শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ এপ্রিল, ২০১৯ ০২:৩৮

প্রবাসী শিহাব শরিয়াহ শাস্তির বিধান দেখে স্ত্রীকে হত্যা করেন

প্রতিদিন ডেস্ক

প্রবাসী শিহাব শরিয়াহ শাস্তির বিধান দেখে স্ত্রীকে হত্যা করেন

দুই বছর আগে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে খন্দকার ফাইহি ইলাহিকে তার স্বামী শিহাব আহমেদ সচেতন অবস্থায় খুন করেন। এ বিষয়ে প্রসিকিউটর স্টিভেন হিউজেস আদালতে উল্লেখ করেছেন, খুন করার আগে শিহাব আহমেদ ইসলামে পরকীয়ার শাস্তির কী বিধান রাখা হয়েছে- তা দেখতে ইন্টারনেটে সার্চ করেন। খবর : এবিসি.নেট.এইউয়ের। অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলসের সুপ্রিম কোর্টে খন্দকার ফাইহি ইলাহি হত্যা মামলায় তথ্য-প্রমাণ উপস্থাপন করার সময় প্রসিকিউটর স্টিভেন হিউজেস এসব কথা বলেন। অস্ট্রেলিয়ার সিডনি নিবাসী স্বামী-স্ত্রী উভয়েই প্রবাসী বাংলাদেশি। খবরে বলা হয়, আদালতে ৩৫ বছর বয়সী শিহাব আহমেদ আত্মপক্ষ সমর্থন করে জবানবন্দিতে জানান, ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে তিনি তার স্ত্রীকে রান্নাঘরের ছুরি দিয়ে ১৪ বার আঘাত করেন। তার দাবি, তিনি সে সময় মানসিকভাবে অসুস্থ ছিলেন। কিন্তু তার এই দাবির বিরোধিতা করেছেন প্রসিকিউটর। আদালতে আর্জিতে বলা হয়েছে, শিহাব আহমেদ তার সহকর্মী ওমর খানের সঙ্গে পরকীয়ার জন্য ‘তার স্ত্রীকে শাস্তি দিতে মনস্থির করেছিলেন’। হত্যাকান্ডে র আগে তিনি তার স্ত্রী এবং ওমর খানের মধ্যে মেসেজ বার্তা চালাচালির প্রমাণ পেয়েছিলেন। তিনি হত্যার অভিপ্রায় নিয়ে কিংবা তার গুরুতর শারীরিক ক্ষতির উদ্দেশে ওই কাজ করেছিলেন। শুধু তাই নয়, হত্যার আগে ইসলামে পরকীয়ায় শাস্তির বিধান জানতে তিনি ইন্টারনেট অনুসন্ধান করেছিলেন।

এই আইনজীবীর আরও দাবি, শিহাব যে তার স্ত্রীকে সচেতন অবস্থায় হত্যা করেছেন, তার আরও প্রমাণ পাওয়া গেছে। যেমন হত্যা করার পর ফেসবুকে দেওয়া পোস্টে শিহাব লেখেন, ‘যাক শেষ হলো’। এরপর তিনি একটি সিগারেট ধরান এবং ট্রিপল জিরো নম্বরে ফোন দিয়ে তার স্ত্রীর মৃত্যুর বিষয়টি অবহিত করেন। পুলিশ তাকে ঘটনাস্থল থেকেই গ্রেফতার করে।

এদিকে শিহাবের স্ত্রী ফাইহি ইলাহির সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক থাকার কথা আদালতে স্বীকার করেছেন ওমর খান। তিনি বলেন, শিহাবের স্ত্রীর সঙ্গে ২০১৫ সালের জুলাই মাসে থেকে সম্পর্ক তৈরি হয়। তবে তাদের মধ্যে যৌন সম্পর্ক ছিল না।


আপনার মন্তব্য