শিরোনাম
১৪ আগস্ট, ২০২১ ১০:২৫

জেনে নিন সারাক্ষণ মোবাইল স্ক্রিনে চোখ রাখলে কি কি ক্ষতি হয়?

অনলাইন ডেস্ক

জেনে নিন সারাক্ষণ মোবাইল স্ক্রিনে চোখ রাখলে কি কি ক্ষতি হয়?

ফাইল ছবি

অনেকেই বিছানায় শুয়ে মোবাইল দেখার অভ্যেস করে থাকেন। শুয়ে মোবাইল দেখলে চোখের সঙ্গে দূরত্ব সমান থাকে না। চোখের পেশিগুলির উপরেও অনেক চাপ পড়ে। বেশিদিন এই অভ্যাস বজায় রাখলে প্রভাব পড়ে চোখে। চোখের দৃষ্টিশক্তি ঝাপসা হতে পারে। হতে পারে মাথা ব্যাথাও। তাই মোবাইল দেখুন বসে। শুয়ে শুয়ে একেবারেই নয়।

বাসে ট্রেনে যাতায়াত করার সময় যতটা সম্ভব চোখ মোবাইল থেকে দূরে রাখুন। কারণ এই সময় বাসের ঝাঁকুনির সময় মোবাইল দেখলে চোখের উপর প্রভাব পড়তে পারে। চেষ্টা করুন খুব প্রয়োজন না হলে এই সময়টুকু মোবাইল না দেখার। এতে চোখের ক্ষতি অনেকটাই কমবে।

একনাগাড়ে তাকিয়ে থাকবেন না
কাজ করার সময় চেষ্টা করবেন একনাগাড়ে কম্পিউটার, ল্যাপটপ বা ফোনের স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে না থাকতে। বরং মাঝে মাঝেই অন্যদিকে তাকিয়ে চোখকে কিছুটা আরাম দেওয়ার ব্যবস্থা করবেন। কাজের মাঝে দুই থেকে তিন মিনিট চোখ বুজে থাকুন। এতে চোখ বিশ্রাম পাবে।

চোখে পানির ঝাপটা দিন
কাজ থেকে খানিকটা বিরতি নিয়ে চোখে-মুখে পানির ঝাপটা দিন। এ সময় খুব জোরে পানির ঝাপটা না দেওয়াই ভালো। পানিতে ভেজানো তুলা দিয়ে চোখ মাঝেমধ্যে মুছে নিন। এতে চোখ আরাম পাবে।

চোখের ব্যয়াম করুন
হাত-পায়ের মতো চোখেরও ব্যয়াম আছে। যা কিনা দৃষ্টিশক্তিকে সবল করে তোলে। যারা কম্পিউটারে বা মোবাইলে বেশি চোখ রাখেন তাদের দিনে অন্তত একবার চোখের ব্যয়াম করা উচিত। যেমন, খুব দূরের কোনো বস্তু দেখার চেষ্টা করুন। তার পরের মুহূর্তে সামনের কোনো বস্তুর দিকে তাকান। এভাবে অন্তত পাঁচ থেকে সাতবার করার চেষ্টা করুন। এতে দৃষ্টিশক্তি সবল হয়।

সানগ্লাস ব্যবহার করুন
রোদে বের হলে অবশ্যই সানগ্লাস ব্যবহার করতে ভুলবেন না। এতে চোখ ভালো থাকবে।

ড্রাই আই
কারো ড্রাই আইয়ের সমস্যা থাকলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে আর্টিফিসিয়াল টিয়ার ড্রপ ব্যবহার করতে পারেন। এতে চোখ শুধু আরামই পাবে তা নয়, চোখের ক্লান্তি দূর হবে। আর মোবাইল দেখতে দেখতে যখনই চোখে ব্যথা অনুভব করবেন তখনই মোবাইল দেখা বন্ধ করে কিছুক্ষণ চোখ বন্ধ করে রাখুন। চোখকে বিশ্রাম দিন। এতে চোখ দীর্ঘদিন ভালো থাকবে।

এছাড়াও প্রতিদিন সকালে উঠে সবুজের দিকে তাকানোর অভ্যাস করুন। সবুজ চোখে আরাম দেয়। চোখের জন্য সবুজ রং অত্যন্ত উপকারী।

 

বিডি প্রতিদিন / অন্তরা কবির 

এই রকম আরও টপিক