শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৯ নভেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ নভেম্বর, ২০১৬ ২৩:২৮

প্রকৃতি

দীর্ঘ হচ্ছে বিপন্ন প্রাণীর তালিকা

মোস্তফা কাজল

দীর্ঘ হচ্ছে বিপন্ন প্রাণীর তালিকা

দীর্ঘ হচ্ছে বিপন্ন বন্যপ্রাণীর তালিকা। এর মধ্যে হারিয়ে গেছে প্রায় ১৩ প্রজাতির মেরুদণ্ডী প্রাণী। এগুলোর ১০টি স্তন্যপায়ী, দুটি পাখি এবং একটি সরীসৃপ প্রজাতির। বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম জনবহুল ও ক্ষুদ্র আয়তনের দেশ। ভৌগোলিক অবস্থান আর ঋতুবৈচিত্র্যের কারণে এ দেশে নানা ধরনের জীব দেখা যায়। ফলে অনেক উন্নত দেশ থেকেও এ দেশ অনেক সম্পদশালী। ফলে জনসংখ্যা বৃদ্ধি আর অপরিকল্পিত উন্নয়নের কারণে বন্যপ্রাণীর বাসস্থান—

বন-জঙ্গল, ঝোপঝাড়, জলাশয়, হাওর-বাঁওড়, বিল-ঝিল ধ্বংস হওয়ার পাশাপাশি পরিবর্তিত হচ্ছে। এর ফলে দিন দিন সংকুচিত হচ্ছে বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল। কমে যাচ্ছে সংখ্যা। কয়েক প্রজাতি বিচ্ছিন্ন ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র গোষ্ঠীতে পরিণত হয়েছে। আর কয়েক প্রজাতি হয়েছে সম্পূর্ণভাবে বিলুপ্ত। যে হাজারখানেক প্রজাতি এখনো টিকে আছে তা পরিবর্তিত পরিবেশে আজ বিপন্ন। আইইউসিএন রেড ডাটা বুকের তথ্যমতে, বাংলাদেশের মোট বন্যপ্রাণীর প্রায় ১৫ ভাগ বিপন্ন। এ ছাড়া প্রায় ২৫ ভাগ সম্পর্কে কোনো তথ্য নেই। পরিবেশে নিজ নিজ ভূমিকা রাখার কারণে প্রাণিজগতের প্রতিটি প্রাণীরই গুরুত্ব সমান। তবে আকার-আকৃতি, শারীরিক গঠন ও বুদ্ধির দিক থেকে স্তন্যপায়ী প্রাণী সবচেয়ে এগিয়ে। বাংলাদেশে ১১৯ প্রজাতির স্তন্যপায়ীর মধ্যে প্রায় এক-তৃতীয়াংশ বিপন্ন। এর মধ্যে রয়েছে হাতি, রয়েল বেঙ্গল টাইগার, উল্লুক, লজ্জাবতী বানর, চশমাপরা হনুমান, এশীয় কালো ভল্লুক, মায়াহরিণ, সাম্বার হরিণ, মেছোবিড়াল, ভোঁদড়, খাটাশ, কাঠবিড়ালী, বাদুড়, ডলফিন, শজারু, গয়াল প্রভৃতি। একসময় প্রায় দেশজুড়ে বাঘের বিচরণ থাকলেও এখন তা সীমাবদ্ধ হয়ে পড়েছে শুধু সুন্দরবনে। সুন্দরবনের অন্য দুই বাসিন্দা মেছোবিড়াল ও ভোঁদড়ের সংখ্যাও কমে যাচ্ছে। বিশালদেহী প্রাণীর মধ্যে হাতি খুব একটা ভালো অবস্থানে নেই। বিশ্বে বিপন্ন প্রাণীর তালিকায় উঠে এসেছে গয়াল বা মিথুন। কেউ কেউ আবার একে বনগরুও বলে। বাংলাদেশের পার্বত্য অঞ্চলের কয়েক জায়গায় কালেভদ্রে এদের দেখা যায়। গরুজাতীয় প্রাণীদের মধ্যে সবচেয়ে বড় গয়াল বাংলাদেশে মহাবিপন্ন প্রাণী হিসেবে তালিকায় অন্তর্ভুক্ত। জলজ পরিবেশ নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় জলজ প্রাণীরাও হুমকিতে। সুন্দরবন এলাকার নদীগুলোতে লবণাক্ততা বৃদ্ধি পেয়েছে। নদীদূষণ ও নাব্য কমে যাওয়ায় নদীতে আগের মতো দেশি মাছ দেখা যায় না। দেখা মেলে না ডলফিনের। গ্রামীণ পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া প্রাণী শিয়াল, বাগডাশা, বেজি, শজারুর সংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে। বন-জঙ্গল কমে যাওয়া ও আবাসস্থল সংকটের কারণে উল্লুক, চশমাপরা হনুমান, লজ্জাবতী বানর, এশীয় কালো ভল্লুক, মায়াহরিণ, সাম্বার হরিণ হারিয়ে যেতে বসেছে। উল্লুুক ও চশমাপরা হনুমান রয়েছে মহাবিপন্নের তালিকায়। বাংলাদেশের অন্যান্য প্রাণীর তুলনায় সরীসৃপ নিয়ে গবেষণা কম হওয়ায় তেমন কোনো তথ্য পাওয়া যায় না। যে গবেষণা হয়েছে তা থেকে জানা যায়, দেশের প্রায় ১৫৮ প্রজাতির সরীসৃপের মধ্যে ৬৩ প্রজাতি রয়েছে বিপন্ন ও মহাবিপন্নের তালিকায়। অজগর, লোনাপানির কুমির, ঘড়িয়াল, বোস্তামি কাছিম, পাতা কাছিম, অলিভ রিডলি কাছিম, গোখরা, শঙ্খিনী, সবুজবোড়াসহ অন্যান্য বিষধর সাপ, গুঁইসাপ ও নানা প্রজাতির টিকটিকি এ-জাতীয় প্রাণির মধ্যে অন্যতম। সুন্দরবন এলাকায় এখনো টিকে আছে অল্পসংখ্যক লোনাপানির কুমির। মিঠাপানির কুমির ইতিমধ্যে প্রকৃতি থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। ঘড়িয়াল একসময় বাংলাদেশের সব বড় নদীতে পাওয়া গেলেও এখন বিলুপ্তপ্রায়। ছোট প্রাণীর মধ্যে উড়ুক্কু টিকটিকি, রক্তচোষার সংখ্যাও কমে যাচ্ছে। নদীদূষণ ও ভরাট হয়ে যাওয়া, অবৈধ শিকারসহ নানা কারণে কাছিমের অবস্থা সংকটাপন্ন। গ্রামগঞ্জের পুকুর বা অন্যান্য জলাশয়ে যে কাছিম আগে সহজেই দেখা যেত, বর্তমানে তারা বিরল। পাহাড়ি অঞ্চলের কাছিমসহ সামুদ্রিক কাছিমের সংখ্যাও আশঙ্কাজনকভাবে কমে যাচ্ছে। সাপের বিভিন্ন প্রজাতিও রয়েছে প্রায় বিপন্নের তালিকায়। বিষধর বা বিষহীন দুই ধরনের সাপের সংখ্যাই দিন দিন কমে যাচ্ছে। জল ও স্থল উভয় পরিবেশে বসবাসকারী প্রাণীর নাম উভচর। বেঁচে থাকার জন্য এসব প্রাণীর দুই পরিবেশই অপরিহার্য। যে কোনো একটি পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্ত হলে এসব প্রাণীর জীবন সংকটাপন্ন হয়ে পড়ে। বাংলাদেশে প্রায় ৪৯ প্রজাতির উভচর প্রাণীর মধ্যে কয়েক প্রজাতির ব্যাঙ বিপন্ন। সুন্দরবনসহ দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বিস্তৃত সবুজ ব্যাঙ বাংলাদেশের বিপন্ন উভচরের মধ্যে অন্যতম। উজ্জ্বল সবুজ রঙের বড় আকারের ব্যাঙের সংখ্যা আগে বেশি থাকলেও উপযুক্ত প্রাকৃতিক পরিবেশ না পাওয়ায় দিন দিন এ প্রজাতির ব্যাঙ হারিয়ে যাচ্ছে। চিরসবুজ বনের বাসিন্দা লাল চীনা ব্যাঙও বিপন্নের তালিকায়। কীটনাশক ও অন্যান্য বর্জ্য পদার্থের কারণে মাটি ও পানিদূষণ, বাসস্থান ধ্বংসই এ প্রজাতি ব্যাঙের বিপন্ন হওয়ার প্রধান কারণ। সংশ্লিষ্টদের মতে, স্তন্যপায়ী, সরীসৃপ ও উভচর ছাড়া প্রাণিজগতের আরেক সদস্য হলো পাখি। ভিন্ন বৈশিষ্ট্যের অধিকারী প্রকৃতির এক অপূর্ব সৃষ্টি কয়েক প্রজাতির পাখির অবস্থাও আজ নাজুক। পাখির প্রধান আবাসস্থল বন-জঙ্গল ও জলাভূমি আজ মানবসৃষ্ট বিভিন্ন কারণে ক্ষতিগ্রস্ত। গোলাপিমাথা হাঁস ও ময়ূর বাংলাদেশের প্রকৃতি থেকে চিরদিনের মতো হারিয়ে গেছে। বাংলা শকুন, মদনটাক, রাতচরা, পেঁচা, পাহাড়ি ময়না, লটকন, পালাসি কুরা ঈগল, সাদাপেট সিন্ধু ঈগল, গাঙচষা, কালোমাথা কাস্তেচরা, সাপ, পাখিসহ অসংখ্য পাখি প্রজাতি আজ বিপন্ন। তবে পাখির মধ্যে বাংলা শকুনের অবস্থা সবচেয়ে বেশি খারাপ। গ্রামগঞ্জে মরা গরু খাওয়ার জন্য শকুনের ঝাঁকের আনাগোনা এখন অতীত। হাতে গোনা কিছু শকুন বর্তমানে বেঁচে আছে। বসবাসের উপযোগী গাছপালা, খাদ্যের অভাব ও গরুর চিকিৎসায় ব্যবহূত ডাইক্লোফেন নামক এক ধরনের ওষুধ শকুনের অস্তিত্বকে বিলুপ্তির দোরগোড়ায় নিয়ে গেছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর