শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৫ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ আগস্ট, ২০১৯ ২২:৫১

ভোলায় কিশোরীকে ধর্ষণকারী দুই যুবক বন্দুকযুদ্ধে নিহত

ভোলা প্রতিনিধি

ভোলায় ষষ্ঠ শ্রেণির কিশোরীকে ধর্ষণ মামলার প্রধান দুই আসামি আল আমিন (২৫) ও মঞ্জুর আলম (৩০) ক্রসফায়ারে নিহত হয়েছে। গতকাল ভোররাতে সদর উপজেলার দক্ষিণ রাজাপুর এলাকার বেড়িবাঁধে তারা গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন। পরে পুলিশ তাদের লাশ উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। ভোলা সদর উপজেলার চর সামাইয়া ইউনিয়নের চর সিফলী গ্রামের ওই কিশোরীকে রবিবার ঈদের আগের দিন রাতে ধর্ষণ করা হয়। জানা যায়, ষষ্ঠ শ্রেণির ওই ছাত্রী রবিবার রাত ৮টার দিকে হাতে মেহেদী লাগাতে বাড়ির পাশে আত্মীয় মাহাফুজের স্ত্রীর কাছে যায়। এ সময় মাহাফুজের ঘরের ভাড়াটিয়া আল আমিন ওই কিশোরীকে তার ঘরে ডেকে নিয়ে যায়। তখন আল আমিনের স্ত্রী ঘরে ছিলেন না। এই সুযোগে আল আমিন ও তার সহযোগী মঞ্জুর আলম ওই কিশোরীকে হাত, পা ও মুখে কাপড় বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। এ ঘটনায় আল আমিন ও মঞ্জুর আলমকে আসামি করে থানায় মামলা করা হয়। পুলিশ ওই রাতেই জামাল নামের এক ব্যক্তিকে ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার দায়ে গ্রেফতার করে। ভোলার পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার সাংবাদিকদের জানান, রাজাপুর এলাকায় দুই দল জলদস্যু নিজেদের মধ্যে গোলাগুলি করছিল। সংবাদ পেয়ে পুলিশ সেখানে গেলে জলদস্যুরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। একপর্যায়ে জলদস্যুরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ওই দুই যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করে। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি বন্দুক ও দুটি রামদাসহ বেশ কিছু কার্তুজ উদ্ধার করে। এদিকে হাসপাতালের মর্গে এসে ভিকটিম কিশোরীর স্বজনরা আল আমিন ও মঞ্জুর আলমের লাশ শনাক্ত করেন। তবে নিহতদের কোনো স্বজনকে হাসপাতাল মর্গ এলাকায় দেখা যায়নি।


আপনার মন্তব্য