বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

কাফনের কাপড় চেনাল খুনিকে

মির্জা মেহেদী তমাল

কাফনের কাপড় চেনাল খুনিকে

পুরান ঢাকার হাজারীবাগের কোম্পানি ঘাটের চামড়া রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান ইমেক্সিন ট্রেডিংয়ের সিলেক্টার ফখরুল ইসলাম তাপস দুই দিন ধরেই অফিসে আসছেন না। ছুটিও নেননি। প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার নুরুল ইসলাম পারভেজ হাজারীবাগের চামড়া শিল্পে একজন ভালো রপ্তানিকারক হিসেবে দেশ-বিদেশ সুনাম অর্জন করেছেন। তার প্রতিষ্ঠানের সিলেক্টার দুই দিন অফিসে অনুপস্থিত। বিষয়টিকে তিনি গুরুত্ব দিয়ে তারই অফিসে তাপসের সহকর্মী সোহেলকে দায়িত্ব দিলেন তার খোঁজ-খবর নিতে। ঘটনাটি ১৯৯৮ সালের মার্চের। অবিবাহিত তাপস একাই থাকতেন ঝিগাতলা গাবতলা মসজিদ এলাকার বিপরীতের গলির একটি ফ্ল্যাটের দ্বিতীয় তলার সাব-লেট হিসেবে। দুই দিন ধরে বাড়িতেও ফেরেননি বলে তার পাশের রুমের প্রতিবেশীরা সোহেলকে জানালেন। তার গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছোট কুমিরায়। তার মা, ভাই স্বজনসহ ঢাকার সব বন্ধুর সঙ্গে যোগাযোগ করে সোহেল জানতে পারলেন তাপস কোথাও যাননি। সবার মনেই গভীর উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা। যে ছেলে বন্ধুদের প্রতিদিনই জানাতেন তিনি কখন কোথায়, কার সঙ্গে আছেন অথচ দুই দিন ধরেই তার কোনো খোঁজ নেই। বন্ধুরা যার যার সাধ্যমতো খোঁজখবর নিচ্ছেন। এরই মধ্যে তাপসের ভাই ঢাকায় চলে এসেছেন ভাইয়ের খোঁজে। কারও সঙ্গে কোনো শত্রুতা নেই। কাকে কেন সন্দেহ করবেন। সোহেলের জানা ছিল তাপস মিরপুর সনি সিনেমা হলের পেছনের একটি মার্কেটে এক বন্ধুর সঙ্গে পার্টনারে সেলাইয়ের কারখানা দিয়েছেন। সেখানে তার ১ লাখ টাকা বিনিয়োগ আছে। তাপসের পার্টনারের সঙ্গে সোহেল যোগাযোগ করলেন, সেখানেও যাননি। তারাও তার নিখোঁজে চিন্তিত। সবার মধ্যেই উৎকণ্ঠা। তাপস তাহলে গেল কোথায়? কেনই বা তিনি নিখোঁজ হবেন?

এর মধ্যেই তাপসের সহকর্মী সোহেলের কাছে খবর আসে দুই দিন আগে মিরপুর বেড়িবাঁধ এলাকার ডোবা থেকে এক অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের মর্গে পাঠিয়েছে। এর মধ্যেই সোহেলের সঙ্গে দুই দিন আগে শেষ দেখা। তাপস সোহেলকে বলেছিল, আমার হাতের নখগুলো একটু কেটে দাও। অফিসে বসেই সোহেল তাপসের নক কেটে দেয়। তাপস কোথায় যাবে কিছুই বলে যায়নি। সেই থেকেই নিখোঁজ।

তাপসদের সহকর্মী সোহেল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের মর্গে। লাশ কাটা ঘরে লাশের স্তুপ। সোহেলের রক্ত হিম হয়ে আসছিল। মানুষের পচা দুর্গন্ধ অসহ্য লাগছিল তার কাছে। এর মধ্যে সোহেলের নজর কোনো লাশের শরীর বা মুখমন্ডলে নয়, হাতের দিকে। হ্যাঁ, এই তো সেই হাত, দুই দিন আগে সে নকগুলো কেটে সমান করে দিয়েছিল। এ যে তাপসেরই লাশ। ফুলে পচে গিয়েছে। মুখ চেনা কষ্টকর হলেও তার সহকর্মী তাপসকে সোহেল শনাক্ত করল। অজ্ঞাত লাশের পরিচয় মিলল।

মিরপুর থানা পুলিশকে খবর দেওয়া হলো, এই লাশ আর অজ্ঞাত নয়। মর্গেই কান্নায় ভেঙে পড়লেন গ্রাম থেকে আসা তাপসের ভাই-বন্ধুরা। মুহুর্তে লাশকাটা ঘরের আশপাশে থাকা বন্ধু-স্বজনদের আহাজারি। কে মারল, কেন তাকে হত্যা করা হলো? নানা প্রশ্ন তাদের মনে।

মর্গের দায়িত্বে তখন ডোম শংকর। দিনভর থাকেন মদের নেশায় বুঁদ হয়ে। তিনি বললেন, গতকালই আমরা অজ্ঞাত লাশগুলো দাফনের জন্য আঞ্জুমানে মুফিদুল ইসলামের স্বেচ্ছাসেবক ডেকে এনেছিলাম। কাফনের কাপড় কম হওয়ায় এই লাশটি আর তারা নিয়ে যায়নি। আজই তাদের আসার কথা। আপনারা আর একটু পরে আসলে হয়তো এই লাশ আর পেতেন না। অজ্ঞাত হিসেবেই দাফন হয়ে যেত। তাপসের ভাইকে সঙ্গে নিয়ে তার বন্ধু ও সহকর্মীরা ৯৮ সালের ২৯ মার্চ ভোররাতে তাপসের গ্রামের বাড়িতে ফজরের নামাজের পর তার লাশ দাফন করেন। লাশের সুরতহাল রিপোর্টে হত্যার আগে তাপসকে শারীরিক নির্যাতনের বিবরণ আছে। সেই সঙ্গে বুকের মধ্যে কামড়ের চিহ্ন আছে। যা প্রতিহিংসার আলামত। অনেক ক্ষোভ থেকেই তাকে হত্যা করা হয়েছে। মিরপুর থানাপুলিশ এমন আশঙ্কা করলেও তারা মামলার কোনো ক্লু পাচ্ছিলেন না।

অজ্ঞাত লাশের পরিচয় পাওয়ার পরও তাপস হত্যার মোটিভ ও কোনো ক্লু না পাওয়ায় মিরপুর থানার পুলিশ এই মামলা নিয়ে অন্ধকারেই থেকে যায়। লাশের সুরতহাল রিপোর্টে তাপসের বুকে কামড়ের একটি বড় ক্ষত আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে।

তাপসের লাশ উদ্ধার ও লাশের ছবি দেখে গোয়েন্দা কর্মকর্তা আকরাম হোসাইন খুনের পেছনে প্রতিহিংসা কাজ করেছে বলে মনে করেন। তদন্তের শুরুতেই গোয়েন্দারা এই প্রতিহিংসার মূলত দুটি কারণ হতে পারে বলে তদন্তের গাইড লাইন হিসেবে সামনে নিয়ে আসেন। প্রথমত, জায়গা জমি সংক্রান্ত বিরোধ, দ্বিতীয়ত নারীঘটিত। দুটি বিষয়কে সামনে রেখেই হত্যার রহস্য উদঘাটনের পথে পা বাড়ান গোয়েন্দারা। তৎকালীন ধানমন্ডি থানাধীন ঝিকাতলার যে বাসাটিতে তাপস থাকতেন সেখানে গিয়েই তিনি হত্যার মোটিভ পেয়ে যান চৌকশ কর্মকর্তা আকরাম হোসাইন। ঠিক তাপসের রুমটির বিপরীত দিকে এক সুন্দরী রমণী থাকেন তার বাবা-মায়ের সঙ্গে। তার সঙ্গে তাপসের একটি সম্পর্কের তথ্য পান আকরাম হোসাইন। রাত ৯টার দিকে বাড়িটি রেকি করে চলে আসেন। বাড়িটির সামনে এবং পেছনে দুটি দরজা আছে চলাচলের জন্য। এরপরই অভিযান। মধ্য রাতে এসি আকরামের সঙ্গে তার সহকর্মী শাহজাহান, মতিউর রহমান ও আবদুর রবসহ ডিবির একটি চৌকশ দল।

