শিরোনাম
প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১০:০৭
প্রিন্ট করুন printer

ভারতে যৌন নির্যাতন সংক্রান্ত আদালতের মন্তব্য নিয়ে উত্তপ্ত বলিউড

অনলাইন ডেস্ক

ভারতে যৌন নির্যাতন সংক্রান্ত আদালতের মন্তব্য নিয়ে উত্তপ্ত বলিউড

শারীরিক স্পর্শ ছাড়া কোনও নাবালিকার বুকে চাপ দেওয়ার ঘটনাকে পকসো আইনের আওতায় যৌন নির্যাতন হিসেবে বিবেচনা করা যাবে না। একটি মামলায় এমনটিই জানাল বম্বে হাইকোর্টের নাগপুর বেঞ্চ।

১৯ জানুয়ারি একটি রায়ে বিচারপতি পুষ্প গানেদিওয়ালা জানিয়েছেন, ‘যৌন উদ্দেশ্যে ত্বকের সঙ্গে ত্বকের সংস্পর্শ’ হলে তবেই তা যৌন নির্যাতন হিসেবে বিবেচনা করা হবে। নিম্ন আদালতের রায় সংশোধন করে করে এ কথা বলেন তিনি।

২ বছরের এক নাবালিকাকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে ৩৯ বছরের এক ব্যক্তিকে পকসো আইন এবং ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৫৪ ধারায় আওতায় তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয় নিম্ন আদালত। সঙ্গে ৫০০ টাকা জরিমানা ধার্য করা হয়। অনাদায়ে আর এক মাসের জেলের সাজা দেয় নিম্ন আদালত।

ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে, আদালতের এ মন্তব্য প্রকাশ্যে আসার পরই সমাজের বিভিন্ন স্তরে চলছে প্রতিবাদের ঝড়। চুপ করে নেই বলিউডের সেলিব্রিটিরাও।

তাপসী পান্নু খবরটি টুইট করে লিখেছেন, ‘‘অনেকক্ষণ ধরেই ভাবছি। তবে এই খবরটা পড়ে যা মনে হচ্ছে, তা প্রকাশের শব্দ এখনও খুঁজে পাইনি।’’

তারপরেই ‘ন্যাশনাল গার্লস ডে’র শুভেচ্ছা জানিয়ে টুইট করেছেন তাপসী। বলা হচ্ছে, এই রায় সমাজের প্রতিটি নাবালিকার গালে যেভাবে থাপ্পড় মেরেছে, তার প্রতি ধিক্কার জানিয়ে তাপসীর পরের টুইটটি।

রিতেশ দেশমুখ খবরটি টুইট করে লিখেছেন, ‘‘এটা কি ভুয়া খবর?’’ সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরেছেন পরিচালক ওনির, অভিনেত্রী শিবানী দান্ডেকর প্রমুখ।

এই রায় সব ক্ষেত্রে প্রযোজ্য কি-না তা নিয়ে আইনি লড়াই এখন চলবে। তবে এই রায়ের আপাত অসংবেদনশীলতাই ভাবিয়ে তুলছে সাধারণ মানুষ থেকে সেলেব্রিটিদের।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:১৭
আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:২২
প্রিন্ট করুন printer

প্রথমে বাবার সঙ্গে প্রেম, কয়েক বছর পর ছেলের সঙ্গেও সম্পর্কে জড়ান এই অভিনেত্রী!

অনলাইন ডেস্ক

প্রথমে বাবার সঙ্গে প্রেম, কয়েক বছর পর ছেলের সঙ্গেও সম্পর্কে জড়ান এই অভিনেত্রী!
রেখা

রেখা, বলিউডের একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী। নিজের সময়ে পর্দা কাঁপানো নায়িকা ছিলেন তিনি। তবে এই রেখা সম্পর্কে বলিউডে বহুবার বহু কথা রটেছে। তাকে এক সময় ‘ঘর ভাঙানি’ বলেও দাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল। কারণ রেখা নাকি বারবারই তার সহ অভিনেতাদের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়তেন।

প্রেম নিয়ে রেখার জীবন বিতর্কে ভরপুর। রেখার সিঁদুর পরা নিয়েও নানা গুঞ্জন শোনা যায়। সে সব নিয়ে নির্বিকার রেখা আপন শর্তেই জীবন কাটিয়েছেন বরাবর।

রেখার বহুল বিতর্কিত প্রেমজীবনের একাংশে রয়েছে এমন একটি সম্পর্ক যা হয়তো অনেকেই জানেন না। অভিযোগ, অতীতের এক প্রথম সারির অভিনেত্রীর স্বামী এবং সন্তানের সঙ্গেও সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন রেখা!

এতে ওই অভিনেত্রী এতটাই বিরক্ত হয়েছিলেন যে এক সাক্ষাৎকারে তাকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি ক্যামেরার সামনেই রেখাকে ‘ডাইনি’ পর্যন্ত বলে বসেন। এ নিয়ে সে সময় ইন্ডাস্ট্রিতে খুব পানিঘোলা হয়েছিল। রেখা কিন্তু এ ক্ষেত্রেও পুরোদস্তুর নির্বিকারই ছিলেন।

ওই অভিনেত্রী ছিলেন নার্গিস। তার স্বামী সুনীল দত্তের সঙ্গে ‘প্রাণ যায় পার বাচন না যায়’, ‘নাগিন’-এর মতো ছবিতে একসঙ্গে কাজ করেছেন রেখা।

সুনীলের সঙ্গে কয়েকটি ছবিতে কাজ করার পরই রেখার নাম জড়াতে শুরু করে তার সঙ্গে। ইন্ডাস্ট্রিতে তাদের দু’জনের সম্পর্ক নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়। যা নার্গিসের কানেও পৌঁছায়।

রেখার বয়স তখন মাত্র ২২ বছর। নার্গিস সংবাদমাধ্যমের সামনেই রেখার প্রসঙ্গ টেনে অত্যন্ত অপমানজনক কথা বলেছিলেন। ‘রেখার মতো মেয়েরা খুব সহজ উপলব্ধ’, ‘রেখার মতো মেয়েদের মানসিক চিকিৎসার প্রয়োজন’— এমন নানা মন্তব্য করেন তিনি।

এ নিয়ে রেখাকেও অনেক প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়েছিল। কিন্তু রেখার মুখে কখনও কোনও কুমন্তব্য শোনা যায়নি।

এই ঘটনার কয়েক বছর পর আবার রেখার নাম জুড়ে যায় নার্গিস এবং সুনীল দত্তের ছেলে সঞ্জয় দত্তের সঙ্গে।

১৯৮৪ সালে সঞ্জয়ের সঙ্গে ‘জামিন আসমান’ ছবিতে অভিনয় করেন রেখা। ছবির শ্যুটিংয়ের সময় থেকেই তারা একে অপরের ঘনিষ্ঠ হতে শুরু করেছিলেন।

ছবির মুক্তির পরপরই তাদের সম্পর্ক নিয়েও আলোচনা হতে শুরু করে ইন্ডাস্ট্রিতে। বিষয়টি নার্গিস এবং সুনীলের একেবারেই পছন্দ ছিল না। সঞ্জয়কে নাকি তারা অনেক বুঝিয়েও ছিলেন। কিন্তু সে সময় মা-বাবার কথায় নাকি পাত্তা দেননি সঞ্জয়।

এমনও গুঞ্জন উঠেছিল তারা নাকি পালিয়ে বিয়েও করেছিলেন। রেখার সিঁদুর পরা নিয়ে যে সমস্ত গুঞ্জন শোনা যায় তার মধ্যে অন্যতম হল, রেখা নাকি অমিতাভ বচ্চনের জন্য সিঁদুর পরেন। কিন্তু এক সময় সিঁদুরের নেপথ্যে সঞ্জয়ের নামও উঠে আসতে শুরু করেছিল।

তবে সঞ্জয়ের সঙ্গে নাম জড়ানোর পর তার বাবা সুনীল ছেলের থেকে দূরে থাকার জন্য সতর্ক করেছিলেন রেখাকে। রেখার বাড়ি গিয়ে তিনি সঞ্জয়ের থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে বলেছিলেন। তারপর অবশ্য সঞ্জয় এবং রেখা দু’জনেই সংবাদমাধ্যমের সামনে নিজেদের সম্পর্কের কথা অস্বীকার করেছিলেন।

