শিরোনাম
প্রকাশ : ১১ মে, ২০২১ ২২:১৮
প্রিন্ট করুন printer

ভারতফেরত ৩৮৮ যাত্রীর সাথে কোয়ারেন্টাইনে ঈদ কাটবে ৮৮ আনসারের

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর

ভারতফেরত ৩৮৮ যাত্রীর সাথে কোয়ারেন্টাইনে ঈদ কাটবে ৮৮ আনসারের
Google News

ভারত থেকে দেশে ফেরা ৩৮৮ পাসপোর্টযাত্রীর সাথে কোয়ারেন্টাইনে ঈদ কাটবে ৮৮ আনসার সদস্যেরও। যশোর ও বেনাপোলের ২৯টি আবাসিক হোটেল ও একটি মাদ্রাসা যা কোয়ারেন্টাইন হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। সেখানে করোনার ঝুঁকি নিয়ে টানা দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন তারা। 

এছাড়াও দেশে ফেরা অতিরিক্ত পাসপোর্টযাত্রীদের আশপাশের জেলা শহরগুলোর হোটেলে (অস্থায়ী কোয়ারেন্টাইন) স্থানান্তরের সময়ও একই গাড়িতে করোনার ঝুঁকি নিয়ে আনসার সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। 

যশোর জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, ৩০ এপ্রিল যারা বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ভারত থেকে দেশে প্রবেশ করেছেন, তাদের ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন শেষ হবে ১৪ মে। ফলে ১৪ মে ঈদ হলে ৩০ এপ্রিল প্রবেশ করা ১০১ জন পাসপোর্টযাত্রী ঈদের দিন সকালে কোয়ারেন্টাইন মুক্ত হবেন। তবে ঈদ যদি হয় ১৩ মে, তাহলে এ ১০১ জনের ঈদ কাটবে হোটেলের কোয়ারেন্টাইন। 

গত ২৬ এপ্রিল থেকে ৯ মে পর্যন্ত বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ভারত থেকে দেশে প্রবেশ করেছেন দুই হাজার ৬৬৬ জন। এসব পাসপোর্টযাত্রীদের কোয়ারেন্টাইনে রাখার জন্য যশোর জেলার ২৯টি হোটেল ও একটি মাদ্রাসা রিকুইজিশন করে জেলা প্রশাসন। যেখানে এক হাজার ১৭৬ জনকে রাখা হয়েছে। বাকিদের আশপাশের জেলাগুলোতে হোটেল রিকুইজিশন করে সেখানে তাদের পাঠানো হয়। 

যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী সায়েমুজ্জামান বলেন, কোয়ারেন্টাইনে থাকা সবাইকে ঈদের দিন সেমাই, পোলাও, মাংসসহ উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হবে। কিছু কিছু হোটেল কর্তৃপক্ষ তাদের নিজেদের উদ্যোগেই সেখানেকোয়ারেন্টাইনে থাকা পাসপোর্টযাত্রীদের উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করবেন। 

আনসার ও ভিডিপি’র যশোর জেলার কমান্ড্যান্ট সঞ্জয় কুমার সাহা বলেন, প্রথম থেকেই করোনার ঝুঁকিপূর্ণ জায়গাগুলোতে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন আনসার সদস্যরা। যশোর ও বেনাপোলের হোটেলগুলোতে থাকা পাসপোর্টযাত্রীদের নিরাপত্তায় ৫৮ জন অঙ্গীভূত আনসার এবং ঝিকরগাছায় গাজীর দরগাহ মাদ্রাসা কোয়ারেন্টাইনে ৩০ জন ব্যাটালিয়ন আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন।

জেলা কমান্ড্যান্ট আরও বলেন, যেসব পাসপোর্টযাত্রীদের যশোরের আশপাশের জেলাগুলোর কোয়ারেন্টাইনে নিয়ে যাওয়ার সময় তাদের গাড়িতেও ঝুঁকি নিয়ে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন আনসার সদস্যরা।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন

এই বিভাগের আরও খবর