মিন্টো রোড থেকে আকরাম হোসাইনের সিভিল পোশাকের দলটি বের হয়েছে। ঝিকাতলার সেই বাড়ি (তাপস যে বাড়িতে থাকতেন)-তে অভিযান চালিয়ে বাড়িতে থাকা ওই সুন্দরী রমণীকে না পেয়ে তার বাবাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানতে পারেন তার মেয়ে ডলি স্বামীর সঙ্গে ঢাকার কেরানীগঞ্জের কালিন্দীতে আছেন। পরিবারের অন্য সদস্যদের ডিবির তত্ত্বাবধানে রেখে তার বাবাকে সঙ্গে নিয়েই রাতেই কালিন্দী  থেকে ডলি ও তার স্বামী রিপনকে গ্রেফতার করে রাতেই ঢাকায় নিয়ে আসেন। এরপর পৃথক পৃথকভাবে ডলি ও তার স্বামী রিপনকে জিজ্ঞাবাদে বের হয়ে আসে তাপস হত্যার রহস্য।

মাদকাসক্ত রিপন পেশায় সিনেমা হলের টিকিট চেকার। তাপস হত্যার বর্ণনা দিয়ে রিপন জানান, তার স্ত্রী ডলির সঙ্গে তাপসের পরকীয়া চলছিল। প্রায়ই নানা উছিলায় ডলি রিপনের মিরপুরের বাসা থেকে বাবার বাড়ি ঝিকাতলায় চলে আসত। আর পাশের ফ্ল্যাটের সাবলেটে থাকা তাপসের সঙ্গে রঙ্গলীলায় মেতে উঠত। রিপন জানতে পারেন, দুজন কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতে অভিসারেও গিয়েছেন। এমন খবর জানতে পেরে রিপন ক্ষুব্ধ হন এবং সিদ্ধান্ত নেন তাপসকে হত্যার। তাই তিনি ডলিকে দিয়েই খবর দেন তাপসকে তার সঙ্গে দেখা করার জন্য।

ঘটনার দিন সন্ধ্যায় পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী ডলি তাপসকে নিয়ে কলাবাগানের ১ নম্বর গলির একটি বাড়িতে যান। সেই বাড়িটি রিপনেরই বন্ধুর। ডলি তাপসকে নিয়ে ওই ফ্ল্যাটের রুমে প্রবেশ করার পরই অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে তাপসের হাত-পা চেয়ারের সঙ্গে বেঁধে ফেলা হয়। তারপর মুখে মাসকিন পেঁচিয়ে নির্যাতন করা হয়। তাপস যাতে চিৎকার করলে শব্দ না হয়। এভাবেই ডিবি অফিসেই তাপস হত্যার রোমহর্ষক বর্ণনা দেন ডলির স্বামী রিপন। এরপর লেক সার্কাস কলাবাগানের ১ নম্বর গলির যে বাড়িতে তাপসকে হত্যা করা হয়, সেখানে অভিযান চালিয়ে রিপনের দুই বন্ধুকে আটক ও একটি কাঁটা রাইফেল উদ্ধার করা হয়।

তাপসকে নির্মম নির্যাতনের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে একটি বেবিট্যাক্সিতে করে তার লাশ মিরপুর বেড়িবাঁধের পাশে ফেলে আসে বলে রিপন জানায়। ডিবিতে আবেদনের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই এসি আকরাম হোসাইন তাপস হত্যার রহস্য উদঘাটন ও খুনি চক্রকে গ্রেফতার করেন। পরে যে বেবিট্যাক্সি দিয়ে তাপসের লাশ বহন করা হয় সেই বেবিট্যাক্সি উদ্ধার ও চালককেও গ্রেফতার করা হয়।

রিপন পুলিশকে জানায়, তার স্ত্রী ডলির সামনেই তাপসকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয় এবং তার স্ত্রী ডলিকে হুঁশিয়ার করা হয়, যদি সে এই ঘটনা ফাঁস করে তবে তাকেও তাপসের মতো হত্যা করা হবে। রিপন আরও জানান, হত্যার পরই তিনি ডলিকে নিয়ে কেরানীগঞ্জের কালিন্দীতে চলে আসেন। মাত্র ৬/৭ ঘণ্টার মধ্যেই তাপস হত্যার রহস্য উদঘাটন ও খুনি চক্রকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হন এসি আকরাম হোসাইন।

লাশের গায়ে নির্যাতনে কামড়ের ক্ষতটিই তাপস হত্যায় অন্ধকারে থাকা ডিবির দলটিকে আলো জ্বালিয়ে পৌঁছে দেয় খুনি পর্যন্ত। এভাবে ক্লুলেস হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন ও খুনিদের গ্রেফতার করেছিলেন ডিবির আলোচিত অফিসার আকরাম হোসাইন।

সর্বশেষ খবর