শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৬ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ মার্চ, ২০১৯ ২২:৪০

অস্ত্রের ফরেনসিক রিপোর্ট পুলিশের হাতে, জিজ্ঞাসাবাদ শুরু

ময়ূরপঙ্খী ছিনতাই চেষ্টা

মুহাম্মদ সেলিম, চট্টগ্রাম

অস্ত্রের ফরেনসিক রিপোর্ট পুলিশের হাতে, জিজ্ঞাসাবাদ শুরু

বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট ‘ময়ূরপঙ্খী’ ছিনতাই চেষ্টার ঘটনায় প্রত্যক্ষদর্শীদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে মামলার তদন্তকারী সংস্থা চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের কাউন্টার   টেররিজম ইউনিট। এ ঘটনার বিষয়ে জানতে এরই মধ্যে কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এ ছাড়া ‘ময়ূরপঙ্খী’ ছিনতাই চেষ্টাকারী পলাশ আহমেদ ওরফে মাহাদির ‘দ্বিতীয় স্ত্রী’ শামসুন নাহার সিমলাসহ তার ঘনিষ্ঠ কয়েকজনকে শিগগির ডাকা হবে কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের কার্যালয়ে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রাজেশ বড়ুয়া বলেন, ‘মামলার তদন্তের অংশ হিসেবে প্রত্যক্ষদর্শীদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এরই মধ্যে কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।’ তদন্ত-সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, নানান দিক থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ঘটনার বিষয়ে মোটামুটি ধারণা  পেয়ে গেছে তদন্ত দল। তারপরও এ মামলাটি স্পর্শকাতর হওয়ায় ধীরনীতিতে এগোচ্ছে পুলিশ। পাওয়া তথ্যগুলো যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। গত বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ম্যানেজার সরোয়ার ই জাহান, বিমানবন্দর কন্ট্রোল রুমের কর্মকর্তা মনসুর ও শংকরসহ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এরই মধ্যে ময়ূরপঙ্খীর পাইলট গোলাম শফী,  ফার্স্ট অফিসার মুনতাসির মাহবুব, পাঁচ  কেবিন ক্রু শফিকা নাসিম, হোসনে আরা, শরিফা বেগম, শাহেদুজ্জামান ও আবদুস শুকুর মোজাহিদকে অনুমতি পাওয়া গেলে এ সপ্তাহের মধ্যেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। ছিনতাই চেষ্টাকারী পলাশ আহমেদ ওরফে মাহাদির ‘দ্বিতীয় স্ত্রী’ শামসুন নাহার সিমলা ও পলাশের পরিবারের সদস্যদেরও শিগগির জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চট্টগ্রামে ডাকা হবে।

অস্ত্রের ফরেনসিক প্রতিবেদন : ময়ূরপঙ্খী ছিনতাই চেষ্টায় ব্যবহৃত অস্ত্রটি ‘খেলনা’ বলে প্রতিবেদন দিয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ফরেনসিক বিভাগ। গত বুধবার সিআইডির প্রতিবেদনটি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার হাতে আসে। এ ছাড়া বিমান থেকে আলামত হিসেবে সংগ্রহ করা বোমাসদৃ বস্তু, বিমানে বিস্ফোরিত ‘পটকার’ অংশ, পলাশের ব্যবহৃত বস্তুসহ অন্যান্য আলামতের প্রতিবেদন শিগগির হাতে পাওয়ার আশা করছে তদন্ত দল।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রাজেশ বড়ুয়া বলেন, ‘ছিনতাইয়ের প্রচেষ্টায় ব্যবহার করা ‘অস্ত্র’টি ব্যালিস্টিক পরীক্ষায় দেখা গেছে এটি প্লাস্টিকের তৈরি অকেজো খেলনার পিস্তল। এ খেলার পিস্তলটির কোনো কার্যক্ষমতা নেই বলে মতামত দিয়েছে সিআইডির ফরেনসিক ল্যাব। বাকি আলামতগুলোর প্রতিবেদন শিগগির পাব বলে আশা করছি।’ প্রসঙ্গত, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি বিকালে ঢাকা থেকে উড্ডয়নের পর বিমানের ফ্লাইট ‘ময়ূরপঙ্খী’ ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে পলাশ আহমেদ। বিমানটি ছিনতাইয়ের প্রচেষ্টার পর শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। পরে প্যারা কমান্ডো অভিযান চালিয়ে জিম্মিদশা থেকে বিমানটি মুক্ত করে। অভিযানেই নিহত হন ‘ময়ূরপঙ্খী’ ছিনতাই চেষ্টাকারী পলাশ আহমেদ।


আপনার মন্তব্য