প্রকাশ : ১৪ এপ্রিল, ২০২১ ১৭:২৯
আপডেট : ১৪ এপ্রিল, ২০২১ ১৯:০৫
প্রিন্ট করুন printer

'সহযোগিতা না পেলে আমাদের না খেয়ে মরতে হবে'

শরীয়তপুর প্রতিনিধি

'সহযোগিতা না পেলে আমাদের না খেয়ে মরতে হবে'

বৈশাখী মেলা উপলক্ষে শরীয়তপুর ঘড়িসার পালপাড়ার প্রায় ৩০টি পরিবারের মৃৎশিল্পীরা মাটির খেলনা হাড়ি পাতিল বিভিন্ন সামগ্রী তৈরি করেছিলেন। করোনার দ্বিতীয় ধাপে বৈশাখ উৎসবে কোনো রং না থাকায় তাদের জীবিকা-নির্বাহও অচল হয়ে পড়ছে। অনেকে ঋণ নিয়েও মাটির খেলনা হাড়ি পাতিল তৈরি ও মজুদ করেছিলেন। 

হতাশা নিয়ে গোবিন্দ পাল বলেন, 'গতবছর করোনার কারণে বৈশাখী মেলা হয়নি, চলতি বছরের দ্বিতীয় ধাপে মেলার আয়োজন না থাকায় আমাদের অনেক আর্থিক ক্ষতি হয়েছে যা পুষিয়ে উঠা সম্ভব নয়।'

তিনি আরও বলেন, 'সরকার বিভিন্ন পেশাজীবীদের প্রণোদনা দিয়েছেন। সহযোগিতা না পেলে আমাদের না খেয়ে মরতে হবে। সরকার যদি পাশে থাকে তাহলে মৃৎশিল্পকে বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব।'

ঘড়িসার পালপাড়ায় প্রায় ৩০টি পরিবার অতি কষ্টে দিন কাটাচ্ছে। প্লাস্টিকের সামগ্রী ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় মৃৎশিল্প বিলুপ্তির পথে। প্লাস্টিক পরিবেশের জন্য মারাত্মক হুমকিস্বরূপ। তাই নিরাপদ মাটির জিনিস ব্যবহারে আগ্রহী করে তোলার উদ্যোগ নিতে হবে সকলের।

 

বিডি প্রতিদিন / অন্তরা কবির

এই বিভাগের আরও খবর