শিরোনাম
প্রকাশ : ৭ মার্চ, ২০২১ ১৭:৫৯
প্রিন্ট করুন printer

‘সব পণ্য আমদানি হলে সীমান্তে চোরাচালান প্রতিরোধ হবে’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:

‘সব পণ্য আমদানি হলে সীমান্তে চোরাচালান প্রতিরোধ হবে’

স্থলবন্দরগুলো দিয়ে দেশে চাহিদা আছে-এমন সব পণ্য বৈধপথে শুল্কায়নের মাধ্যমে আমদানির ব্যবস্থা চালু করা গেলে সীমান্ত দিয়ে চোরাচালান প্রতিরোধ হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কে. এম. তারিকুল ইমলাম। 

রবিবার দুপুর সোয়া ১টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দর পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ মন্তব্য করেন তিনি।

দীর্ঘদিন ধরেই দেশের অন্যতম বৃহৎ ও শতভাগ রফতানিমুখী আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে নিষিদ্ধ পণ্য ব্যতিত সকল পণ্য আমদানির অনুমতি দেয়ার দাবি জানিয়ে আসছেন ব্যবসায়ীরা।

স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম বলেন, পণ্য আমদানির বিষয়ে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে তাদের প্রত্যাশার কথা জেনেছি। তারা চাচ্ছেন, একেবারে ওপেন করে দিতে, যেন সব ধরণের পণ্য আমদানি করতে পারেন। বৈধপথে, শুল্কায়ন করে আমদানি যদি চালু করা যায়, তাহলে চোরাচালান অটোমেটিক বন্ধ হবে। আমিও আমদানির সুযোগ দেয়ার পক্ষে।

তিনি আরও বলেন, সবধরণের পণ্য আমদানির অনুমতি কোনো বন্দরেই নেই। সব স্থলবন্দরের নিজস্ব একটি পণ্য তালিকা আছে। যে এই পণ্যগুলো-এই বন্দর দিয়ে আমদানি হবে। স্থানীয় চাহিদা অনুযায়ী ব্যবসায়ীরা তালিকা দিক, একেবারে ওপেন না হলেও এনবিআর এ বিষয়টি অবশ্যই বিবেচনা করবে।

এ সময় স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের সাথে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত উদ-দৌলা খাঁন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আশ্রাফ আহমেদ রাসেল, প্রকল্প পরিচালক (সওজ) আকতার হোসেন পাটোয়ারি, সহকারী পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান, ডেপুটি কমিশনার (কাস্টমস) ফখরুল আলম চৌধুরী, জেলা ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা অনজন দাস, আখাউড়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. সাইফুল ইসলাম, আখাউড়া স্থলবন্দর শুল্ক স্টেশনের রাজস্ব কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী, স্থল বন্দর সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি মো: মোবারক হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ফোরকান খলিফা, আমদানী রপ্তানীকারক এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদ মো: শফিকুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কাসেম ভূইয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, তিনি সকালে ট্রেনযোগে সকাল সাড়ে ১০টায় আখাউড়ায় আসেন। পরে তিনি সড়ক পথে স্থল বন্দরে যান। এসময় তিনি স্থলবন্দরে ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিস্টদের সাথে  মতবিনিময় করেন। এসয় কাষ্টমস, স্থলবন্দর ও বিজিবির প্রতিনিধিসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। পরে তিনি বন্দর এলাকা ঘুরে দেখেন। আখাউড়া-আশুগঞ্জ ফোরলেন সড়ক নির্মাণের বিষয়ে খোঁজ খবর নেন।  

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর