Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৫ মে, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ মে, ২০১৮ ২৩:০৩

মনিটরে আওয়ামী লীগ

রফিকুল ইসলাম রনি

মনিটরে আওয়ামী লীগ

খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচন কেন্দ্রীয়ভাবে মনিটরিং করবে আওয়ামী লীগ। আজ সকালে ভোট গ্রহণ থেকে শুরু করে রাতে ফলাফল ঘোষণা পর্যন্ত স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে সমন্বয় করা হবে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে দলীয় নেতারা নির্বাচন মনিটরিং করবেন। কেউ যাতে কোনো প্রকার বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে সে ব্যাপারেও কঠোর নজরদারি করা হবে।

আওয়ামী লীগ নেতারা জানিয়েছেন, দলীয় প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেক সবচেয়ে শক্তিশালী ও স্থানীয়ভাবে গ্রহণযোগ্য। মেয়র হিসেবে খুলনায় ব্যাপক উন্নয়ন করেন তিনি গত সময়ে। আর গত সময়ে বিএনপির প্রার্থীকে বিজয়ী করে খুলনাবাসী উন্নয়ন পায়নি। সে কারণে এবার তালুকদার আবদুল খালেকের বিজয়ের সম্ভাবনা দেখছেন আওয়ামী লীগের নেতারা।

ধানমন্ডি আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর কার্যালয়ে বসে নির্বাচনের সার্বিক মনিটরিং করবেন খুলনা সিটির দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা ও দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য পীযূষকান্তি ভট্টাচার্য, দলের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, এনামুল হক শামীমসহ কেন্দ্রীয় নেতারা। এ ছাড়া খুলনায় মাঠে থাকবেন কেন্দ্রীয় নেতা ও স্থানীয়ভাবে গঠিত তালুকদার আবদুল খালেকের নির্বাচনী প্রধান সমন্বয়ক এস এম কামাল হোসেন। তিনি কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করবেন।

এ প্রসঙ্গে মাহবুব-উল আলম হানিফ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্পন্ন করা আমাদের প্রথম কাজ। যে কারণেই ঢাকায় বসে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড মনিটর করবেন। এই নির্বাচন ঘিরে বিএনপি-জামায়াত যেন ইস্যু তৈরি করতে না পারে সেজন্য আমরা সতর্ক রয়েছি। আওয়ামী লীগ প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেকের স্থানীয় নির্বাচনী প্রধান সমন্বয়ক ও কেন্দ্রীয় নেতা এস এম কামাল হোসেন বলেন, বিএনপি প্রার্থী নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে দীর্ঘদিন ধরেই মিথ্যাচার করছেন। নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করতে বিভিন্ন এলাকা থেকে খুলনায় শিবির-ছাত্রদল ক্যাডারদের ভাড়া করে এনেছেন বলে আমরা শুনেছি। সে কারণে আমরা দলীয় নেতা-কর্মীদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছি। দলীয় সূত্রমতে, খুলনা সিটিতে যাতে অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হয় সে লক্ষ্যে প্রয়োজনে প্রশাসনকে সহায়তা করার জন্য কেন্দ্র থেকে দলীয় নেতা-কর্মীদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কোথাও কোনো বিশৃঙ্খলা ও অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেলে কেন্দ্র থেকেই তৃণমূল নেতাদের দিকনির্দেশনা দেওয়া হবে।


আপনার মন্তব্য