শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ অক্টোবর, ২০২০ ২৩:২৩

পাকিস্তানে সেনার বিরুদ্ধে পুলিশ প্রধানকে অপহরণের অভিযোগ

উত্তাল সিন্ধু, সংঘর্ষে ১০ পুলিশ নিহত

পাকিস্তানে সেনার বিরুদ্ধে পুলিশ প্রধানকে অপহরণের অভিযোগ

সেনাবাহিনী বনাম পুলিশের লড়াইয়ের জেরে অশান্ত পাকিস্তান! সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে সিন্ধু প্রদেশের পুলিশপ্রধানকে অপহরণের অভিযোগ উঠেছে। নওয়াজ শরিফের জামাইকে গ্রেফতারের নির্দেশ দিতে বাধ্য করতেই তাকে অপহরণ করা হয় বলে খবর। এদিকে পুলিশপ্রধানের অপমানের বদলা নিতে করাচিতে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বেঁধে যায়। সেই সংঘর্ষে ১০ জন পুলিশ কর্মীর প্রাণও গেছে বলে দাবি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে এই ঘটনার দ্রুত তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন পাকিস্তানের সেনাপ্রধান কামার জাভেদ বাজওয়া।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান প্রশাসনের বিরুদ্ধে সিন্ধু প্রদেশে সম্প্রতি একটি মিছিল করে বিরোধীরা। তার নেতৃত্বে ছিলেন নওয়াজ শরিফের জামাই সফদর। সেখানে কার্যত সেনার বিরুদ্ধেও স্লোগান দেওয়া হয়েছিল। সেই অভিযোগে ওই মিছিলের পরই সফদরকে গ্রেফতার করা হয়। ওই দিনই অবশ্য আদালতে জামিনও পেয়ে যান সফদর। পুলিশ সূত্রে খবর, সফদরকে গ্রেফতার করতে রাজি ছিল না সিন্ধু পুলিশ। কিন্তু পাক রেঞ্জার্স তাকে গ্রেফতারের জন্য আইজির ওপর চাপ সৃষ্টি করতে থাকে। গ্রেফতারির নির্দেশে সই করার জন্য তার ওপর নানাভাবে চাপ তৈরি করা হয়। তারপরও মেহর রাজি না হওয়ায় তাকে অপহরণ করে পাক রেঞ্জার্সের অফিসে নিয়ে যাওয়া হয় বলে পুলিশ সূত্রে খবর। পুলিশ রাজি না হওয়ায় সফদরকেও পাক রেঞ্জার্সই গ্রেফতার করে বলে পুলিশের একটি সূত্রে দাবি। আন্তর্জাতিক একটি সংবাদ মাধ্যমের খবর, সিন্ধের ঘটনার জেরে করাচিতে গৃহযুদ্ধ শুরু হয়েছিল। সেনার সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ বাধে। তাতে করাচিতে ১০ পুলিশকর্মীর মৃত্যু হয়েছে বলেও খবর। যদিও এ নিয়ে পাকিস্তান সংবাদ মাধ্যমে এই ধরনের কোনো খবর প্রকাশ হয়নি। মুখ খোলেননি প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের কেউ।

এদিকে সিন্ধু পুলিশের প্রধানের এহেন অপমানে বাহিনীর মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ সঞ্চার হয়। তারা গণছুটির আবেদন জানাতে থাকেন। এই ঘটনায় পুলিশ বাহিনীকে অপমান এবং অপদস্থ করা হয়েছে বলেও সিন্ধু পুলিশের পক্ষে টুইটও করা হয়। এরপরই করাচিতে অশান্তি ছড়ায় বলে খবর।


আপনার মন্তব্য