Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২০ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ জুলাই, ২০১৯ ২২:৫৯

জিজ্ঞাসাবাদের নামে অত্যাচার করা হয়

------ খুশী কবির

জিজ্ঞাসাবাদের নামে অত্যাচার করা হয়

বেসরকারি সংস্থা ‘নিজেরা করি’র সমন্বয়ক খুশী কবির বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেছেন, একজন নারীকে যখন রিমান্ডে নেওয়া হবে তখন সেখানে একজন নারী পুলিশকে থাকতে হবে সব সময়। এ কথা আইনেও বলা আছে। কিন্তু বাস্তবে এ চিত্র উল্টো। আইন মেনে তো নারী পুলিশ রাখা হয়ই না বরং জিজ্ঞাসাবাদের নামে নানাভাবে অত্যাচার করা হয়। এ অত্যাচার দুই ধরনের হতে পারে-  শারীরিক কিংবা মানসিক। এটা রিমান্ডে থাকা ব্যক্তির অবস্থানের ওপর এবং পুলিশ কতটা সম্মান করতে জানে তার ওপর নির্ভর করে। এভাবেই অনেকের কাছে জোর করে স্বীকারোক্তি আদায় করা হয়। আমরা অনেক মামলায় দেখেছি, একজন আসামি ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে জবানবন্দী দেওয়ার পর যখন মামলাটি আদালতে ওঠে, তখন কিন্তু ওই আসামি বিচারকের সামনে বলে তাকে চাপ প্রয়োগ করে স্বীকারোক্তি নেওয়া হয়েছে। পরে সে ওই স্বীকারোক্তি তুলে নেওয়ার আবেদন করে এবং আদালত বেশির ভাগ সময় সেই আবেদন গ্রহণ করে। এ ছাড়া একজন নারী যখন রিমান্ডে থাকবেন। আর যে ঘরে তাকে রাখা হবে সেখানে আলাদা টয়লেটের ব্যবস্থা থাকবে। অথচ অনেকের কাছ থেকে আমি শুনতে পাইÑ এ ব্যবস্থা রাখা হয় না। যারা এ পর্যন্ত রিমান্ডে গেছে, তারা ফিরে এসে এসব জানিয়েছেন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর