শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৬:১৫
আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৯:৪০
প্রিন্ট করুন printer

জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সমাবেশে যুক্তফ্রন্ট ও বিএনপির নেতারা

জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় এই ঐক্য : ড. কামাল

নিজস্ব প্রতিবেদক

জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় এই ঐক্য : ড. কামাল
ছবি : জয়ীতা রায়।

দেশের মানুষ ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত মন্তব্য করে গণফোরাম সভাপতি ও জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন বলেছেন, এজন্য দেশের মানুষের মধ্যে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। আজ সেই অধিকার পুনরুদ্ধারে আমরা সমবেত হয়েছি। যেভাবে একাত্তর সালে ‍জনগণ ঐক্যবদ্ধ হয়ে স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছিলো।

আজ শনিবার বিকেল ৩টায় ঢাকা মহানগর নাট্যমঞ্চে (কাজী বশীর মিলনায়তন) শুরু হওয়া জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া আয়োজিত নাগরিক সমাবেশে সূচনা বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। 

ড. কামাল বলেন, 'জাতীয় ঐক্যের ভিত্তি হচ্ছে কার্য্কর গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা। তাই এই ঐক্যের মাধ্যমে রাষ্ট্রের আর্থিক শৃঙ্খলা নিশ্চিত করে জনগণের মত প্রকাশের স্বাধীনতা ফিরিয়ে আনা সম্ভব। আশা করি মঞ্চে উপবিষ্ট জাতীয় নেতৃবৃন্দ বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য ও গণজাগরণ সৃষ্টির লক্ষ্যে জনগণকে অনুপ্রাণিত করে তাদের মূল্যবান বক্তব্য রাখবেন।’

কামালের সভাপতিত্বে ও নাগরিক ঐক্যের সদস্য সচিব আ ব ম মোস্তফা আমিনের পরিচালনায় এই সমাবেশে প্রধান অতিথি হলেন- যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী। 

মঞ্চে ড. কামালের সাথে বসেছেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, আবদুল মঈন খান, বিজেপির চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহাসচিব মাওলানা নুর হোসেইন কাশেমী, ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মো. মনসুর, জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

সমাবেশের ওই মিলনায়তনে বড় ব্যানারে লেখা আছে- ‘কার্যকর গণতন্ত্র, আইনের শাসন ও জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলুন’।

‘এক দাবি এক লক্ষ্য দেশের স্বার্থে জাতীয় ঐক্য’ ‘নবীন-প্রবীন আয়রে ভাই, দেশ বাঁচাতে ঐক্য চাই’, ‘একাত্তরের চেতনা, জাতীয় ঐক্য আরেক বার’, ‘নব্বইয়ের আকাঙ্ক্ষা জাতীয় ঐক্য আরেকবার’  এমন বিভিন্ন শ্লোগানে মুহুর মুহুর করতালিতে মিলনায়তন ছিল সরব।

ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র মিছিল নিয়ে এই সমাবেশে নেতা-কর্মীরা আসছে। বেলা ২টার পরপরই পুরো মিলনায়তন স্থলে কয়েক হাজার নেতা-কর্মীর উপস্থিতিতে পূর্ণ হয়ে যায়। মিলনায়তনে বাইরে লোকজন যাতে বক্তব্য শুনতে পারেন সেজন্য পুরো প্রাঙ্গনে মাইক টানানো হয়েছে।

সমাবেশস্থলে অন্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত হয়েছেন- ২০ দলীয় জোটের শরিক জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) মোস্তফা জামাল হায়দার, আহসান হাবিব লিংকন, কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, খেলাফত মজলিশের মাওলানা মজিবুর রহমান, আহমেদ আবদুল কাদের, এনপিপির ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, জাগপার খোন্দকার লুৎফর রহমান, আসাদুর রহমান খান এসেছেন।

এই নাগরিক সমাবেশকে কেন্দ্র করে মহানগর নাট্যমঞ্চের আশপাশে ব্যাপক পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

২০১৬ সালের ৫ আগস্ট দেশে অবাধ, সুষ্ঠু ও কার্য্কর গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া গঠনের ঘোষণা দেন।

সমাবেশ শুরুর আগে উদীচীর শিল্পী সুরাইয়া পারভিন ও মায়শা সুলতানার কণ্ঠে ‘আমাদের ন্যায্য অধিকার যত, আমাদের ফিরিয়ে দাও’ শীর্ষক গণসঙ্গীত পরিবেশিত হয়।

বিডি প্রতিদিন/এনায়েত করিম


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর