শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৯ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৮ মার্চ, ২০২১ ২৩:৪২

২৬ আসন পাব : অমিত মিলবে রসগোল্লা : মমতা

পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচন

কলকাতা প্রতিনিধি

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার নির্বাচনে সবেমাত্র প্রথম দফার ভোট পর্ব মিটেছে। বাকি আরও সাত দফা। এরই মধ্যে ২০০ এর বেশি আসন পেয়ে বাংলায় সরকার গড়ার ডাক দিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তার দাবি, বাংলায় প্রথম দফার বিধানসভার নির্বাচনে ৩০টি আসনের মধ্যে বিজেপি ২৬টির বেশি আসনে জয় পাবে এবং প্রতিটি কেন্দ্রেই দল বড় ব্যবধানে জয় পাবে। গতকাল দিল্লিতে এক সংবাদ সম্মেলন করে এ মন্তব্য করেন অমিত শাহ। যদিও বিজেপিকে পাল্টা কটাক্ষ করতে ছাড়েনি তৃণমূল কংগ্রেস। দলের প্রধান মমতা ব্যানার্জি জবাবে বলেছেন, ‘৪টি আসন বাদ দিল কেন? ৩০টি আসনে জেতার কথাই তো বলতে পারত। আসলে ওদের জন্য মিলবে রস ছাড়া রসগোল্লা।’

গত ২৭ মার্চ থেকে পশ্চিমবঙ্গের ২৯৪টি আসনে বিধানসভার নির্বাচন শুরু হয়েছে। মোট আট দফায় ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে নির্বাচন। প্রথম দফায় ৩০টি আসনে ভোট গ্রহণ হয়। এ কেন্দ্রগুলো ছিল মূলত জঙ্গলমহল বলে পরিচিত পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম, বাঁকুড়া, পূর্ব মেদিনীপুর ও পশ্চিম মেদিনীপুর- এই পাঁচ জেলায়। দু-একটি বিক্ষিপ্ত সহিংসতা ছাড়া মোটের ওপর ভোট শান্তিপূর্ণই হয়। সেই বিষয়টি উত্থাপন করে অমিত শাহ বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গ এবং আসামে প্রথম দফা নির্বাচনে রাজ্যের জনগণকে হৃদয় থেকে অভিনন্দন। বেশি মাত্রায় ভোট পড়া বিজেপির পক্ষে শুভ সংকেত। পশ্চিমবঙ্গে ৮৪ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে এবং আসামে ৭৯ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘নির্বাচনের                 সঙ্গে যুক্ত বিজেপির রাজ্য, জেলা কার্যকর্তাদের সঙ্গে আলোচনার পর মনে হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গে প্রথম দফায় ৩০ আসনের মধ্যে ২৬টির বেশি আসনে বিজেপি জিতবে এবং বড় ব্যবধানে এই আসনগুলোতে জিতবে। অন্যদিকে আসামে ৪৭টি আসনের মধ্যে ৩৭টির বেশি আসনে বিজেপি জিতবে।’

অমিত শাহের ওই মন্তব্যের পর পূর্ব মেদিনীপুর জেলার চ-ীপুরের তৃণমূল প্রার্থী সোহম চক্রবর্তীর সমর্থনে এক নির্বাচনী জনসভা থেকে মমতা তোপ  দেগে বলেন, ‘গতকাল ৩০টি আসনে ভোট হয়েছে। কেউ যদি আমাকে জিজ্ঞাসা করে যে আমি কটা পাব? আমি কী করে জানাব? আমি কি ইভিএমের মধ্যে ঢুকব? মানুষ ভোট দিয়েছেন মানুষ বুঝবেন। এটুকু বলতে  পারি মা-ভাই-বোন-শ্রমিকরা আমাদের পক্ষে ভোট দিয়েছেন। কিন্তু বিজেপির এক নেতা বলেছেন, ৩০টার মধ্যে তারা ২৬টা পাবে। আমি বললাম ওরা তো ৩০টার মধ্যে ৩০টাই বলতে পারত। তবেই না গোল্লা বেশি হবে। রসগোল্লা খাবে, রস ছাড়া রসগোল্লা খাবে! তবে কি ৪টা আসন সিপিআইএম ও কংগ্রেসের জন্য রাখা হয়েছে?’ এই ইস্যুতে অমিত শাহকে কটাক্ষ করেছেন তৃণমূলের মুখপাত্র ও দলের রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন। টুইট করে তিনি লেখেন- ‘মনস্তাত্ত্বিক খেলা আর কাজে দেবে না। গুজরাট জিমখানাতে গিয়ে আসন সংখ্যা নিয়ে স্টান্টবাজি দেখান। ভুলে যাবেন না এটা বাংলা।’ প্রথম দফার নির্বাচন অবাধ ও শান্তিপূর্ণ হওয়ায় নির্বাচন কমিশনের কাজের প্রশংসাও করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘গত কয়েক বছরে বাংলায় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সহিংসতা সাধারণ ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। গণমাধ্যমের কর্মীরাও ওই সংবাদ সংগ্রহে আগ্রহ দেখাতেন না। কিন্তু এই প্রথম কোনো নির্বাচন হলো যেখানে একটিও প্রাণহানি হয়নি, বোমা ফাটেনি, গুলি চলেনি, একটি বুথেও পুনর্নির্বাচন হয়নি। এই শান্তিপূর্ণ ভোট সংঘটিত করার জন্য নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ জানাতে চাই।’

এই বিভাগের আরও খবর