১৯৮৭ সালে রিচা শর্মাকে বিয়ে করেন সঞ্জয়। ১৯৯৬ সালে মস্তিষ্ক টিউমারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় রিচার। তারপর ১৯৯৮ সালে রিয়া পিল্লাইকে বিয়ে করেন তিনি। ১০ বছর পর তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়। ২০০৮ সালে মান্যতাকে বিয়ে করেন সঞ্জয়। বর্তমানে তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ে।

রেখা ১৯৯০ সালে দিল্লির ব্যবসায়ী মুকেশ আগারওয়ালকে বিয়ে করেন। বিয়ের কয়েক মাসের মধ্যেই তার স্বামী আত্মহত্যা করেন। তারপর থেকে একাই জীবন কাটাচ্ছেন রেখা। সূত্র: আনন্দবাজার

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৯:৩৯
আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:২৩
প্রিন্ট করুন printer

মৃত্যুর ২৮ বছর পর এখনও উজ্জ্বল দিব্যা ভারতী

অনলাইন ডেস্ক

মৃত্যুর ২৮ বছর পর এখনও উজ্জ্বল দিব্যা ভারতী
ফাইল ছবি

মৃত্যুর পর কেটে গেছে ২৮ বছর। মৃত্যুর পর ২৮ বছর কেটে গেলেও বলিউডে এখনও অমলিন দিব্যা ভারতীর স্মৃতি। ১৯৯০ সালে দক্ষিণী সিনেমা 'বাবলি রাজা' দিয়ে অভিনয় জীবনে পা রাখেন দিব্যা। এরপর কয়েকটি দক্ষিণী ছবির পর বলিউডে পা রাখেন অভিনেত্রী। 

বি টাউনে পা রেখে ঋষি কাপুর, শাহরুখ খান, সানি দেওল, সুনীল শেট্টির মতো একের পর এক বড় মাপের অভিনেতার সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করে ব্লকবস্টার সিনেমা উপহার দেন দিব্যা। অভিনয়ের মাঝে প্রযোজক সাজিদ নাদিয়াদওলাকে বিয়ে করার পর মাত্র ১৯ বছরেই মৃত্যু হয় দিব্যা ভারতীর। অভিনেত্রীর মৃত্যুর পর ২৮ বছর গেলেও এখনও অমলিন দিব্যার স্মৃতি। 

১৯৯৩ সালে 'ক্ষত্রিয়' ছবিতে সঞ্জয় দত্তের সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করেন দিব্যা ভারতী। বলিউডে পা রাখার পর সুনীল শেট্টির সঙ্গে পরপর ৩টি ছবিতে স্ক্রিন শেয়ার করেন তিনি। ওই সময় বি টাউনের অন্যতম হিট জুটি ছিলেন সুনীল শেট্টি এবং দিব্যা ভারতী 
  
'কর্তব্য' ছবিতে সঞ্জয় কাপুরের সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করার কথা ছিল দিব্য়া ভারতীর। ওই সিনেমার অর্ধেক শ্যুটের পর মৃত্যু হয় দিব্যার। ফলে এই ছবিতে সঞ্জয় কাপুরের সঙ্গে দেখা যায় জুহি চাওলাকে। এই সিনেমা মুক্তি পায় ১৯৯৫ সালে। 

পরিচালক রাজ কানওয়ারের দিওয়ানায় শাহরুখ খানের সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করেন দিব্যা ভারতী। ১৯৯২ সালে 'দিওয়ানা' ছবিতে ঋষি কাপুরের সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করেন দিব্যা ভারতী। এই সিনেমায় ঋষি কাপুর এবং দিব্যার সঙ্গে দেখা যায় শাহরুখ খানকেও।
  
পরিচালক ডেভিড ধাওয়ানের 'শোলা অউর শবনম' ছবিতে দিব্যা ভারতীর সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করেন গোবিন্দ। ১৯৯২ সালে বক্স অফিসে ব্যাপক সাফল্য পায় এই ছবি। 
  

বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:৫৩
প্রিন্ট করুন printer

ফের সোশ্যাল মিডিয়া কাঁপালেন মালাইকা আরোরা

অনলাইন ডেস্ক

ফের সোশ্যাল মিডিয়া কাঁপালেন মালাইকা আরোরা
সংগৃহীত ছবি

তার যেন বয়সই বাড়ে না। এখনও তরুণীদের টেক্কা দিতে পারে তার ফিটনেস। তিনি বলিউডের জনপ্রিয় 'আইটেম গার্ল' মালাইকা আরোরা। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় পুরানো ছবি পোস্ট করেই ঝড় তুললেন মালাইকা। 

সাদাকালো সেই ছবি হার মানাবে রঙিন ছবিকে। ধানক্ষেতের মধ্যে খালি পায়ে দৌড়াচ্ছেন তিনি। পরনে স্কার্ট, অফ-শোল্ডার টপ। খোলা চুল ঢেকেছে মুখ। ক্যাপশনে লিখেছেন, "রান মালা রান..."।

আসলে ১৯৯৮ সালে হলিউডের বিখ্যাত ক্লাসিক সিনেমা 'রান লোলা রান' থেকে অনুপ্রাণিত হয়েই বহু বছর আগে এই ফটোশ্যুট করেছিলেন মালাইকা। বলাই বাহুল্য, এমন ক্লাসিক ছবিতে 'আগুন' আর 'লাভ' রিঅ্যাক্টে ভরে গেছে ইতোমধ্যেই। এমনকি ক্যাটরিনা কাইফও মন্তব্য করেছেন, "আমার দেখা এটা তোমার সেরা ফটোশ্যুট!" 

বহুদিন বড় পর্দায় দেখা যায়নি মালাইকাকে। তবুও খবরের শিরোনামে তিনি সবসময় থাকেন। আরবাজ খানের সঙ্গে ডিভোর্সের পর বয়ফ্রেন্ড অর্জুন কাপুরের সঙ্গেই সর্বক্ষণ দেখা যায় তাকে। তবে ফের কবে বিয়ে করছেন, যদিও সেসব নিয়ে এখনও কিছু জানাননি অভিনেত্রী। 


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:২৫
প্রিন্ট করুন printer

শাকিব এখনও সাবালক হতে পারেননি: সেলিম খান

অনলাইন ডেস্ক

শাকিব এখনও সাবালক হতে পারেননি: সেলিম খান
সেলিম খান ও শাকিব খান

আবারও আলোচনায় ঢাকাই চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রির 'কাদা ছোঁড়াছুঁড়ি'। সম্প্রতি, শাপলা মিডিয়া একশটি সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা দেয়। অন্যদিকে, চিত্রনায়ক শাকিব খান এক সংবাদ সম্মেলনে একশ সিনেমার প্রযোজককে স্টুপিড বলে বসেন। আর শাকিবের এমন মন্তব্যে চটেছেন ঢাকাই সিনেমার চলচ্চিত্র এই নির্মাতা।

শাকিবের এমন মন্তব্যে প্রতিক্রিয়ায় শাপলা মিডিয়ার প্রযোজক সেলিম খান জানিয়েছেন, শাকিব খান যে মন্তব্য করেছেন তা সত্যিকার অর্থে একজন নাবালক ছেলের মতো। একজন সুপারস্টার তার জায়গা থেকে এইভাবে অফিসিয়ালি কথা বলতে পারেন না। তাছাড়া আমার সিনেমার বাজেট কত সে বিষয়েও আমরা কোনো কথা বলিনি।

সেলিম খান আর বলেন, আমার সিনেমায় ওপার বাংলার প্রসেনজিৎ, দেব, ঋতুপর্ণা, রজতাভ দত্তসহ আরো অনেকে কাজ করবেন। তাছাড়া আমাদের দেশের সাইমন, মাহি, নিরব থেকে শুরু করে অনেকেই কাজ করবেন। শাকিব খান এখনও নাবালক থেকে সাবালক হতে পারেননি। তাই এই কথাগুলো তিনি বলেছেন। 

সম্প্রতি  ১০০টি সিনেমা নির্মাণ করার বিশাল পরিকল্পনার ঘোষণা দেন শাপলা মিডিয়ার কর্ণধার সেলিম খান। চলতি মাসের ২২ তারিখ থেকে নতুন করে ১০টি সিনেমার শুটিং শুরু হয়েছে। এই মুহূর্তে শাপলা মিডিয়ার ব্যানারে নির্মিত হচ্ছে ‘কমান্ডো’, ‘গ্যাংস্টার’সহ বেশ কিছু সিনেমা।


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৮:৪৯
আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৯:০১
প্রিন্ট করুন printer

শাপলা মিডিয়ার ৩ ছবিতে কায়েস আরজু

অনলাইন প্রতিবেদক

শাপলা মিডিয়ার ৩ ছবিতে কায়েস আরজু
কায়েস আরজু

ঢাকাই সিনেমার এ প্রজন্মের নায়কদের মধ্যে আলোচিত মুখ কায়েস আরজু। এরই মধ্যে ৯টি ছবি মুক্তি পেয়েছে তার। এছাড়া মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে আরও বেশ কয়েকটি ছবি। নতুন খবর হচ্ছে তিনি প্রযোজনা সংস্থা শাপলা মিডিয়ার তিনটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। 

এর মধ্যে ‘এক পশলা বৃষ্টি’ নামের প্রথম ছবির কাজ শুরু হয়েছে। এই ছবির মধ্য দিয়ে প্রথমবার কায়েস আরজু ও আচঁলের রসায়ন দেখতে পারবে দর্শক। এছাড়া প্রযোজনা সংস্থা শাপলা মিডিয়া ও পরিচালক জাফর আল মামুনের সঙ্গেও এটাই আরজুর প্রথম কাজ।

ছবিটি নিয়ে চিত্রনায়ক কায়েস আরজু বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘এক পশলা বৃষ্টি’ মূলত একটা পিওর প্রেমের ছবি। আমি এত দিন যে ধরনের ছবিতে অভিনয়ের জন্য মুখিয়ে ছিলাম, বলা যায় এই ছবির গল্প তেমনই। একটা হৃদয় বিদারক প্রেমের কাহিনী উঠে আসবে এই ছবিতে।

‘আমরা অতীতে বহুবার দেখেছি ছবি চলে গল্পে। গল্প ভালো না হলে সেই ছবি বেশি সময় আলোচনায় থাকতে পারে না। এই ছবির গল্প শুনে আমার মনে হয়েছে গদবাধা ছকের বাইরে হৃদয়স্পর্শী কিছু একটা হতে যাচ্ছে। সব কিছু ঠিক থাকলে আশা করি দর্শকরা নিরাশ হবেন না।’

এই চিত্রনায়ক আরও বলেন, করোনা পরবর্তী সময়ে এসে বর্তমানে দেশের চলচ্চিত্রাঙ্গনে যে পজিটিভ আবহ দেখছি, তা আমার ক্যারিয়ারের বিগত দশ বছরেও দেখিনি। অনেকেই কাজ না পেয়ে খারাপ সময় পার করছিলেন, তবে সম্প্রতি সরকারের বড় ঘোষণা ও শাপলা মিডিয়ার উদ্যোগে গতিশীলতা এসেছে ফিল্মপাড়ায়। 

আরজু উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে বলেন, এই মুহূর্তে দেশের বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান হচ্ছে শাপলা মিডিয়া। তাদের নতুন তিনটি সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। সিনেমার গল্পগুলোতে থাকছে নতুনত্ব। আশা করছি, সিনেমাগুলো থেকে দর্শক বিনোদনের ভাল উপকরণ পাবেন।

উল্লেখ্য, গত ২৩ ফেব্রুয়ারি শাপলা মিডিয়ার তিন সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হন কায়েস আরজু। এর মধ্যে প্রথম সিনেমার শুটিং আজ গতকাল (২৪ ফেব্রুয়ারি) উত্তরার একটি শুটিং হাউজে শুরু হয়েছে। ছবিটি এ বছরেই মুক্তির পরিকল্পনা রয়েছে। 

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর