শিরোনাম
১৪ অক্টোবর, ২০২১ ১৮:১০

বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়কে ৪৫ কি.মি যানজট, টোল আদায় বন্ধ

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়কে ৪৫ কি.মি যানজট, টোল আদায় বন্ধ

বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম পাড় মহাসড়কের নলকার ঝুকিপূর্ণ সরু সেতুর কারণে সড়কের তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। গত কয়েকদিন যাবৎ থেমে থেমে যানজট হলেও বৃহস্পতিবার ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম গোলচত্ত্বর থেকে ভূইয়াগাঁতী, হাটিকুমরুল-বনপাড়া সড়কের সলঙ্গা পর্যন্ত ও হাটিকুমরুল-পাবনা সড়কের বোয়ালিয়া পর্যন্ত ৪৫ কিলোমিটার এলাকায় যানজট ছড়িয়ে পড়ে। বঙ্গবন্ধুর সেতুর উপর যানজট দেখা দেয়ায় অটোমেটিক টোল আদায় বন্ধ রাখা হচ্ছে।

দিনভর যানজটের কারণে চালক ও যাত্রীসহ কাঁচামাল ব্যবসায়ীরা চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। তীব্র গরমে অনেক যাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়েছে। 

জানা যায়, রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ১৬ জেলা এবং খুলনা বিভাগের বেশ কয়েকটি জেলার চলাচলের অন্যতম রুট বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়ক। মহাসড়কের বঙ্গবন্ধু সেতুর ১১ কিলোমিটার পশ্চিমে রয়েছে নলকা সরু সেতু। সেতুটি বার বার সংস্কার করলেও তা টিকছে না। এ কারণে মহাসড়কের নলকার সেতুটি যানজট ও দুর্ভোগের প্রধান কারণ হিসেবে দাঁড়িয়েছে। 

দেখা যায়, যানবাহনগুলো নলকা সেতুর ওঠেই গতি কমিয়ে দিতে হচ্ছে। এ কারণে সেতুর উভয়প্রান্তে সব সময় শত শত যানবাহনকে আটক থাকতে হচ্ছে। এতে কখনো কখনো দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। গত সোমবার ঝুঁকিপূর্ণ নলকা সেতুতে ছিদ্র দেখা দেয়। ঝুঁকি আরও বেড়ে যায়। এ অবস্থায় সওজ বৃহস্পতিবার সকাল একলেন বন্ধ রেখে সংস্কার কাজ শুরু করে। এতে বঙ্গবন্ধু পশ্চিম থেকে নলকা পর্যন্ত ১১ কিলোমিটার, নলকা থেকে হাটিকমুরুল মোড় ৭ পর্যন্ত এবং হাটিকুমরুল থেকে চান্দাইকোনা পর্যন্ত এবং গোল চত্ত্বর থেকে বোয়ালিয়া পর্যন্ত ৪৫ কিলোমিটার যানজট ছাড়িয়ে পড়ে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে যাত্রী ও চালকদের। যানজট এড়াতে পুলিশ কিছু কিছু যাত্রীবাহী বাস বঙ্গবন্ধু সেতু পার হয়েও সিরাজগঞ্জ শহর মধ্য দিয়ে চলাচল করতে দেয়ায় শহরের মধ্যেও যানজট দেখা দিয়েছে।

বাসচালক হায়দার আলী ও ইব্রাহীম সেখ জানান, বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিমপাড় মহাসড়কের নলকা সেতুটি বিষফোঁড়া হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেতুটিতে গাড়ি ওঠার আগেই গতি কমিয়ে পার হতে হয়। সেতুর উপর ১০ কিলোমিটার বেগে গাড়ি চালালেই সেতুটি কেঁপে ওঠে। সেতুর কারণে গত ১০ বছর যাবৎ ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় সেতু পার হয়েছি। বিকাল ৫টায় নলকা সেতু পার হতে পারলাম। ২০ মিনিটের রাস্তা পার হতে ১০-১২ ঘণ্টা সময় লাগছে। 

যাত্রী নাইমুল ইসলাম, শুভ সেক, রিংকি পারভীন জানান, টাঙ্গাইলের পর থেকেই যানজটের কবলে পড়তে হয়। মাত্র সেতু পার হয়ে সিরাজগঞ্জ নলকা পর্যন্ত আসতে প্রায় ২০ ঘণ্টা সময় লেগেছে। এতে চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হয়। তীব্র গরমের কারণে বয়োবৃদ্ধ ও শিশুরা অসুস্থ হয়ে পড়েছে। খাবার-পানি সংকট দেখা দিয়েছে। 

বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিমপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোসাদ্দেক হোসেন জানান, সেতুটির কারণে এই মহাসড়কে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। পুলিশ যানজট নিরসনে সার্বক্ষুণিক চেষ্টা করছে। 

সিরাজগঞ্জ সওজ নির্বাহী প্রকৌশলী দিদারুল আলম তরফদার জানান, স্টিল দিয়ে সেতুটি মেরামত করায় তা একদিনেও টিকেনি। তাই সেতুর উপরের অংশ তুলে ফেলে নতুন করে সংস্কার করা হয়েছে। এ কারণে একলেন বন্ধ রাখায় যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। দুপুরের পর সংস্কার কাজ শেষ করে দুইলেন খুলে দেয়া হয়েছে। আশা করছি ধীরে ধীরে যানজট কমে গেলে দুর্ভোগ কমে যাবে। 

বঙ্গবন্ধু সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী পাভেল আহসান জানান, বঙ্গবন্ধুর সেতুর উপর যানজট দেখা দেয়ায় অটোমেটিক টোল আদায় বন্ধ রাখা হচ্ছে। তবে কর্তৃপক্ষ ইচ্ছে করে টোল আদায় বন্ধ রাখেনি। যানজট থাকলে বন্ধ রাখা হচ্ছে। কমলে আবার টোল নিয়ে গাড়ি ছেড়ে দেয়া হচ্ছে। 

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত

সর্বশেষ খবর