব্যাপক উন্নয়নের পাশাপাশি ডাকাতিয়া নদীকে খননের উদ্যোগ নিয়েছেন। এরই অংশ হিসেবে ইতোমধ্যে পানি সম্পদ সচিব ডাকাতিয়া নদী পরিদর্শন করেছেন। খনন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে পূর্বের ন্যায় ডাকাতিয়া নদীর নাব্যতা ও জৌলুস ফিরে আসবে বলে তিনি প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।

 

বিডি প্রতিদিন / অন্তরা কবির   


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর